মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সর্বস্তরের মানুষকে সহায়তা দেয়ার চেষ্টা করেছি-একান্ত সাক্ষাৎকারে আলতাফুজ্জামান মিতা

করোনা ভাইরাস এই মূহুর্তে বাংলাদেশ তো বটেই, সারা বিশ্বের এক ভয়ংকর আতংক। এর হাত থেকে মানুষ কবে মুক্তি পাবে জানে না কেউই। তবে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় দেশে দেশে, এলাকা ভেদে সরকার, প্রশাসন, বিভিন্ন গোষ্ঠী, ব্যক্তির না না উদ্যোগ রয়েছে। সেই সব উদ্যোগের মধ্য দিয়ে করোনা ভাইরাস জনিত সৃষ্ট পরিস্তিতি মোকাবেলার মাধ্যমে মানুষকে প্রেরণা ও এগিয়ে চলার স্বপ্ন দেখিয়ে যাচ্ছে। দিনাজপুর জেলাও এ ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই। করোনাজনিত বিশেষ পরিস্থিতি সৃষ্টির পর দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ হতে ‘করোনা ভাইরাসজনিত দূর্যোগকালীন ত্রাণ পরিচালনা কমিটি’ গঠণ করা হয় যার আহ্বায়ক হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলতাফুজ্জামান মিতা। তিনি ১৯৮২-৮৩ সালে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। দায়িত্ব পালন করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদকের। রাজনৈতিক কারণে দু-দফা কারা বরণও করেছেন। সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে নতুন দায়িত্ব পেয়ে দল ও কমিটির পক্ষে ব্যাপক ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন। এ প্রসঙ্গে তার সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন সিনিয়র সাংবাদিক আজহারুল আজাদ জুয়েল।

প্রশ্ন: গুরুত্বপুর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। কেমন লাগছে?

আলতাফুজ্জামান মিতা: ভালই। জনগণের সেবা করতে পারছি।

প্রশ্ন: দলের ভিতর থেকে আপনাকে এত বড় দায়িত্ব দেয়ার পেছনে কি কারণ আছে বলে মনে করেন?

আ. মিতা: দল অনেকেই করে, কিন্তু সবাই কাজ করেন না। কেউ করেন, কেউ দেখেন, কেউ নেপথ্য সহায়তা করেন। বর্তমানে দেশে একটা বড় ধরণের দূর্যোগ চলছে। বলা যায় একটা বৈশি^ক মহামারির মধ্যে আছি। দিনাজপুর এর থেকে বাদ  নাই। যেহেতু আমরা জনগণের কল্যাণে রাজনীতি করি, আমাদের একটি রাজনৈতিক দল আছে, রাষ্ট্র ক্ষমতায় আমরাই আছি, ফলে জনগণের প্রতি আমাদের দায়িত্বটাই বেশি। সেই কারণে দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগ জেলার মধ্যে বিশেষ দায়িত্ব পালনের অংশ হিসেবে আমাকে আহ্বায়ক, তৈয়ব চৌধুরীকে যুগ্ম আহ্বায়ক, ফারুকুজ্জামান চৌধুরী মাইকেলকে সদস্য সচিব করে কোবিদ-১৯ দূর্যোগকালীন ত্রাণ কমিটি গঠণ করে দিয়েছেন। ১৫ সদস্যের এই কমিটিতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারন সম্পাদক ছাড়াও দলের গুরত্বপুর্ণ ব্যক্তিবর্গ আছেন। কাজেই এটা আমার একক বিষয় না, দলের এবং আমার কমিটির সম্মিলিত বিষয়।

প্রশ্ন: কাদেরকে ত্রাণ দিলেন?

আ. মিতা: দরিদ্র মানুষ, ক্ষতিগ্রস্থ মানুষ, যাদের দরকার কিন্তু চাইতে পারছেন না, দলের দরিদ্র কর্মী-সমর্থক, নাপিত, মুচি, তাঁতি, দরিদ্র সাংবাদিক, কর্মচারি, পরিচ্ছন্নতা কর্মী, নৃতাত্মিক জাতি-গোষ্ঠীসহ সর্বস্তরের মানুষকে।

প্রশ্ন: কি পরিমাণ ত্রাণ দিলেন?

