বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

“সংসারে অভাব থাকলে কি হবে-এবারের পুজোটাই কাটছে অন্যরকম আনন্দে”

একরাম তালুকদার ॥ “সংসারে অভাব থাকলে কি হবে-কিন্তু এবারের পূজোটাই কাটছে অন্যরকম এক আনন্দে। অভাবের সংসারে পূজোর এরকম আনন্দ জীবনে কখনও পাই নাই”। শারদীয় দুর্গোৎসবের বিজয়া দশমীতে হাসোজ্জল মুখে এরকম প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করলেন এবারের মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় জাতীয় মেধা তালিকায় তৃতীয় স্থান অর্জনকারী সজিব চন্দ্র রায়ের কাঠুরিয়া বাবা মনোধর চন্দ্র রায়।

আর সজিবের দিনমজুর মা চারুবালা রায় জানালেন, জীবনে ৩৫টি দুর্গোৎসব অতিবাহিত করেছি। অভাবের সংসারে প্রতিবারই দুর্গাপূজা আসলেই আতঙ্ক হয়। নিজের না হোক-ছেলেমেয়েদের জন্য চিন্তা হয়। কেউ খবরও নেয় না। কিন্তু এবার ইতিমধ্যেই ছেলে ডাক্তারী পড়ার জন্য ভর্তি হয়ে এসেছে। মানুষজনও খবর নিচ্ছে। ৩৫ বছরের মধ্যে এটিই তার জীবনের আনন্দময় পুজা বলে জানালেন চারুবালা রায়।

দিনাজপুরের বীরগঞ্জের কাঠ শ্রমিকের ছেলে সজীব চন্দ্র রায় মেডিক্যাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষায় জাতীয় মেধা তালিকায় তৃতীয় স্থান অধিকার করার পর বীরগঞ্জ প্রতিদিনে তাকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এই সংবাদ প্রকাশের পর সারাদেশে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। প্রকাশিত সংবাদের কপি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ভাইরাল হয়ে যায়। দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সজিবের পরিবারের এবং ভবিষ্যতে তার লেখাপড়ার খোঁজ খবর নেয়া হয়।

প্রশাসনের পক্ষ থেকেও তার পরিবারকে তাৎক্ষনিকভাবে সম্বর্ধনা ও আর্থিকভাবে সহযোগিতা করা হয়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভবিষ্যতে তার লেখাপড়ার খরচ চালানোর জন্য সহযোগিতার আশ্বাস দেয়া হয়। শুধু তাই নয়, কুড়েঘরে বাস করা সজিবের পরিবারের জন্য বাড়ী নির্মাণ করে দেয়ার উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে উদ্যোগ নেয়া হয়।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল আলম, বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন, বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ জাহাঙ্গীর কবীর জানান, বীরগঞ্জ প্রতিদিনে খবরটি প্রকাশ না হলে তারা সজিবের এই কৃতিত্বের খবর জানতো না। এ জন্য বীরগঞ্জ প্রতিদিন কর্তৃপক্ষকে এবং প্রতিনিধিদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান তারা।

এই খবর প্রকাশের পর দিনাজপুর জেলা প্রশাসক, বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, বীরগঞ্জ থানার ওসি তাৎক্ষনিকভাবে কৃতি শিক্ষার্থী সজিব রায় ও তার বাবা-মা’কে তাদের নিজ নিজ কার্যালয়ে নিয়ে এসে সম্বর্ধনা এবং আর্থিকভাবে অনুদান প্রদান করে।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল হাসান জানান, নগদ অর্থের পাশাপাশি সজিবের লেখাপড়ার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাসিক খরচ প্রদানের আশ্বাস দেয়া হয়।

বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তোফাজ্জল হোসেন জানান, খবরটি প্রকাশের পর তার পারিবারিক খোজখবর নেয়া হয়, মেডিক্যালে ভর্তির ব্যবস্থা করা হয়। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুমোদনক্রমে সজিবের বাড়ী নির্মান করে দেয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এদিকে শুক্রবার দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার কাটগড় গ্রামে সজিবের বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায়, তার পরিবারে দুর্গোৎসবের এক অন্যরকম আনন্দ বিরাজ করছে। ছেলে কৃতিত্বের সাথে মেডিক্যালে ভর্তি হওয়ায় এবারের শারদীয় দুর্গোৎসবের আনন্দ যেনো দারিদ্রতার চরম অভিশাপকে মোচন করে দিয়েছে।

বাবা মনোধর রায় জানান, দুর্গতিনাশিনী মা দুর্গা তাদের সব দুর্গতি বিনাশ করে দিয়েছে। ছেলে ডাক্তার হয়ে ফিরে আসলে তাদের পরিবারের সব স্বপ্ন পুরন হবে। এর চেয়ে আনন্দ আর কি আছে।

তিনি জানান, ছেলে কৃতিত্বের সাথে মেডিক্যালে ভর্তির সুযোগ পেয়েও দারিদ্রতার কারনে ছেলের ডাক্তারী পড়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন তিনি। কিন্তু বীরগঞ্জ প্রতিদিনে খবর প্রকাশ হওয়ার পর প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ সমাজের বিভিন্ন লোক যেভাবে এগিয়ে আসছে, তাতে তার স্বপ্ন পুরন হবেই। এ জন্য প্রশাসনের কর্মকর্তা, সমাজের লোকজন এবং সর্বোপরি বীরগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন তিনি।

দিনমজুর মা চারুবালা রায় পুজোর আনন্দে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনার পাশাপাশি ছেলেকে ডাক্তারী পড়ার জন্য যারা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে, তাদের জন্য প্রার্থনা করেন তিনি।

উল্লেখ্য, এবারের মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় জাতীয় মেধা তালিকায় তৃতীয় স্থান অধিকার দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার কাটগড় গ্রামের কাঠ শ্রমিক মনোধর রায় ও দিনমজুর চারুবালা রায়ের ছেলে সজিব চন্দ্র রায়।

গত ১৫ অক্টোবর ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হয় বীরগঞ্জের প্রত্যন্ত এলাকার দরিদ্র পরিবারের ছেলে সজিব চন্দ্র রায়।