শুক্রবার ১০ জুলাই ২০২০ ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

স্বপ্নদ্রষ্টা সুফিয়া কামাল

“এনেছিল সাথে করে মৃত্যহীন প্রান

মরনে তাহাই তুমি করে গেলে দান”

দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের মৃত্যুতে কবিগুরু এই উক্তিটি করেছিলেন। আমি মনে করি কবি সুফিয়া কামালের বেলাতেও এই কথাটি সমভাবে প্রযোজ্য ।

সুফিয়া কামাল একটা মন্ত্রের নাম। একটা সফলতার নাম। অসাম্প্রদায়িক চেতনার নাম।

আমরা অবগাহন করছি অহরহ সেই চেতনার নির্যাসে। বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন যখন তুঙ্গে ১৯১১ সনের ২০ শে জুন কোন এক শুভক্ষনে জন্ম নিয়েছিলেন এই মহিয়সী নারী। রক্তেই বোধ হয় ছিল তার স্বাধীনতার নেশা। সে সময় মেয়েদের স্কুলে যাওয়া বারণ ছিল, তাই পর্দার অন্তরালে ছিল তার বাল্যশিক্ষা । ছোট বেলাতেই উনার ভাবনা ছিল পাইলট হওয়া। অবশ্য তিনিই সেই সময়  বাংলাদেশে প্রথম মহিলা যিনি পে¬নে উঠেছিলেন। পাইলট তিনি হননি, তার চেয়েও বেশি কিছু হয়েছেন। তার ভাবনার ডানা গুলি দেশের মেয়েদের কাছে মেলে দিয়েছেন যা এখনও বিদ্যমান। আমরা সেই ডানাতেই ভর করে চলেছি। চলেছি মুক্তির পথে।

তিনি সাহসিকা। ১৪ বৎসর বয়সে নববধু বরিশালে অশ্বিনী কুমার দত্তের ভ্রাতৃষ্পুত্রী সাবিত্রী দেবীর প্রতিষ্ঠিত মাতৃমঙ্গল কমিটি ও শিশুসদনের একমাত্র মুসলমান মহিলা সদস্য হিসাবে কাজ করেছেন এবং সমস্ত শহর ঘুরে দেখেছেন। অবশ্য বোরখা পরে। চরকায় সুতো কেটে খাদি পোষাক তৈরী ও সওগাত পত্রিকায় নিজের ছবি ছাপতে দেওয়া – এ সবই ছিল তখন দু:সাহসিক ব্যাপার। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আমন্ত্রনে স্বামী নেহাল হোসেন কে নিয়ে ঠাকুর বাড়িতে নাটক দেখা, ইত্যাদি সব লোক চক্ষুর ভ্রুকুটিকে তুড়ি মেরে দেখিয়ে দেওয়া “আমরা নারী আমরাই পারি”।

রবীন্দ্রনাথ ও কবি নজরুল ইসলামের আর্শীবাদ তিনি পেয়েছিলেন। জীবনের পথ চলাটাই শুরু হয়েছিল সমাজের কল্যান, মানুষের কল্যান সর্বোপরি মহিলাদের কল্যানে। তাই চলার পথ যতই কন্টকাকীর্ন হোক সুফিয়া কামাল থেমে যাননি। থেমে যাননি সমাজের রক্ত চক্ষুর কাছে। কবি সত্তা ছিল তার জন্মগত। বেগম রোকেয়া একসময় বলেছিলেন “মেট্রিক পরীক্ষায় না বসলেও ও তো কবি হয়ে গেছে”। বেগম রোকেয়ার আর্শীবাদের হাত ছিল উনার মাথার উপর। বাংলাদেশে হাতে গোনা কজন মহিলা কবিদের মধ্যে উনিই শ্রেষ্ঠ। আমরা সুফিয়া কামালের কবিতা পরেই বড় হয়েছি।

নারী মুক্তি আন্দোলন তথা সামাজিক যেকোন আন্দোলনের সঙ্গে ক্রমান্বয়ে জড়িয়ে পড়েছিলেন তিনি মনের তাগিদে। কোলকাতার ১৯৪৬ সনের দাঙ্গায় বস্তি বাসীদের পাশে দাঁড়ান। দেশ বিভাগের পর বিভিন্ন মহিলা সংগঠন তৈরী করেন। ১৯৬১ সনের ছায়ানট তৈরী এবং ১৯৭০ সালের মহিলা পরিষদ যা

সুবর্নজয়ন্তীর দোড় গোড়ায় পৌছেছে। যে কোন মহিলা সমিতি বা প্রতিষ্ঠানে সৃষ্টির ক্ষেত্রে অগ্রজার ভূমিকা রেখেছেন । কেননা নিয়মানুগ সংগঠন সমাজ এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে বড় ভুমিকা পালন করে। 

