শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সরকারের সাড়ে চার বছরে বদলে গেছে রানীশংকৈলের গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা

জিয়াউর রহমান : মহারাজা চৌরাস্তা থেকে ভরনিয়া বাজার প্রায় তিন কিলো নেকমরদ কলেজ থেকে মহারাজা হাট প্রায় ছয় কিলো বলিদ্বারা থেকে রাউতনগর বাজার প্রায় নয় কিলো মিরডাঙ্গী বাজার থেকে কাতিহার হাট প্রায় নয় কিলোমিটার সড়ক এছাড়াও উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চল বম্মপুর রাতোর শিবদিঘী জেলখানা পাড়া থেকে বাশবাড়ী নয়ানপুরসহ ঠাকুরগায়ের রানীশংকৈল উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলের সড়কের যোগাযোগ ব্যবস্থা পাল্টে গেছে বর্তমান সরকারের ২য় মেয়াদের সাড়ে চার বছরে।
গত ৯ থেকে ১১ আগষ্ট সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের যোগাযোগ ব্যবস্থায় সড়কের পাল্টে যাওয়া উন্নয়নের এ দৃশ্য। আর এ উন্নয়ন সার্বিকভাবে বাস্তবায়ন করেছেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি) রানীশংকৈল উপজেলা কার্যালয়।
সরজমিনে গিয়ে এ প্রতিবেদকের কথা হয় উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের দূর্লভপুর গ্রামের আকবর আলীর সাথে তিনি বলেন,এক সময় আমাদের গ্রামে আত্বীয় স্বজনরা আসতে চাইতো না। ছেলে মেয়েদের বিয়ে দেওয়া বিশেষ করে মেয়েদের বিয়ের আত্বীয় করণে অনেক সমস্যা হতো শুধুমাত্র যোগাযোগ ব্যবস্থার অভাবে। সামান্য বৃষ্টিতে কাদা পানির সড়কে চলাচল করা যেতো না সাইকেল নিয়ে যাওয়ায় দুস্কর ছিলো। এখন আমাদের সড়ক পাকা উল্লেখিত সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে। একই ভাবে পারকুন্ডা গ্রামের আতাউর বলেন,সামান্য বৃষ্টির পানিতে কাদা মাড়িয়ে সড়কে চলাচল করতে হতো বৃষ্টির পানিতে সড়ক এমন পিচ্ছিল হতো কোন যানবাহন নিয়ে যাওয়া যেতো না। বিশেষ করে জরুরী অসুস্থ রোগীদের আমাদের গ্রাম থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দুরে অবস্থিত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া যেতো না। কোন যানবাহন এ গ্রামে আসতো চাইতো না । আসলেও দিগুন ভাড়া গুনতে হতো। এখন আর কোন সমস্যা নেই । আমাদের গ্রামের সড়ক পাকা বাড়ী থেকে বের হয়ে উপজেলা সদর পর্যন্ত যেতে কোন কাচা রাস্তা পার হতে হয় না।
একইভাবে উন্নয়ন হয়েছে উপজেলার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার ভরনিয়া জহরপুর বাসনাহার আলুবাড়ী ভাংবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। নতুন চকচকে দ্বিতলা ভবনে শিক্ষার্থীরা ব্যাপক মনযোগ সহকারে শিক্ষদের নিকট পাঠদান নিচ্ছে। কথা হয় শারমিন রুমা সোহেল কাউসার সহ একাধিক শিক্ষার্থীর সাথে তারা নতুন ভবন পেয়ে অনেক খুশি। চকচকে বিল্ডিংয়ে নাকি তাদের চেহারারা সৌন্দর্য বৃদ্বি পেয়ে গেছে বলে হেঁেস হেঁেস বলতে থাকেন। নতুন চকচকে ভবনের সাথে তালমিলিয়ে তারাও নাকি পরিস্কার চকচকে কাপড় পড়ে বিদ্যালয়ে আসেন। এছাড়াও বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে ইটের প্রাচী করে বিদ্যালয় ঘেরানো হয়েছে ভবানন্দপুর গোগড় ঝাড়বাড়ীসহ একাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।
উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) উপ-সহকারী প্রকৌশলী মাসুদুল আলম মাসুদ জানান,সরকারের সাড়ে চার বছরে উপজেলার মোট বত্রিশটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৩ কোটি ২ লাখ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১২ টি ইটের বাউন্ডারী প্রাচী ১ কোটি ২৩ লাখ নতুন সড়ক নির্মাণ প্রায় ৩৪ কিলোমিটারের অধিক ২৩ কোটি ৩৬ লাখ সড়ক সংস্কার (রক্ষনাবেক্ষন) প্রায় ৪০ কিলোমিটারের অধিক ৫ কোটি ৮৭ লাখ ১টি ব্রিজ ২ কোটি ১৭ লাখ মুক্তিযোদ্বা কমপ্লেক্স ভবন ১ কোটি ৭৫ লাখ বাষিক উন্নয়ন কর্মসুচি(এডিবি) প্রায় ২ কোটিসহ প্রায় ৫০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করেছেন উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি) রানীশংকৈল উপজেলা কার্যালয়। এছাড়াও এখনো কয়েক কোটি টাকার সরকারী বিদ্যালয়ের নতুন ভবন ও সড়ক নির্মাণ পুরাতন সড়ক সংস্কারের কাজ চলছে।
এ প্রসঙ্গে ঠাকুরগাঁও ৩ আসনের এমপি অধ্যাপক ইয়শিন আলী বলেন – এলজিইডির কাজের গুনগত মানের প্রশংসা করে বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃতে¦ দেশ এগিয়ে চলছে। তারই ধারাবাহিকতায় রানীশংকৈল উপজেলায় এলজিইডিসহ বিভিন্ন দপ্তরের মাধ্যমে বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজ ,মসজিদ, মন্দির, একাডেমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। সরকারের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে উপজেলা জুড়ে কোন কাঁচা সড়ক থাকবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।
উপজেলা প্রকৌশলী তারেক বিন ইসলাম বলেন, এ উপজেলায় এলজিইডির মাধ্যমে ব্যাপক উন্নয়ন মুলক কাজ হয়েছে। বিশেষ করে গ্রামের সড়ক পথের যোগাযোগ ব্যবস্থা পাল্টে গেছে। আমরা আশা রাখছি এ উপজেলায় সামনে এলজিইডির মাধ্যমে আরও উন্নয়ন হবে।