রবিবার ২৯ মার্চ ২০২০ ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সোনা রানী দেশ বিদেশে পরিচিতি পেয়েছেন নকশি রানী হিসেবে

এমদাদুল হক মিলন, দিনাজপুর ॥ সোনা রানী রায়ের মোবাইল নাম্বার ০১৭৮৪-০১৮৫৯১ নাম্বারে ফোন দিতেই যদি বল ভাল বাসনি, যদি বল কাছে ডাকনি, বলব কেউ তোমায়, ভালবাসি তোমায়, আমি ভাল বাসি তোমায় গানের রিং টন বেজে উঠল । তার পর হ্যাল কে বলছেন, পরিচয় দিয়ে জানতে চাইলাম সোনা দিদি ? প্রশ্ন কি দরকার? বললাম আমি আপনার সঙ্গে দেখা করতে চাই, আপনাকে নিয়ে লিখতে চাই, সোনা রানী রায় সাফ উত্তর আমি চাইনা, লিখে কি হবে ? বললাম পুরস্কার পাবেন, সবাই চিনবে । আবারো সোনা রানী রায়ের সাফ উত্তর, পেটত ভাত নাই,বাড়ীত থাকিবার ঘর নাই, বড় বড় পুরস্কার দিয়ে কি হবে। তার পর অনেক অনুরোধের পর বললেন, আমি নীলফামারীতে বোনের বাড়ীতে আছি, বিকালে ফিরব, তখন আসেন। আমিও নাছড় বান্দা, বিকালে আবার ফোন করলাম, ফোন ধরে বললেন আসেন বাসায় আছি, তবে নাস্তা সঙ্গে নিয়ে আসবেন। আমাদের গ্রামত নাস্তা পাওয়া যায়না।

বিকেলে বাংলার কবি জসিম উদ্দিনের নকশি কাঁথার মাঠ গল্পের মত দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার বুক চিরে বয়ে যাওয়া চিরি নদীর ধার দিয়ে বাংলাদেশে প্রথম তৈরি রাবার ড্যাম। তারপর পিচ ঢালা রাস্তার পর বাঁধ দিয়ে কাঁচা রাস্তা পেরিয়ে আবার পিচ ঢালা রাস্তা, আবার বাঁধের উপর দিয়ে কাঁচা রাস্তা পেরিয়ে কাঁকড়া নদীর উপর ব্রীজ ও রাবার ড্যাম পেরিয়ে একটি প্রাইমারি স্কুলের আঙ্গীনায়। এরপর ক্ষেতের চিকন আইলের দিয়ে ৮ নং সাইতারা ইউনিয়নের পশ্চিম সাইতারা গ্রামের বানিয়া পাড়ায় সোনা রানী রায়ের বাড়ীর খোলানে গিয়ে হাজির হলাম। বাড়ীর সামনে বাঁশের তৈরি মাচাং এ বসে কয়েকজন নারী নকশি কাঁথা তৈরি করছেন। সামনে সোনা রানী রায়ের বাড়ী দেখেই মনে পড়ে গেল বাংলার কবি জসিম উদ্দিনের আরেক লেখা কবিতা, আসমানী কবিতার কথা। দিনে রোদ, রাতে জ্যোস্না, বর্ষায় বৃর্ষ্টি,শীতে কুয়াশা সবই পড়ে সোনা রানী রায়ের ঘরে। ভেন্না পাতার নাহলেও আধা ভাঙ্গা মাটির ঘরে খড়ের ছাউনি দিয়ে আকাশ দেখা যাচ্ছে।

বিকেলে সূর্য ডুবছে ডুবছে ভাব, বাঁশের মাচায় বসে সোনা রানী রায়সহ ৫/৬ জন নারী বসে নকর্শি কাঁথা সেলাই করছেন। সোনা দিদি কে খোজ করতেই, হেসে বললেন আমি সোনা দিদি, নাস্তা এনেছেন ? শুরু হল কথা, তার কথায় ভেসে উঠল “কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য্যের কবিতার একটি লাইন ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়, পূর্ণিমা চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি”।

