বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

স্বপ্ন পূরণ অধরাই থেকে গেল ফাতেমার

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : ফাতেমার ইচ্ছে ছিল বড় ভাইয়ের মতো আইন বিষয়ে পড়াশোনা করে বিচারক হওয়ার। কিন্তু সেই স্বপ্ন পূরণ অধরাই থেকে গেল। মেয়ের মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না মা।

হৃদয়বিদারক ঘটনাটি ঘটেছে গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার দক্ষিণ দিঘলকান্দি গ্রামে। ফাতেমার মরদেহ দেখে কেউ মেনে নিতে পারছে না, এটি হত্যা না আত্মহত্যা। নিহত ফাতেমা উপজেলার দিঘলকান্দি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদের মেয়ে।

নিহতের বড় ভাই হামিদুর রহমান জানান, পার্শ্ববর্তী দক্ষিণ দিঘলকান্দি গ্রামের সুরাহকের ছেলে আব্দুল মমিনের সঙ্গে মোবাইলে পরিচয়ের পর প্রেম হয় ফাতেমার। পরে তাদের বিয়ে হয়। দেড় মাসের সংসার জীবনে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন শুরু করে স্বামী, শাশুড়িসহ পরিবারের অনেকে। ঘটনার একদিন আগে মঙ্গলবার শ্বশুরবাড়ির নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে ফাতেমা তার মাকে ফোন করলে বড় বোন ছালমা ওই বাড়িতে যান। বড় বোনের সামনে ফাতেমার স্বামী তাকে মারধর করেন।

তিনি আরো জানান, এ দৃশ্য দেখে বোন তাড়াতাড়ি বাড়িতে চলে এসে পরিবারের সবাইকে জানান। পরে সালিশের জন্য সময় ঠিক করলেও পরদিন মেয়েকে স্বামীর শয়নকক্ষের আড়ার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো মরদেহ দেখতে পান বাবা।

সাঘাটা থানার ওসি বেলাল হোসেন জানান, বুধবার ফাতেমার মরদেহ উদ্ধার করে গাইবান্ধা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর ও দাফন করা হয়। নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না।