আ. মিতা: আমরা শুরুতেই দিনাজপুর শহরের ভেতর ৬০০ প্যাকেট ত্রাণ দিয়েছিলাম। এরপর তিন হাজার প্যাকেট, তারপর আবার ৬০০ প্যাকেট। এভাবে কয়েক হাজার প্যাকেট ত্রাণ বিলিয়েছি। প্রথমে সদরের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করলেও পরে অন্যন্যা উপজেলায় দিয়েছি। প্রত্যেক উপজেলায় ২০০ প্যাকেট করে ত্রাণ বিতরণ করে এসেছি। ত্রাণের যে প্যাকেটগুলো আমরা গোটা জেলায় বিতরণ করেছি তার আর্থিক মূল্য ৫শ’ টাকার কম নয়। অনেককে ত্রাণের পরিবর্তে নগদ অর্থ দিয়েছি।

প্রশ্ন: চাঁদা তুলেছেন?

আ. মিতা: প্রায় ১৮ বছর ধরে আওয়ামী লীগ দিনাজপুর জেলার কোথাও কোন চাঁদা তুলছে না। এমন কি বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু বার্ষিকীর মত বড় কর্মসচিও পালন করা হয় দলের নেতা-কর্মীদের অর্থায়নে। বাইরের কারো কাছ থেকে কোন চাঁদা তোলে না জেলা আওয়ামী লীগ। কোবিদ-১৯ দূর্যোগকালীন পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা যে ত্রাণ কিংবা নগদ সহায়তা দিয়েছি, সেটাও নেতা-কর্মীদের অর্থায়নে করেছি। আমাদের ১৫ সদস্যের যে কমিটি আছে সেই কমিটির প্রত্যেকে কম পক্ষে ৫ হাজার করে টাকা দিয়েছে। আহ্বয়ক, যুগ্ম আহ্বায়ক, সদস্য সচিব হিসেবে আমরা দিয়েছি ১০ হাজার করে। ত্রাণ কমিটির সদস্যদের প্রদত্ত অর্থে একাউন্ট খোলার পর দলের নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি যদি কেউ ফান্ডে অর্থায়ন করেন,  তা জনস্বার্থে ত্রাণ কাজে ব্যবহার করব। আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়েছেন অনেকে। সবচেয়ে বড় ডোনার হলেন একজন প্রতিমন্ত্রী, যার নাম প্রকাশ করতে তিনি আগ্রহী নন বলে আমিও তার নাম বলছি না। তিনি প্রায় ১৮ লাখ টাকা আমাদেরকে দিয়েছেন। কয়েকজন সংসদ সদস্য আমাদেরকে ৫০ হাজার করে টাকা দিয়েছেন। এছাড়া আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে দলের অনেক নেতা-কর্মী এবং দল করেন না কিন্তু মানুষের কল্যাণ করতে চান এমন অনেক ব্যক্তি সহযোগিতা করেছেন। সেইসব সহযোগিতা দূর্গত, অভাবী এবং অকস্মাৎ আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে যাওয়া মানুষের মাঝে তুলে দয়োর চেষ্টা করেছি।

প্রশ্ন: ত্রাণ তো প্রশাসনিক এবং ব্যক্তিগতভাবে অনেকে দিয়েছেন। সেক্ষেত্রে সমস্যা ছিল কি না?

আ. মিতা: এক্ষেত্রে সমম্বয়ের চেষ্টা করেছি প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ রেখে। আমরা জেলা প্রশাসনের সাথে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সে উপস্তিত থেকেছি। জেলা পর্যায়ের সরকারি কর্মসুচিগুলোয় উপস্থিত থেকেছি। ধর্ম বিষয়ক সচিব নুরুল ইসলাম দিনাজপুরে ত্রাণ সমম্বয়ের দায়িত্বে ছিলেন। তাঁর সাথে এবং জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলমের সাথে যোগাযোগ রেখে ত্রাণ সংক্রান্ত কাজগুলো সুস্থভাবে সম্পন্নের চেষ্টা করেছি।

প্রশ্ন: ত্রাণের জন্য সব মিলিয়ে কি পরিমাণ অর্থ আপনাদের হাতে এসেছে?