কেমন আছেন জিজ্ঞাসা করতেই সোনা রানী রায়ের মুখ দিয়ে যেন খৈ ফুটতে শুরু করল, ভাঙ্গা বাড়ী ,ঠিকমত ঘর নাই, পেটে ভাত নাই, গ্রামে ঢুকার রাস্তা নাই কেমন আছি বুঝতেই তো পারছেন, নকর্শি কাঁথা সেলাই করি কিন্তু নিজের গাঁয়ে পরার ভাগ্য হয়না। শ্বশুর মনোরঞ্জন মারা গেলে সংসারে অভাব অনটন নেমে আসে। চিন্তা করতে থাকি কি করা যায়। জানতে পারি পাশের পাড়ায় কেয়ার বাংলাদেশের সহযোগিতায় অনেকে নকশী কাঁথা তৈরি করছে। মা চারু বালার কাছ থেকে নিখুঁতভাবে এ নকশী কাঁথা সেলাই শিখেছি বাবার বাড়িতেই। তাই আমিও তাতে নাম লেখাই। প্রথম নকশী কাঁথাটি তৈরি করে ৭০০ টাকা পাই। নকশি কাঁথার কারুকাজ নজরে পড়ে কেয়ার বাংলাদেশের রংপুরের বিভাগীয় কর্মকর্তা মিস্টার মিশাইলের। আর ওই নকশী কাঁথাটি কে তৈরি করেছে তা খুঁজতে থাকে কেয়ারের কর্মকর্তরা এরপরে কেয়ার লিভিং বুলু নামে একটি প্রকল্প চালু করে। এতে এলাকার তাপসী রানী রায়, টুম্পা রানী রায়, রত্না রায়, পবিত্রা রায়, পারুল রায়, শাপলা রায়,মামুনী রায়, তাপসী রায়সহ ৩৫ জন নারী এ নকশী কাঁথা তৈরিতে কাজ করেন। নিজে নকশী কাঁথা সেলাই করলে ৭ হাজার টাকা এবং ওই ৩৫ জনের দেখভাল করার জন্য আরও ৪ হাজার টাকা পাই।

আর্থিক সুবিধা পেলে নকশী কাঁথাকে একটি শিল্প হিসেবে গড়ে তুলব। এ কাজে এ অঞ্চলের নারীদের উদ্বুদ্ধ করে ধারাবাহিকতা বজায় রাখা গেলে আরও নারীর কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। একটি নকশী কাঁথা বর্তমানে দেশে ৩ হাজার টাকা থেকে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়।

অভাব অনটনের সংসারে নকশী কাঁথা অভাব দুর করতে না পারলেও এনে দিয়েছে বিরল সম্মান। আমার তৈরি নকশী কাঁথা দেশ ছাড়িয়ে বহির্বিশ্বেও রপ্তানি হচ্ছে। বাংলাদেশের মধ্যে সেরা অনন্যা-২০১৯ নির্বাচিত হয়েছি। ৩৫ জন নারীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছি। কিন্তু এই সম্মাননা দিয়ে কি হবে , এগুলো রাখার জায়গাও তো নাই। সরকার যদি সহযোগীতা করত তাহলে দেশে বিদেশে আরো বাজার তৈরি হত।

সোনা রানী রায় দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার ৮ নং সাইতাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম সাইতাড়া (বানিয়াপাড়া) গ্রামের ননী গোপালের স্ত্রী। সোনা রানী ২০১৫ সালে কেয়ারের বিশেষ সম্মাননা স্মারক পুরস্কার লাভ করেন। তার তৈরি নকশী কাঁথা আমেরিকার নিউ ম্যাক্সিকো, নিউইয়র্ক, লসএঞ্জেলস্সহ বিভিন্ন স্থানে হস্তশিল্পের মেলায় প্রদর্শি হয়েছে। তিনি কেয়ার বাংলাদেশের রংপুরের বিভাগীয় কর্মকর্তা মিস্টার মিশাইলের সহযোগিতায় আমেরিকা ও স্পেন ঘুরে এসেছেন। তার স্বামী একজন বাইসাইকেল ম্যাকানিক। তার ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে। দুই ছেলে ঢাকায় গামের্ন্ট চাকুরি করেন। সর্বশেষ জাপানে একটি হস্ত শিল্প মেলায় অংশ নেয়ার কথা ছিল সোনা রানী রায়ের। কিন্তু কোরনা ভাইরাস তাতে বাঁধ সাধে। এবার আর জাপানে যাওয়া হবেনা সোনা রানী রায়ের।

সোনা রানী রায় কে দেশ বিদেশের মানুষ চেনেন নকশি রানী হিসেবে। নকশি রানী বলেন, জন্ম, ১৯৭১ সালে, যুদ্ধের সময় বয়স ৩ মাস, সেই থেকে যুদ্ধ করে আসছি। জীবণ যুদ্ধে এখনো জয়ী হতে পারিনি। এই এলাকায় ঁেখাজ করলে অন্তত ১০০ নারী পাওয়া যাবে যারা নকশি কাঁথা তৈরি করেন। সরকার যদি নজরদারি করে তাহলে নকশি কাঁথা তৈরি ও বিদেশেবাজার জাত করে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব।

