রবিবার ৭ জুন ২০২০ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরের চেকআপ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে হামলার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেওয়ায় প্রাণ নাশের হুমকি

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা ॥ নীলফামারীর  সৈয়দপুর শহরের প্রাচীণ ও ঐতিহ্যবাহী ডায়াগনস্টিক সেন্টার ‘চেকআপ’ এ হামলার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেওয়ায় প্রাণ নাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে যে কোন সময় প্রতিপক্ষ দূর্বৃত্তদের প্রাণঘাতি হামলায় জীবন নাশের আশংকায় পড়েছে প্রতিষ্ঠানটির কর্মচারী ও মালিক পক্ষ। তারা এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে লিখিত আবেদন করেছেন চেকআপ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ল্যাব টেকনিশিয়ান মোঃ মোবারক হোসেন।

সৈয়দপুর থানায় দেওয়া অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ৫ নভেম্বর দুপুর আনুমানিক ১২ টার দিকে শহরের সৈয়দপুর প্লাজা মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত চেকআপ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় এক রোগীকে কর্মচারীরা তাদের সেন্টারে পরীক্ষ-নিরীক্ষার জন্য আহ্বান জানায়। কিন্তু রোগীটি চেকআপ এ না গিয়ে পাশ^বর্তী এসআর প্লাজার দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত ডিজিটাল হেলথ্ কেয়ার এন্ড ডায়াগনস্টি সেন্টারে যায়। ওই রোগীকে ডাকার সময় ডিজিটাল হেলথ্ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের স্বত্বাধিকারী মোঃ মুকুল দেখতে পায় এবং অকথ্য ভাষায় উস্কানিমূলক কথাবার্তা ও গালিগালাজ করতে থাকে। এতে চেকআপের কর্মচারীরা তাৎক্ষনিক তাদের প্রতিষ্ঠানের ভিতরে চলে যায়। কিন্তু এর কিছুক্ষণ পরই ডিজিটাল হেলথ্ কেয়ারের মালিক মোঃ মুকুল (৩৫) ওই ঘটনার জের ধরে মোঃ আনিসুল (২০) ও মোঃ সাজ্জাদ (৩০) সহ অজ্ঞাতনামা আরও ৫/৬ জনকে নিয়ে চেকআপ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে প্রবেশ করে অতর্কিত হামলা করে ল্যাব টেকনিশিয়ান মোবারক হোসেনকে এলোপাথারীভাবে কিল ঘুষি ও লাথি মারতে থাকে। এসময় চেকআপ’র কর্মচারী মোঃ আবু সালেহ, মোছাঃ মালেকা বেগম এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা তাদেরকেও মারপিট করে। এমতাবস্থায় চিৎকার শুনে আশপাশের দোকানের লোকজন ছুটে আসলে হামলাকারীরা চলে যায়। তবে যাওয়ার সময় হুমকি দিয়ে যায় যে, এ বিষয় নিয়ে কোথাও কোন অভিযোগ দিলে বা বাড়াবাড়ি করলে ভবিষ্যতে মোবারককে রাস্তাঘাটে একাকী ও রাতের অন্ধকারে সুযোগমত পাইলে খুন জখম করবে। পরে এ বিষয়ে উপরোল্লেখিত ব্যক্তিদের অভিযুক্ত করে প্লাজা ব্যবসায়ী সমিতি ও প্লাজা কর্তৃপক্ষ এবং থানায় লিখিত অভিযোগ দেয় মোবারক। এ কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে মোঃ মুকুল সহ অন্যান্যরা বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন চেকআপ’র লোকজন।

এ ব্যাপারে ডিজিটাল হেলথ্ কেয়ার এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক মোঃ মুকুলে সাথে কথা হলে তিনি জানান, রোগিটি যে ডাক্তার রেফার্ড করেছেন তিনি নিয়মিত আমাদের প্রতিষ্ঠানে রোগী পাঠান। তাই ওই রোগী আমাদের এখানে আসার পথে চেকআপ এর কর্মচারী মোবারক জোর করে তার প্রতিষ্ঠানে নেওয়ার চেষ্টা করে। যা আমার চোখে পড়লে আমি তাকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে আমার সাথে চরম দূর্ব্যবহার করে। একজন কর্মচারী হয়ে অন্য প্রতিষ্ঠানের মালিকের সাথে যে আচরণ করেছে সে তা মেনে নেওয়া যায়না। তাই বিষয়টি তার প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বপ্রাপ্ত স্বত্বাধিকারীকে জানাতে যাওয়ার পথে মোবারক ও তার সহকর্মীরা বাধা দিলে আমার সাথে থাকা লোকজনের সাথে বাক-বিতন্ডা ও এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। আমি বাধা দিয়েও সে মুহুর্তে তাদের প্রতিহত করতে পারিনি। তবে দ্রুতই আমরা সেখান থেকে চলে আসি এবং এ ব্যাপারে প্লাজা ব্যবসায়ী সমিতি ও প্লাজা কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। তারা সময় নিয়ে বসে এ ব্যাপারে সুরাহার আশ^াস দিয়েছেন। অথচ তার আগেই মোবারক থানায় অভিযোগ দিয়েছে। যা সম্পূর্ণভাবে মিথ্যে ও ষড়যন্ত্রমূলক এবং প্লাজা ব্যবসায়ী, প্লাজা কর্তৃপক্ষ ও আমাকে হেয় করতেই করা হয়েছে বলেই আমি মনে করি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email