আ. মিতা: হিসাব করিনি। তাই সুনির্দিষ্টভাবে বলা সম্ভব নয়। তাও ২৫ লাখ টাকার কম নয়। আমাদের কাছে অর্থ আসার সাথে সাথে একাউন্টে জমা এবং সিদ্ধান্ত নিয়ে একাউন্ট থেকে টাকা তোলার মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করছি।

প্রশ্ন: যে গতিতে ত্রাণ বিতরণ করেছিলেন এখন সেই গতি দেখছি না।

আ. মিতা: সরকার এখন অবজারভেশন পিরিয়ড পার করছে। আমাদেরকেও অবজারভেশনে থাকতে বলা হয়েছে। লকডাউন উইথড্র হয়েছে, কিন্তু করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। দেশকে রেড, ইয়েলো, গ্রীন জোনে ভাগ করা হবে বলে শুনছি। তাই আমরা অবস্থা দেখে ব্যবস্থা নেয়ার অবস্থায় আছি। আমাদের হাতে এখনো কিছু টাকা আছে। যেমন দেখব সেইভাবে ব্যবস্থা নিব।

প্রশ্ন: ত্রাণ বন্ধ হলে আর তো কোন কাজ আপনাদের থাকবে না?

আ. মিতা: ত্রাণ ছাড়াও আমাদের আরো কিছু কাজ চলছে। যেমন কোবিদ-১৯ পরিস্থিতি সৃষ্টির পর সাধারণ মানুষ জ¦র, সর্দি কিংবা অন্যান্য রোগের চিকিৎসা পাচ্ছেন না। চিকিৎসকগণ ভয়ে চেম্বার বন্ধ রেখেছেন অথবা চেম্বারে যাচ্ছেন না। এমতাবস্থায় আমাদের কমিটির সদস্য ও সাবেক সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল করিমের নেতৃত্বে একটি চিকিৎসা সহায়তা কমিটি করেছি এবং একটি হটলাইন (০১৭১৮০৬৬৮২৪) চালু করেছি। এই হটলাইনে যে কেউ যোগাযোগ করে চিকিৎসা বিষয়ে পরামর্শ নিতে পারার কাজ অব্যাহত আছে। করোনা পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্থ কোন ব্যক্তির আইনী সহায়তার প্রয়োজন হলে আমাদের সদস্য অ্যাডভোকেট হামিদুল ইসলাম ও অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে আইন সহায়তা কমিটি করেছি। এর কাজ অব্যাহত আছে। যে কেউ তাদের সাথে (০১৭১১০০০০০১, ০১৭১২২০৬৫৩২) যোগাযোগ করে সেই সহায়তা নিতে পারেন। এছাড়া করোনা পরিস্থিতি জনিত তথ্য সংগ্রহোর একটা কাজ চলছে যার নেতৃত্বে আছেন আমাদের কমিটির সদস্য ও বিশিষ্ট সাংবাদিক কামরুল হুদা হেলাল। কাজেই ত্রাণের বাইরেও আমাদের কমিটির কাজ চলছে।

প্রশ্ন: দলের সকলের সহযোগিতা পাচ্ছেন কি?

আ. মিতা: আমাদের কমিটির সদস্য আজিজুল ইমাম চৌধুরী, আবুল কালাম আজাদসহ সিনিয়রদের যখন যেটা অনুরোধ করেছি তারা আমাদের কথা শুনেছেন। আমাদের সদস্য মনিরুজ্জামান জুয়েল, সালাউদ্দিন দিলীপ সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করেছেন। ত্রাণ বিতরণের জন্য আমাদেরকে গাড়ি ভাড়াও করতে হয় নাই। কেউ না কেউ গাড়ি নিয়ে এসে সহযোগিতা করেছেন। ভাল উদ্যোগে ভাল সাড়া পাওয়া যায়, সেটা আমি দেখেছি।

প্রশ্ন: আপনাকে ধন্যবাদ।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email