কবি নজরুলের বহ্নিশিখা সুফিয়া কামালের হাতে সঠিক ভাবে প্রজ্জ্বলিত হয়েছে দেশের সংকটে, বিপদে। মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলিতে তিনি নিজে এবং তাঁর সুযোগ্য কন্যারা সরাসরি কাজ করে গেছেন। আয়ুবী শাষনের শেষ পর্যায়ে ১৪৪ ধারার মধ্যেও তিনি মিছিলের সামনে দাঁড়িয়েছেন। মহিলা পরিষদ মহিলাদের সংগঠন হলেও জাতীয় দুর্দিনে দেশ মার্তৃকার সেবা এবং সাধারন মানুষ তথা মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে দাড়াঁনোই তাদের ব্রত হয়েছিল। এ ভাবেই সুফিয়া কামাল সকলকে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। কোন এক সময় তিনি বেগম সুফিয়া কামাল থেকে খালাম্মা বা জননী হয়ে গেছেন। বঙ্গবন্ধুও কোন কোন সময় তার সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ করতেন। রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মেলন পরিষদ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ এসবের মধ্য থেকে উনি বুঝাতে চেয়েছেন, আমরা মহিলারা যা ভাল বা মঙ্গল বয়ে আনে দেশ ও দশের, তার সাথে আছি। উনি কোন রাজনৈতিক দলের সদস্য হননি কিন্তু প্রতিটা রাজনৈতিক সংকটে সংগ্রামে সুফিয়া কামাল অগ্রনী ভূমিকা পালন করেছেন।

দীর্ঘ জীবন পেয়েছেন তিনি। নানা টানাপোড়েন চলেছে তাঁর জীবনে। এক মনীষির কথা মনে পড়ে গেল, যিনি বলতেন “চলার নামই জীবন, থেমে যাওয়াই মৃত্যু”। সুফিয়া আমৃত্যু এটা মেনেছেন। নারীর ক্ষমতায়ন কিছুটা হলেও দেখেছেন, তবে সবদিক থেকে হতাশাও হয়েছেন বারবার। এমনও কথা বলেছেন“ প্রধানমন্ত্রী আর বিরোধী দলীয় নেত্রী নারী হলেই নারী অধিকার আদায় হয়না। নারী অধিকার আদায় করতে হলে পরিপূর্ন গনতন্ত্র চাই”। সে লক্ষ্যে পরিপূর্ন গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লড়াই এখনো চলছে। দেশে প্রবৃদ্ধির হার বেড়েছে। শিক্ষিতের হারও বেড়েছে। তবুও কেন যেন সুফিয়া কামালের শেষের সেই উক্তি “আজকের প্রজন্মের মাঝে কোন স্বপ্ন নেই”। তিনি বলেছিলেন “একুশ শতক আমি যেন না দেখি” আরও বলেছেন “একুশ শতকের মানুষ যদি মানব ধর্ম পালন না করে তা হলে একুশ শতকের মূল্য নেই”। সেকথা মেনে বর্তমান প্রজন্মের কাছে আমাদের আহ্বান – একটি অসাম্প্রদায়িক মানবিক সমাজ গড়ে তোলার। তাই আমাদেরও বর্তমান কাজ তরুন-তরুনীদের খুঁজে বের করা। যারা সত্যি সত্যি সুফিয়া কামালের আশা পুরণ করবে। পদের অহংকার, শিক্ষার অহংকার, অর্থের অহংকার এই সব মোহমুক্ত মানুষ তৈরী করতে হবে। সেই জন্য পাঠ্যসূচীর সকল পর্যায়ে সঠিক পরিবর্তন, পারিবারিক শিক্ষা অপরিহার্য। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ শুধু না, যখন আমাদের সারা দেশ বেগম রোকেয়া, সুফিয়া কামাল,প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার, ইলা মিত্র, হেনা দাস কে জানবে, সমান ভাবে মর্যাদা দিতে পারবে এবং মননে তাঁদের লালন করবে, তখনই আমরা একটা আলোকিত সমাজ গড়ে তুলতে পারব। আজকের এই দিনে আমাদের পথ প্রর্দশক, নির্লোভ সুফিয়া কামালকে জানাই অন্তরের অন্তস্থল থেকে বিনীত শ্রদ্ধা ও অভিবাদন। আর চাই তাঁর মত প্রানশক্তিতে ভরপুর হওয়ার জন্য আর্শীবাদ।

লেখক-রত্না মিত্র

অর্থ- সম্পাদক

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, দিনাজপুর

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email