সোমবার ১৪ অক্টোবর ২০১৯ ২৯শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আবারও গ্রেপ্তার মডার্ন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধায় এক স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করেছে ২০০২ সালে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী তৃষা হত্যা মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি মেহেদী হাসান মডার্ন ও তার এক সহযোগী। মডার্নকে গ্রেপ্তার করা হলেও সহযোগী সাব্বির পলাতক রয়েছে।

স্কুল ছাত্রীটির মায়ের অভিযোগ, ‘গত ১১ই সেপ্টেম্বর তার মেয়ে গাইবান্ধা শহরের এক শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফেরার পথে, মডার্ন ও তার সহযোগী সাব্বির হোসেন বাপ্পী জোর করে তাকে মটরসাইকেলে তুলে শহরের অদূরে বোয়ালীতে এক মোবাইল সার্ভিসিং এর দোকানে নিয়ে যায়। সেখানে তার ওপরে যৌন নির্যাতন চালায় মডার্ন। পরে, সে বাড়ি ফিরে না আসায় থানায় জিডি করে পরিবার। পরদিন, তাকে রংপুর শহর থেকে উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায়, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হলে পুলিশ গতকাল শুক্রবার ঢাকা থেকে মডার্নকে গ্রেপ্তার করে। শনিবার দুপুরের পর তাকে গাইবান্ধা থানায় নিয়ে আসা হয়।

গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ময়নুল হক সাংবাদিকদের জানান, ‘তৃষা হত্যার দায়ে আরও দুই সহযোগীসহ ১৩ বছর জেল খাটে মডার্ন। ষষ্ঠ শ্রেণীর নির্যাতিত শিশুটি মডার্ন’র হুমকির মুখে পুলিশের কাছে সব সত্যি বলেনি। পরে, ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে তাকে ধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা দেয়। তার মেডিক্যাল পরীক্ষা করা হয়েছে। জামা কাপড়ের ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। অপর আসামি সাব্বির এখনও পলাতক।

উল্লেখ্য, ২০০২ সালের ১৭ই জুলাই গাইবান্ধা মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী সাদিয়া সুলতানা তৃষা স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে মডার্নসহ তিন বখাটে তাকে ধাওয়া করে। এ সময়, পুকুরে পড়ে তৃষা মারা যায়। এ ঘটনায় তারা বিচারিক আদালতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত হলেও পরে আবেদনের প্রেক্ষিতে আপিল বিভাগ তাদের ১৪ বছরের সশ্রম কারদণ্ড দেন।