বুধবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সন্ত্রাস,জঙ্গীবাদ,মাদকমুক্ত ক্যাম্পাস গড়ার প্রত্যয়ে দিনাজপুর সরকারি কলেজে শুভসংঘের যাত্রা শুরু

দিনাজপুর প্রতিনিধি॥ দিনাজপুর জেলার সু-প্রাচীন বিদ্যাপিট দিনাজপুর সরকারি কলেজে একঝাক মেধাবী শিক্ষার্থীদের নিয়ে কালের কন্ঠ শুভসংঘের যাত্রা শুরু হয়েছে।

শনিবার ৭ সেপ্টম্বর সকাল ১১ টায় শুভসংঘ জেলা শাখার আয়োজনে কলেজ ক্যাম্পাসের কলাভবনের ১২১৫  নং কক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি দিনাজপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আলহাজ্ব সৈয়দ মোহাম্মদ হোসেন বলেন, “শুভ কাজে সবার পাশে” “কালের কন্ঠ শুভসংঘ” যে শ্লোগানকে ধারণ করে এর থেকে আর কোন সুন্দর কথা হতে পারেনা। তিনি বলেন, ঐতিহ্যবাহী এই কলেজে আজ যারা শুভসংঘের সঙ্গে জড়িয়ে যাত্রা শুরু করল তারা নিশ্চই আগামীদিনে মাদক, সন্ত্রাস জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে কাজ করবে। বাল্যবিবাহ যৌতুককে না বলবে। অনিয়ম ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলবে।

অধ্যক্ষ আরো বলেন, যুব সমাজের মাঝে যে অবক্ষয় দেখা দিয়েছে, পঁচন ধরেছে  তা থেকে কেবলমাত্র শুভসংঘের মত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গুলোই পারে যুব সামাজকে তুলে আনতে । এই সংগঠন গুলোই পারে একটি স্বচ্ছ,সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস উপহার দিতে। আলোকিত মানুষ তৈরি করতে।

এ সময় তিনি শুভসংঘের পাশে থাকার অঙ্গীকার করে সকল প্রকার সহযোগীতার আশ্বাস দিয়ে বলেন,শুভসংঘের প্রতিটি সদস্য হবে সব ধরণের মাদক মূক্ত, তাদের আচার,আচরণে অনুপ্রাণীত হয়ে অন্যান্যরাও এগিয়ে আসবে শুভকাজ করার জন্য।

আলোচনা সভায়  “কালের কন্ঠ শুভসংঘের দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য মোঃ রাসেল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আলহাজ্ব ওয়াহেদুল আলম আটির্ষ্ট, উদ্ভিদবিঁজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, কালের কন্ঠের দিনাজপুর প্রতিনিধি এমদাদুল হক মিলন প্রমুভ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন “কালের কন্ঠ শুভসংঘের দিনাজপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শিক্ষক মোসাদ্দেক হোসেন।

এসময় উপস্থি ছিলেন শুভসংঘ জেলা শাখার সহ সভাপতি ডাঃ মু মুনিরুজ্জামান,সরকারি কলেজের আহব্বায়ক জাকিনুর ইসলাম,যুগ্ন আহব্বায়ক ফিরোজ আলম প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে অধ্যক্ষ প্রফেসর আলহাজ্ব সৈয়দ মোহাম্মদ হোসেনকে  প্রধান উপদেষ্টা করে একটি উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্যান্য উপদেষ্টা হলেন – দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক গবেষক ড.মাসুদুল হক,উদ্ভিদ বিঁজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন,পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক বিশ্বজিৎ দাস।

এরপর উপদেষ্টা কমিটির সদস্য সহকারি অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন শুভসংঘ দিনাজপুর সরকারি কলেজে শাখার জন্য মোঃ রশিদুল ইসলাকে সভাপতি ও নদী নন্দিনীর কাব্যের লেখিকা জিনিফা ইফাতকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৬ সদস্য বিশিষ্ট ২০১৯-২০২০ সনের জন্য কাযর্নিবাহী কমিটি ঘোষণা করেন।

কমিটির অন্যান্যরা হলেন – সহ সভাপতি মোক্তারুল ইসলাম,পারিয়ার হোসেন ময়ুরী,যুগ্ন সম্পাদক মোঃ পারভেজ হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক সাহাদুর দেবশর্মা, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রেজওয়ান,দপ্তর সম্পাদক বিনয় চন্দ্র রায,প্রচার সম্পাদক রফিকুল ইসলাম,ইভেন্ট সম্পাদক হুমায়ন পারভেজ,সাহিত্য সম্পাদক টুম্পা,তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক অসীম চন্দ্র রায়,সমাজ কল্যান সম্পাদক তারেক,নারী বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুন নাহার (লুনা),কর্ম ও পরিকল্পনা সম্পাদক গেীতম কুমার,ক্রীড়া সম্পাদক সামিউল ইসলাম,সাংস্কৃতিক সম্পাদক দীপস রায়,আপ্যায়ন সম্পাদক কৃষ্ণ চন্দ্র রায়,আইন বিষয়ক সম্পাদক আবির,স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক পবিত্র রায় কার্যকরী সদস্য মোঃ ছাদেকুল ইসলাম মোঃ হাবিবুল বাশার সুমন মোঃ সুজন ইসলাম,মোঃ তানভির হোসেন, মোঃ আব্দুল্লাহ, মোঃ সুজন রানা ।

দিনাজপুর সরকারি কলেজের পরিচিতি

কলকাতার রিপন কলেজের শাখা হিসাবে ১৯৪২ সালে দিনাজপুরের ‘মহারাজা গিরিজানাথ হাই স্কুলে’ এই কলেজ প্রাথমিকভাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ঐ সময় অধ্যাপক অমরেন্দ্র কুমার ঠাকুর ও মিঃ কে. সি. ব্যানার্জী পর্যাযক্রমে কলেজের দায়িত্ব পালন করেন। দেশ বিভাগের পর ১৯৪৮ সালে ‘রিপন কলেজ’ শাখাটি সুরেন্দ্রনাথ কলেজ (এস.এন. কলেজ) নাম করন করা হয়। ১৯৫৩ সালে দিনাজপুর শহরের নিমনগর বালুবাড়ী এলাকায় ১৩ একর জমির উপর কলেজের নিজস্ব ভবন নির্মিত হয় এবং সেখানে কলেজটি স্থানান্তরিত হয়। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন দার্শনিক ও শিক্ষাবিদ ড. গোবিন্দ চন্দ্র দেব (জি.সি.দেব) ছিলেন সুরেন্দ্রনাথ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ।

১৯৬৬-১৯৬৭ শিক্ষাবর্ষে সুরেন্দ্রনাথ কলেজটি নিমনগর বালুবাড়ী হতে (যা বর্তমানে দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজ) শহরের উত্তরে সুইহারী এলাকায় প্রায় ৬৫ একর জমি সম্বলিত বিস্তৃত এলাকায় নতুন ভবনে স্থানান্তরিত হয় এবং কলেজটি দিনাজপুর ডিগ্রি কলেজ নামে পরিচিত হয়। ১৫ই এপ্রিল, ১৯৬৮ সালে প্রাদেশিকীকরণ করার ফলে কলেজটি ‘দিনাজপুর সরকারি কলেজ’ নামে পরিচিতি লাভ করে।

কলেজটি প্রথমে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিনে পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং বর্তমানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email