বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১ ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সফল ফ্রিল্যান্সার নাসিম একজন তরুন উদ্যোক্তা এবং ডিজিটাল ক্রিয়েটোর

জিন্নাত হোসেন ॥ পৃথিবীতে সবাই সফল হতে পারেনা, আবার সবাই সমানভাবে পড়ালেখাও করতে পারেনা। কারও লেখাপড়া করতে ভালো লাগে, কারও কিছু শিখতে অনেক ভালো লাগে আবার কেউ কেউ আছেন যারা নিজে কিছু করে প্রতিষ্ঠিত হতে চান। এমনই একজন সফল ফ্রিলেন্সার তিনি দিনাজপুরের একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে মোঃ নাসিম। বেড়ে উঠা দিনাজপুরের একটি প্রত্যন্ত অঞ্চল বিরল উপজেলার রবিপুর গ্রামে। যেখানে মোবাইল নেটওয়ার্ক ছিলোনা বললেই চলে। এমন একটি সময় পাড় করেছেন তিনি বাবার চিকিৎসার জন্য ঋণ নিতে বাধ্য হয়েছিলেন। তিনি উত্তরাধিকার সূত্রে সম্পদ বা সম্পত্তি পাননি। বর্তমানে নিজ উপার্জন দিয়েই গাড়ি-বাড়ির মালিক হয়েছেন।

মোঃ নাসিম, ফেসবুক, ইউটিউব, লিংকডইন, ইনস্টাগ্রাম এবং টুইটার ইত্যাদির মতো সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্কগুলিতে ফ্রিল্যান্সার নাসিম হিসাবে সুপরিচিত। তিনি বাংলাদেশের একজন ফ্রিল্যান্সার এবং ফ্রিল্যান্সিং কেরিয়ারের পরামর্শদাতা। অন্যদিকে তিনি একটি জনপ্রিয় সফটওয়্যার ডেভেলপিং কোম্পানি এবং আইটি ভিত্তিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট নামক এফ এন সফটওয়্যারস এন্ড ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী। নাসিম দেশের উদীয়মান তারকা এবং ইতিমধ্যে তার প্রশংসনীয় কাজের জন্য ইতোমধ্যে সরকারের মনোযোগ কুড়িয়েছেন। তিনি অনলাইনে পাঠদান এবং পরামর্শ দানের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন।

ফ্রিল্যান্সার নাসিমের বাল্য জীবন ঃ ফ্রিল্যান্সার নাসিমের জন্ম ২০ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৫ বাংলাদেশের দিনাজপুরে। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। তাঁর বাবা মরহুম মনসুর আলী ছিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্য। অন্যদিকে, তাঁর বাবা একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। তাঁর মাতা মোছাঃ নূরজাহান বেগম একজন গৃহিনী।
নাসিমের পরিবারে পাঁচ বোন এবং তিন ভাই। নাসিম পরিবারের দ্বিতীয় পুত্র। তিনি ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে দিনাজপুর সরকারী কলেজে অনার্স পড়েন। ২০১৬ সালে কিশোর কলেজের ছাত্র থাকাকালীন নাসিম তার বাবা দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

ফ্রিল্যান্সার নাসিমের ক্যারিয়ার ঃ নাসিম এফএন সফটওয়্যারস এন্ড ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও। তাঁর বাবা চেয়েছিলেন তিনি অবসরপ্রাপ্ত সেনাবাহিনীর সদস্য হওয়ায় নাসিম যেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন । তবে নাসিম তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ে আগ্রহী ছিলেন এবং ব্লগ, ওয়েবসাইট এবং ইউটিউব টিউটোরিয়ালগুলির মাধ্যমে কয়েকটি প্রোগ্রামিং ভাষা এবং ওয়েব এবং মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলোপমেন্ট শিখেছিলেন। স্কুলে লেখাপড়ার সময় তিনি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপার হিসাবে ফ্রিল্যান্সিং জগতে কাজ শুরু করেন। বাবাকে হারানোর পরে পরিবারকে পরিচালনার দায়িত্বভার নাসিমের উপর পড়েছিল। এখনও করছেন। তিনি যখন তার পিতাকে হারিয়েছিলেন, তখন তার পরিস্থিতি অত্যন্ত অভাবি ছিল। কারণ তার ভালো কোন সার্টিফিকেট বা চাকরি ছিল না। তবে ফ্রিল্যান্সিং জব তাকে পরিবার এবং লেখাপড়া চালিয়ে যেতে সাহায্য করে।
অন্যদিকে, তিনি ২০১৩ সালে তার নিজস্ব সফ্টওয়্যার ডেভলপমেন্ট কোম্পানি (এফ এন সফটওয়্যারস এন্ড ইনস্টিটিউট) গঠন শুরু করেছিলেন। শেষ অবধি কোম্পানি টি ২০১৮ সালে চালু হয়।

