মঙ্গলবার ২২ মে ২০১৮ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সাদুল্যাপুরে ঝুকিপূর্ণ ভবনে পাঠদান, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ভগবানপুর পশ্চিম পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনটি ঝুকিপূর্ণ ঘোষণার পরেও শিক্ষার্থীদের পাঠদান অব্যাহত রেখেছেন শিক্ষকগণ। ফলে যেকোনো মুহূর্তে ঘটতে পারে প্রাণহানির ঘটনা। বিদ্যালয়ের ভবনটি অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাড়িয়ে আছে। পাঁচটি কক্ষই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ভবনের ছাদের বিম, দেয়াল ও পিলারে দেখা দিয়েছে একাধিক ফাটল। ছাদ ধসে পড়ে ইতিমধ্যে অনেক শিক্ষার্থী আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সম্প্রতি বিদ্যালয় ভবনের প্লাস্টার ধসে পড়ে ৩য় শ্রেণির ছাত্রী নাছিমা খাতুনসহ বেশ কিছু শিক্ষার্থী আহত হয়েছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বিদ্যালয় ভবনের সমস্ত প্লাস্টার ধসে পড়েছে। ছাঁদ ও পিলারে ব্যপক ফাটলের সৃষ্টি হয়েছে। বর্ষা মওসুমে সামান্য বৃষ্টি হলেই ছাদ দিয়ে শিক্ষার্থীদের শরীরে পানি পড়ে। এতে বই খাতা ভিজে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা শ্রেণি কক্ষে পড়ালেখা করছে। ঝুঁকি পূর্ণ অবস্থায় বিদ্যালয়ের ৫জন শিক্ষক ১ম থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ১৫০জন ছাত্র/ছাত্রীদের পাঠদান করাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বজলার রহমান জানান -১৯৯২ সালে বিদ্যালয় টি প্রতিষ্ঠিত হয়ে সুনামের সাথে পরিচালিত হচ্ছে। বিদ্যালয় ভবনটি ১৯৯৯ সালে এলজিইডির অর্থায়নে ঠিকাদার নজলার রহমান নির্মাণ করেন। মাত্র ১৯ বছরে বিদ্যালয়ের নির্মিত ভবনটির প্লাস্টার ধসে পড়া শুরু হয়েছে। যদিও ভবনটি ১০০ বছরের স্থায়ীত্বকাল সত্বেও অল্প সময়ের মধ্যে নষ্টের কারণ হিসেবে সহকারী শিক্ষিকা শাহানুরী খান জানান অত্যন্ত নিম্নোমানের নির্মাণ কাজের কারণে ভবনের বেহাল অবস্থা। প্রধান শিক্ষক আরো জানান, শিক্ষা অফিসে অভিযোগের প্রেক্ষিতে সাদুল্যাপুর উপজেলার সহকারী শিক্ষা অফিসার আসাদুজ্জামান মন্ডল গত ৩ এপ্রিল পরিদর্শন করে ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন। এ বিষয়ে সাদুল্যাপুর উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার আসাদুজ্জামান মন্ডল জানান পরিদর্শন রিপোর্ট উদ্ধর্তন কতৃপক্ষের নিকট জমা দিয়েছি। ইউএনও রহিমা খাতুন বলেন নতুন ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দের তালিকার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পরিত্যক্ত ভবনে ক্লাস না করে কর্তৃপক্ষকে বিকল্প ব্যবস্থায় ক্লাস নেয়ার পরামর্শ দিয়েছি । অভিভাবক সিরাজুল ইসলাম সহ অনেকেই পরিত্যক্ত ভবনে ক্লাস না করে দ্রত ভবনটি ভেঙে ফেলে নতুন ভবন নির্মাণের জোর দাবি জানান।