আমার একার কোন কৃতিত্ব নেই, আমি ও আমার দলের সবাই মিলে কাজ করেছি বলে সফলতা এসেছে। যতগুলো নকশি কাঁতা তৈরি করেছি তার মধ্যে ‘হোয়াইট অন হোয়াইট ময়ূর’ নামে নকশি কাঁথাটি উল্লেখ যোগ্য। এই কাঁথাটির জন্য স্পেনের লোয়েভে ক্রাফট প্রাইজ পেয়েছি। বড় পুরস্কার পেয়েছি। সবকিছু মিশায়েল ভাই জানেন। এর আগে সোনা রানী যুক্তরাষ্ট্রে সান্তাফে আন্তর্জাতিক ফোক আর্ট মার্কেট মেলায় অংশ নিয়েছিলেন।

গল্পের এক পর্যায বলেন, তখন ৫ শ্রেণীতে পড়নে তিনি, বিয়ে হয়ে যায়, বড় জোর বয়স হবে ১২/ ১৩ বছর। মা জোর করেই নকশি কাঁথা সেলাই শিখিয়েছিলেন। তখন তো বুঝিনি যে নকশি কাঁথা সেলাই করে এতো দেশ বিদেশে এতো সম্মান পাওয়া যায়। অভাব অনটন যেমন আমার পিছু ছাড়েনি, তেমনি এখন সম্মান আমার পিছু ছাড়েনা। আপনাদের মত মানুষরা আমার এই ভাঙ্গা বাড়ীতে পদধুলি দিয়ে থাকেন।

অল্প শিক্ষিক সোনা রানী রায় নকশি কাঁথা তৈরির সুবাদে কেয়ার বাংলাদেশের একটি প্রজেক্টে চাকুরি করেন। কিন্তু বলতে পারেননা কি পদে চাকুরি করেন তিনি।

সূর্য ডুবে যাচ্ছে দেখে তাড়া দিলেন, দাদা বেলা তো ডুবে যাচ্ছে বাড়ী যাবেনানা। তার তাড়ায় বাড়ী ফেরার তাড়া শুরু হল। জিজ্ঞাসা করলাম আপনি কি কবি জসিম উদ্দিনের নকশি কাঁথার মাঠ গল্প পড়েছেন, এই গল্পের নায়ক- নাইকার নাম কি ? বললেন, জানিনা, কোন দিন এই গল্প পড়িনি, শুনিওনি।

নকশি কাঁথা তৈরিতে স্বামী ও পরিবারে সহযোগার কথা বলতে গিয়ে বলেন, ছেলে মেয়েরা বিরক্ত হলেও স্বামী সব সময় সহযোগীতা করেছেন। আগে বাড়ীতে যখন বিদ্যুৎ ছিলনা তখন স্বামী ননী গোপাল সংসারের অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় জিসিন নিতে না পারলেও কেরসিন নিয়ে আসতে ঠিক। রাত জেগে স্বামীর ঘরে হারিকেন ও কুপি জালিয়ে নকশি কাঁথা সেলাই করাতাম । অনেক সময় স্বামীর ঘুম হতনা তবুও বিরক্ত হতনা।এখন স্বামী আমার সম্মান দেখে গর্ববোধ করেন।

নায়ক রুপাই ও নাইকা সাজুর প্রেমের সেই করুণ কাহিনী না শুনলেও হয়তো কোন দিন শুনতেন, আমার মত হয়তো কেউ তাকে সেই গল্প শুনাতেন বা শুনাবেন, কিন্তু তিনি যা বললেন তা হল, বিমানে আকাশে উড়বেন, আমেরিকা স্পেন যাবেন, এটা তিনি কল্পনাতেও আনেননি। স্বপনও দেখেননি। কিন্তু এখন তিনি স্বপ্ন দেখেন, বিশ্বে নকশি কাঁথার ব্যাপক বাজার তৈরি করার। তিনি কেয়ারর মত অন্যান্য সংগঠন ও সরকার এই নকশি কাঁথা তৈরির নিপুন কারিগরদের সহযোগীতায় এগিয়ে আসবেন, বাংলার এই নকশি কাঁথাকে বিশ্ব দরবারে আরো ব্যাপক ভাবে পরিচিত করবেন, বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করবে বাংলাদেশ এমনই প্রত্যাশা তার। তিনি কেয়ার বাংলাদেশের মিশায়েলসহ সকল কর্মকর্তা এবং তার দলের প্রতি কৃকজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, নকশি কাঁথার শিল্পিরা মাথা উচু করে বাঁচতে পারলেই তার জীবণ স্বার্থক হবে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email