শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সুশৃঙ্খল ও শান্তিপূর্ণ বীরগঞ্জের প্রত্যাশা

বীরগঞ্জের তাজমহল মোড় থেকে শুরু করে বীরগঞ্জ থানার সামনে পর্যন্ত অবৈধভাবে অটো, ভ্যান, রিক্সাসহ অন্যান্য তিন চাকার যানবাহন স্টান্ড করে রাখা হয়,যা পূর্বে কিছুটা সহনীয় পর্যায়ে থাকলেও বর্তমানে তা জনজীবনে পীড়াদায়ক হয়ে উঠেছে।

এসব যানবাহন রাস্তায় যত্রতত্র রাখার কারণে প্রায় সময়ে জ্যাম লেগেই থাকে, যা এই শান্তিপূর্ণ ছোট্ট শহরটির নিরাপদভাবে চলাফেরায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।

তাছাড়া, দূরপাল্লার যানবাহন যেমন ঢাকা, চট্টগ্রাম বা সিলেটগামী বাসগুলো অনেক সময় যাত্রী উঠা বা নামানোর জন্য দীর্ঘক্ষণ মূল রাস্তায় অপেক্ষমান থাকায় সকালে কিছু সময় এবং সন্ধ্যার পরে কিছু সময় জ্যাম প্রকট আকার ধারণ করে।

উল্লেখ্য, গত কয়েকমাস পূর্বে মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করার জন্য রাস্তার আশেপাশে দখলমুক্ত করা জায়গাটুকু এখন যেন স্থায়ী স্টান্ডে পরিণত হয়েছে।

বীরগঞ্জকে সুশৃঙ্খল, শান্তিপূর্ণ ও নিরাপদ রাখতে স্থানীয় প্রশাসন, রাজনীতিবীদ ও সুশীল সমাজকে একসাথে এগিয়ে আসতে হবে। সমস্যা সমাধানে বীরগঞ্জের আপামর জনগণের সহযোগিতা প্রয়োজন হবে। সমস্যা সমাধানে কিছু সুপারিশ তুলে ধরা হলো

১. তিন চাকার যন্ত্রচালিত যানবাহন যেমন, অটো, মাহেন্দ্র বা এই ধরনের যানবাহনসমূহের প্রতি রোডের জন্য মূল শহরের কিছুটা বাইরে স্ট্যান্ড নির্ধারণ করা যেমন, খানসামা রোডের জন্য পোস্ট অফিসের নিকটে, গড়েয়া বা কবিরাজ হাটের জন্য গোলাপগঞ্জ মোড়ের কাছে স্টান্ড নির্ধারণ করা। ২. মহাসড়কের উপরে দূরপাল্লার যানবাহনকে বেশি সময় অপেক্ষার সুযোগ না দেয়া। ৩. তাজমহল মোড় থেকে থানা মোড় পর্যন্ত মহাসড়কে যথেষ্ট ট্রাফিক/কমিউনিটি পুলিশ মোতায়েন রাখা। ৪. উল্লেখিত জায়গার মধ্যে হর্ণের ডেসিবেল এবিং গতি নির্ধারণ করা ও যথাযথভাবে মনিটিরিং করা।

সর্বোপরি, বীরগঞ্জে ফিসারী মোড় থেকে হাটখোলা পর্যন্ত মহাসড়কে মানুষ এবং যানবাহন যেন নিরাপদ ও সুশৃঙ্খলভাবে চলাচল করতে পারে এবং করোনাকালীন সময়ে যেন মানুষ সামাজিক দূরত্ব ও সুরক্ষিতভাবে চলাফেরার মাধ্যমে বীরগঞ্জকে নিরাপদ রাখে- এতটুকুই মনে-প্রাণে চাওয়া।

লেখক-মোঃ শাহরিয়ার আরাফাত সিহাব

২য় বর্ষ, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email