নাসিমের জীবনে একাধিক অর্জন রয়েছে, সেগুলি হলঃ নিজস্ব স্বপ্নের বাড়ি তৈরি করা এবং ব্যক্তিগত গাড়ি কেনা। ফ্রিল্যান্সার নাসিমের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কীর্তি হ’ল তার ড্রিম হাউস তৈরি করা এবং একটি গাড়ি কেনা। বাবার ক্যান্সারের চিকিৎসার কারণে তাদের ঋণ নিতে হয়েছিল এবং প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হয়েছিল। তিনি কোনও উত্তরাধিকার সম্পদ বা সম্পত্তি পাননি। নিজের উপার্জন দিয়ে, তিনি তার গ্রামে স্বপ্নের বাড়ি তৈরি করেছেন এবং ২০২০ সালে গাড়ি কিনে তাঁর মাকে উপহার হিসেবে দিয়েছেন।

ফ্রিল্যান্সার নাসিম ২০১৮ সালে ইউটিউবে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে ভিডিও তৈরি করা শুরু করেছিলেন। তিনি “ফ্রিল্যান্সার নাসিম” নামে একটি ইউটিউব চ্যানেলের মালিক যার এখন প্রায় ১ মিলিয়নেরও বেশি সাবস্ক্রাইবার রয়েছে। এই কারণেই ২০২০ সালে ইউটিউব থেকে সিলভার এবং গোল্ডেন প্লে বাটন পুরষ্কার পেয়েছিলেন তিনি।
ফ্রিল্যান্সার নাসিম শুধুমাত্র ইউটিউবেই নয়, ফেসবুক এবং অন্যান্য সামাজিক অ্যাকাউন্ট যেমন ইনস্টাগ্রাম এবং টুইটার ইত্যাদিতেও মানুষের কাছে ভালোবাসা ও সাপোর্ট এবং লক্ষ লক্ষ ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম ফ্যানদের কাছ থেকে ভালবাসা পেয়েছেন। নাসিম সকল অনুসারীদের আশীর্বাদ হিসাবে মনে করেন।

ফ্রিল্যান্সার নাসিম একজন সেরা লেখক ও বেস্ট সেলার হিসেবে নাসিম কেবল একজন ফ্রিল্যান্সারই নন, একজন লেখকও। তিনি একুশে বই মেলার জন্য তাঁর প্রথম বই লিখেছিলেন, (ফ্রিল্যান্সিং – ইন্টারনেট থিয়ে আয়) এবং ২০২১ সালে দ্বিতীয় বইটি (ঘরে বোসেই ওয়েব ডিজাইন করে ডলার আয়) নামে পরিচিত এবং প্রথম বইটি অনলাইন বুক শপ রকমারি ডট কম-এ বেস্ট সেলার হয়ে ওঠে। হাজার হাজার মানুষ তার বইটি বাংলাদেশ, ভারত এবং অন্যান্য দেশে ক্রয় করে উপকৃত হন। তিনি রকমারি.কম ২০২০ অনলাইন বইমেলা পুরষ্কারে বেস্ট সেলার এবং সেরা লেখক হিসাবে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেন।

ফ্রিল্যান্সার নাসিমকে ফ্রিল্যান্সার ডটকমের ২০ মিলিয়ন সফল ফ্রিল্যান্সার গল্প প্রোগ্রামে একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি দ্বারা হাইলাইট বা ফিচার্ড করা হয় । তারা ২০১৬ সালে ভিডিওটি প্রকাশ করেছিল এবং ২০২০ অবধি প্রচারিত হয়ে আসছে। অন্যদিকে, তিনি ২০১৫ সালে ফ্রিল্যান্সার ডটকমের জন্য একটি লোগো এক্সপোজ প্রোগ্রাম করেছিলেন তার উপজেলার ৮হাজার জনেরও বেশি মানুষের সাথে। ফ্রিল্যান্সার ডটকম বিশ্বব্যাপী অংশগ্রহণকারীদের ২৫ হাজার ডলার পুরষ্কার প্রদান করেছে। তিনি প্রোগ্রামটিতে রানার আপ হয়েছিলেন এবং ফ্রিল্যান্সার ডটকমের সম্প্রদায় পৃষ্ঠাতে প্রদর্শিত হয়েছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email