শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সফল আম চাষী অধ্যক্ষ জয়নাল আবেদীন

ছিলেন শিক্ষক। হয়েছেন চাষী।  জীবনের দীর্ঘ সময় শিক্ষকতায় কাটিয়ে জয়নাল আবেদীন এখন পুরোদস্তুর চাষী। বিশেষ করে আম চাষের সাফল্য গাঁথা নিয়ে এখন নিয়ে গড়ে তোলার চেস্টা করছেন বড় আম বাগান। দিনাজপুর বাসীকে উপহার দিতে চাইছেন নতুন কিছু উদ্ভাবন। এলাকায় সাধারণের চেয়ে তিনি এখন ভিন্ন মানুষ। 

জয়নাল আবেদীন দিনাজপুরের পরিচিত মুখ। সাধারণভাবে ‘জয়নাল স্যার’ হিসেবে বেশি পরিচিত। তিনি সংগীতের মানুষ। মাস্টার্সও করেছেন সঙ্গীতের উপর। হারমনিয়ম, পিয়ানো সবই বাজাতে পারেন। একজন সেতারিস্টও। সেতার বাজান স্বাচ্ছন্দতার সাথে।  এখন তিনি কৃষি নিয়ে যেমন ব্যস্ত আছেন, তেমনি বিশ্বভারতীর অধীনে আনকমন একটি বিষয় নিয়ে গবেষণা করছেন। গবেষণার বিষয় : “Worlds different countries national anthem : The role of patriotic songs on the eve of freedom of India and Bangladesh. Comparetive study of national anthem and patriotic song.” এর বাংলা হলো “পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের জাতীয় সংগীত : ভারত এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতায় জাতীয় সঙ্গীতের ভূমিকা, জাতীয় সঙ্গীত ও দেশাত্ববোধক গানের তুলনামূলক আলোচনা।” গবেষণা করতে গিয়ে তিনি ভারত, শ্রীলংকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের জাতীয় সংগীত কন্ঠস্থ করেছেন।

জয়নাল আবেদীন শিক্ষকতা করেছেন দীর্ঘ ২৭ বছর। এর মধ্যে ২২ বছরের বেশি সময় ধরে দিনাজপুর সংগীত মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ছিলেন।  যখন শিক্ষকতায় ছিলেন তখন গ্রামের নিজস্ব আবাদী জমিতে কৃষির নানান বিষয় নিয়ে এক ধরণের কৃষি গবেষণায় সম্পৃক্ত করেছিলেন নিজেকে। দিনাজপুর সদর উপজেলার শেখপুরা ইউনিয়নের দীঘনে তার গ্রামের বাড়ি। এই গ্রামে ১৯৮৫ সালে উচ্চ ফলনশীল কার্ডিনাল আলু আবাদ করেছিলেন যা এলাকায় তখনো কেউ করেন নাই। সেই সময় বিঘা প্রতি আড়াই মন আলু উৎপাদনের রেকর্ড তৈরী করেন। তার দেখাদেখি গ্রামের অনেকে কার্ডিনাল আলু আবাদ করে আর্থিকভাবে লাভবান হন। সফল আলু চাষের পর ১৯৮৬ সালে সাগর কলা আবাদ করেন অধ্যক্ষ জয়নাল। কলা আবাদেও সফল হন। ১৯৮৮-৮৯ সালে দীঘনের মানুষ গাজর কি জিনিষ জানত না। কিন্তু ঐ সময় ঐ এলাকায় গাজর চাষ করে কৃষকের মধ্যে নতুন ফসল আবাদে উৎসাহী করে তোলেন। এভাবে চাষাবাদে বৈচিত্র্য সৃস্টি করেন তার নিজ গ্রামসহ আশো-পাশের এলাকায়। 

জয়নাল আবেদীন ২০০৮ সালে দিনাজপুর সংগীত কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্ব ছেড়ে দেন এবং সেই সময় থেকে পুরোদস্তুর কৃষি পেশায় যুক্ত হয়ে পড়েন। তিনি দীঘনে মহারাজার খননকৃত ঝাড়ুয়া দিঘীতে মাছ চাষ করেন। মাছ চাষেও সফল হন এবং মৎস্য চাষী হিসেবে নিজেকে সুপ্রতিষ্ঠিত করেন। মৎস্য চাষের সাথে সাথে ঝারুয়া দিঘী এবং তার মালিকানাধীন একাধিক দিঘীর পাড়ের চতুর্দিকে আম গাছ, লিচু গাছসহ বিভিন্ন গাছ লাগিয়ে বিভিন্ন ফলের বাগান গড়ে তোলেন। প্রায় ২০ বছর ধরে আম চাষের সফলতার কারণে এখন তিনি আম বাগান সম্প্রসারণের দিকে মনযোগী হয়েছেন। 

দীঘনের ঝারুয়া দিঘীসহ তার নিজস্ব মালিকানাধীন জমিতে এখন সাড়ে ছয় শত ফলবান আম গাছ রয়েছে। এর মধ্যে ১৫১টি গাছ ২০ বছর বয়সী। এইসব গাছের মধ্যে ৮৩টি গাছে এবার বিপুল পরিমাণ আম ধরেছে। প্রায় ৫শত আম গাছ হলো আড়াই বছর বয়সী। এইসব গাছ ছোট হলেও প্রচুর আম ধরেছে এবার। এইসব আম গাছের প্রায় সবগুলোই আ¤্রপালি জাতের। আমের ফলন বেশি এবং সাইজ ও চেহারা সুন্দর হওয়ায়  ভোক্তা পর্যায়ে আমগুলোর প্রচুর চাহিদা রয়েছে। জয়নার আবেদীন জানালেন, এবার তিনি আমগুলো আগাম বিক্রি করে দিয়েছেন সাত লাখ টাকায়।   

