শনিবার ৩০ মে ২০২০ ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সোনার হাতে সোনার কাঁকন কে কার অলংকার

সোনা বা স্বর্ণ একটি লোভনীয় বস্তু। সোনার ব্যবহার কবে থেকে  আরম্ভ তা সঠিক করে বলা যায় না। ৫০০০ হাজার বছর পূর্বে মিশরের পিরামিডে ফেরাউনের কফিন বাক্সে সোনার কারুকার্য খচিত নকশা ও অলংকার পাওয়া যায়, পবিত্র কাবা গৃহের দরজা ও গিলাবে সোনা রয়েছে। পাঞ্জাবের স্বর্ণ মন্দিরের দেয়ালে স্বর্ণের কারুকার্য রছেছে। এছাড়াও রাজা বাদশার তরবারী, সিংহাসন, সাজ পোশাকে স্বর্ণের ব্যবহার পাওয়া যায়।

নারীর প্রধান ভূষণ সোনা। সোনা নির্মিত কাঁকন গলার হার, চুড়ি, নূপুর, ব্রেসলেট ও কমরের বিছা ইত্যাদি অঙ্গে বাধন করলে একজন নারীকে অপরূপ সুন্দর দেখায়। নারীরা অঙ্গে সোনা ধারণ করলে যেমন নারীর অঙ্গ রূপ শতগুনে বৃদ্ধি পায় তেমনিভাবে সোনার জন্ম সার্থক হয়। একে অন্যের সম্পূরক।

সোনায় নির্মিত সোমনাথের মন্দির মাহমুদ লদি লুট করার জন্য আফগান স্থানের গজনী থেকে ভারতবর্ষে এসে ১৭ বার আক্রমণ করেছিলেন। একটি রাষ্ট্রের কেন্দ্রিয় ব্যাংকে সংরক্ষিত সোনার সেই দেশে টাকার মান নির্ণয় করা হয়। ঐতিহাসিক ময়ূর সিংহাসন, স¤্রাট শাহ্ জাহানের রাজমুকুট আর হযরত ইউসুফ (আ:) এর পিতার রাজদরবারে ত্রাণ বিতরণের বাটি, মেসিডনিয়ার স¤্রাট আলেকজান্ডারের সিন্দুকের চাবি আর টিপু সুলতানের তরবারির হাতল সবই সোনা দ্বারা নির্মিত।

সোনা মানুষের আর্থিক নিরাপত্তা দেয়। গচ্ছিত সোনা বিপদের বন্ধুর মত। আপদে বিপদে সোনার মত বন্ধু এই জগতে নেই। একটি দেশকে অন্য দেশ আক্রমণ করলে মূল লক্ষ্য থাকে সে দেশের রতœ ভান্ডারের সোনা। ইরাক থেকে কয়েক শত টন সোনা লুন্ঠন করে নিয়ে যায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

রবীন্দ্র নজরুল সহ বিভিন্ন লেখকদের লেখায় সোনার নাম বার বার ব্যবহার হয়েছে। অটোম্যান সা¤্রাজ্যের স¤্রাট সুলেইমান সুলতান এর সা¤্রাজ্যের পুত্র জন্মগ্রহণ করলে সেনা বাহিনীদের মধ্যে খুশিতে সোনা বিতরণ করা হতো, ইতিহাসে পাওয়া যায়।

লেখক-বেলাল উদ্দিন

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email