বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্রদের হামলা শুরু

সিরিয়ার পূর্ব গৌতায় বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত সর্বশেষ শহর দৌমায় রাসায়নিক হামলার জন্য বাশার আল আসাদের বাহিনীকে দায়ী করে দেশটির সরকার নিয়ন্ত্রিত বিভিন্ন স্থাপনায় একযোগে আক্রমণ শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স।

সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা জানিয়েছে, সিরিয়ার রাজধানী দামেস্ক এবং পশ্চিমাঞ্চলের শহর হমা ও হোমসে হামলা চালানো হয়েছে।

জাতির উদ্দেশে এক ভাষণে ট্রাম্প বলেন, ‘যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে এ হামলা চালানো হচ্ছে।’

গত সপ্তাহে সিরিয়ার দৌমা এলাকায় রাসায়নিক হামলার পর পশ্চিমা বিশ্বের সঙ্গে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। তখন থেকেই এ হামলার পরিকল্পনা করা হয়। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের সরকার সবসময়ই দুমায় রাসায়নিক হামলার কথা অস্বীকার করে আসছেন। তবে সিরিয়ার মিত্র রাশিয়া এ হামলার বিরোধিতা করে আসছে।

ট্রাম্প বলেন, সিরিয়া যতক্ষণ পর্যন্ত এ অবৈধ রাসায়নিক হামলা বন্ধ না করবে, আমরা তাদের ওপর হামলা চালাতে প্রস্তুত আছি।

এ হামলায় যুক্তরাজ্যের সম্পৃক্ততার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে বলেছেন, ‘হামলা চালানো ছাড়া আর কোনো বিকল্প ছিল না।’

তবে তিনি ক্ষমতা পরিবর্তনের জন্য এ হামলা চালানো হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন।

বিবিসি বলছে, যুক্তরাষ্ট্র ৪টি টর্নেডো জেট বিমান দিয়ে হোমস শহরের কাছে একটি সেনা ঘাঁটিতে হামলা চালিয়েছে। এ ঘাঁটিতে রাসায়নিক অস্ত্রের মজুদ রয়েছে বলে জানিয়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

সিরিয়ায় হামলায় অংশ নেওয়ার কথা জানিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরোঁ। এর আগে তিনি জানিয়েছেন, সিরিয়ার সরকার দৌমায় রাসায়নিক হামলা চালিয়েছে, তার কাছে এটার প্রমাণ আছে।

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়েছে, তাদের বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী এ হামলার জবাব দিচ্ছে। ইতোমধ্যে বেশ কিছু মিসাইল (ক্ষেপণাস্ত্র) ভূপাতিত করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত বলেছেন, মার্কিন নেতৃত্বাধীন এ সামরিক অভিযানের পরিণাম ভাল হবে না। রাশিয়ার প্রেসিডেন্টকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা সহ্য করা হবে না।

আনাতোলি অ্যান্তোনভ নামের ওই দূত টুইটারে বলেছেন, এটি পূর্ব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। আমরা সতর্ক করতে চাই, এ ধরনের হামলা করুন পরিণতি ছাড়া শেষ হবে না।

তিনি আরও বলেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্টকে নিয়ে ঠাট্টা করা অগ্রহণযোগ্য ও অসহ্যনীয়। যার সবচেয়ে বেশি রাসায়নিক অস্ত্র রয়েছে সেই আমেরিকার কোনো নৈতিক অধিকার নেই অন্যান্য দেশকে দোষারোপ করার।