জয়নাল আবেদীনের আম বাগানের নাম ছড়িয়েছে বিভিন্ন স্থানে। গত ২৯ জুন তার আম বাগান দেখে প্রশংসা করেছেন কলকাতার বিখ্যাত লেখক কালিগঞ্জ নিবাসী অধ্যাপক মলয় চন্দ্র মূখার্জী। তিনি দিনাজপুরে বসে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে একটি উপন্যাস লেখার কাজ শুরু করেছেন।  তার আম বাগান আরো পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশের অন্যতম অর্থোপেডিক চিকিৎসক, আমেনা-বাকী স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ আমজাদ হোসেন, আমেনা-বাকী ফাউন্ডেশনের সিইও আব্দুল জলিল, উপ-পরিচালক জয়ন্ত কুমার রায়, বিশিস্ট কবি ও রানীরবন্দর নজরুল পাঠাগারের সভাপতি লুৎফর রহমান, হর্টিকালচারবিদ ও হাজী মোহাম্দ দানেশ বিঞ্জান ও প্রযুক্তি বিশ^ািবদ্যালয়ের শিক্ষক প্রফেসর ড. ইকবাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও কেবিএম কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সাইফুদ্দিন আখতার, শংকরপুর কলেজের অধ্যক্ষ সোলায়মান আলী, আমবাড়ী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ এরশাদ আলী, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি আবু বকর ছিদ্দিক প্রমুখ। দীঘন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক রতন বাবু একজন সাবেক অধ্যক্ষের আম বাগানীয় হওয়ার উচ্ছসিত প্রশংসা করে বলেন, এই পুকুর ও পুকুর পাড় এক সময় পরিত্যক্ত অবস্থার মত ছিল। এখনো সেভাবেই থাকতে পারত। জয়নাল স্যার ২০-২৫ বছর আগে এমন একটি উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন যখন এই এলাকা ছিল অবহেলিত। তার এই উদ্যোগের কারণে জায়গাগুলো পরিত্যক্ত অঅবস্থার মত পড়ে না থেকে উৎপাদনশীল জমিতে পরিণত হয়েছে। এর ফলে একদিকে তিনি যেমন লাভবান হয়েছেন তেমনি গ্রামের মানুষ অত্যাধুনিক আবাদের সাথে পরিচিতি লাভ করেছে এবং দেশ উপকৃত হয়েছে। একই স্কুলের আরেক শিক্ষক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, অধ্যক্ষ জয়নাল বিভিন্ন সময়ে কৃষি চাষে বৈচিত্র্য এনেছেন। কখনো জমিতে সবজী চাষ করেছেন, কখনো পুকুরে মাছ চাষ করেছেন, কখনো ফল চাষে মগ্ন হয়েছেন। কিন্তু যখন যা করেছেন সেখানেই তিনি আধুনিক পদ্ধতি প্রয়োগ করেছেন এবং সফল হয়েছেন। তার কারণে এই এলাকার মানুষ আধুনিক চাষের দিকে মনযোগী হয়েছে।

অধ্যক্ষ জয়নালের আম বাগানের বেশির ভাগ গাছ আম্রপালি। তিনি ১০ হাজার আম্রপালি আমের চারা তৈরী করেছেন। তার চেষ্টা রয়েছে ১২ মাসি আম গাছ লাগানোর। এ জন্য প্রয়োজনীয় উন্নত চারা উৎপাদনের চেস্টায় আছেন তিনি। তিনি বলেন, মাঝে মাঝে ১২ মাসি আম গাছের কথা শুনি। কিন্তু দিনাজপুরের মানুষ বাস্তবে সেই গাছগুলোর সাথে পরিচিত নয়। আমি আশা করছি যে, আমি নতুন যে উদ্যোগ নিয়েছি, তাতে করে দিনাজপুর জেলার মানুষ আমার মাধ্যমেই ১২ মাস আম খেতে পাবেন। এটা এই জেলার মানুষের জন্য একটা চমক হবে।

আম চাষের সফলতার কারণে জয়নাল আবেদীনকে অনুসরণ করে অনেকেই নতুন নতুন আম বাগান তৈরী করেছেন। এর মধ্যে আছেন তার আপন দুই ভাই আব্দুল জলিল ও জবারুল ইসলাম, শেখপুরা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মকছেদ আলী, মুক্তিযোদ্ধা রুস্তম আলী, এনতাজ আলী, আব্দুল মজিদসহ আরো অনেকেই। আব্দুল জলিল বলেন, সাধারণ কৃষিতে তেমন লাভ নেই। তাই আমার নিজের ভাইয়ের ভিন্ন ধারার চাষের সফলতা দেখে আমিও উৎসাহী হয়ে আম বাগান করেছি।

একজন শিক্ষক থেকে সফল আম চাষীতে পরিণত হওয়া জয়নাল আবেদীন বলেন, সব কিছু নিয়েই গবেষণা করা যায়। গবেষণার কারণেই বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ং সম্পুর্ণতা অর্জন করেছে। গবেষণার কারণে আম, লিচুসহ বিভিন্ন ফলের উন্নত জাত বেরিয়েছে। তাই আমি মনে করি, কৃষি সেক্টরকে আরো উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে নতুন নতুন ভাবনা নিয়ে। আমি আমার এলাকায় সে-রকমটাই করার চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল,

সাংবাদিক ও কলামিস্ট

পাটুয়াপাড়া, দিনাজপুর

মোবাঃ ০১৭১৬৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