শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সেন্ট ফিলিপস্ এর অধ্যক্ষ ব্রাদার কাজল মাদার তেরেজা এবং শের-ই-বাংলা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড-২০১৯ পেলেন

মোঃ নুর ইসলাম, দিনাজপুর ॥ শিক্ষা বিস্তারে বিশেষ অবদানের জন্য ব্রাদার কাজল লিনুস কস্তা, সি.এস.সি-কে মাদার তেরেজা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড ২০১৯ ও শের ই বাংলা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড ২০১৯  প্রদান করা হয়েছে।

আঞ্চলিক ভাষা ও বাঙ্গালী সংস্কৃতি পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত গত ২ আগস্ট (শুক্রবার) কেন্দ্রীয় কচি-কাঁচার মেলা মিলনায়তন, সেগুনবাগিচা, ঢাকায় গুণীজন সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে সফল ও শিক্ষা বিস্তারে বিশেষ অবদানের জন্য ব্রাদার কাজল লিনুস কস্তা সিএসসি-কে মাদার তেরেজা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড ২০১৯ প্রদান করা হয়। এই গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সর্ম্পকিত স্থায়ী কমিটির সাবেক সভাপতি ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের  প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু এমপি।

এ ছাড়াও আলোকিত বাংলার মুখ ফাউন্ডেশন কর্তৃক আয়োজিত গত ৫ জুলাই (শুক্রবার) ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট রমনা, ঢাকা সেমিনার হলে অপরাধ মুক্ত আদর্শ জাতি গঠনে শিক্ষাবিদ ও সচেতন নাগরিকদের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা সভা ও গুণীজন সম্মাননা অনুষ্ঠানে সফল ও শিক্ষা বিস্তারে বিশেষ অবদানের জন্য ব্রাদার কাজল লিনুস কস্তা সিএসসি-কে শের-ই-বাংলা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড ২০১৯ প্রদান করা হয়।

ব্রাদার কাজল লিনুস কস্তা, সি.এস.সি বর্তমানে দিনাজপুরের সুনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সেন্ট ফিলিপস্ হাই স্কুল এন্ড কলেজে অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি অত্র প্রতিষ্ঠানে যোগ দানের পর প্রতিষ্ঠানটি খেলা-ধুলাসহ বিভিন্ন কো-কারিকুলামে অংশ গ্রহণ করে জাতীয় পর্যায় পুরস্কার গ্রহণ করে। প্রতিষ্ঠানটি বাস্কেট বল খেলায় জাতীয় পর্যায়ে রানার্স আপ হওয়ায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অত্র প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

তাঁর এই সাফল্যের জন্য মহান সৃষ্টিকর্তার নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ব্রাদার কাজল লিনুস কস্তা। তিনি বলেন, এটা আমার একার প্রাপ্তি নয়, সেন্ট ফিলিপস্ হাই স্কুল এন্ড কলেজের সাথে যারা জড়িত তাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফসল। এই স্কুলের সাথে যারা জড়িত তাঁদের সকলকে আমি আন্তরিক ধন্যবাদ, কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করছি। বিশেষ ভাবে আমার পূর্বে যারা এই বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তাঁদেরকেও এই মাহেন্দ্রক্ষণে বিশেষ কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করছি।  বিশ্বাস করি ভবিষ্যতেও এই বিদ্যাপীঠ দেশ ও জাতির সেবায় অবদান রাখবে।