শুক্রবার ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ২০শে মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

স্বয়ংক্রিয়ভাবে সরাসরি ব্যাংকে যাবে পেনশনের টাকা

ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফারের (ইএফটি) মাধ্যমে পেনশনভোগীদের মাসিক পেনশন স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিজ ব্যাংক হিসাবে স্থানান্তর কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এই কার্যক্রমের আওতায় পেনশন চলে যাবে সরাসরি ব্যাংকে। আর টাকা জমা হলেই পেনশনভোগীকে তা জানিয়ে দেওয়া হবে মোবাইল ফোনে এসএমএস এর মাধ্যমে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে তিনি এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনের দিনে এ প্রকল্পের আওতায় ৫৭ জন পেনশনভোগী তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা পৌঁছে যাওয়ার এসএমএস পান।

অর্থমন্ত্রী এসময় বলেন, জাতীয় পেনশন স্কেলের রূপরেখা আগামী বাজেটে দেওয়া হবে। যাতে করে দেশের সকল চাকুরীজীবীদের পেনশন কার্যক্রমের আওতায় আনা যায়।

তিনি বলেন, ‘দেশের পেনশন ব্যবস্থার সর্বশেষ সংস্কার হয়েছিল ১৯৮৩ সালে। আজ যে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা যুগান্তকারী। এখন থেকে পেনশন ওঠাতে ছোটাছুটি করতে হবে না।’

দেশের সব মানুষের জন্য পেনশনের ব্যবস্থা করতে আগামী বাজেটে একটি রূপরেখা দেওয়ার পরিকল্পনার কথা জানান অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এখন ফিলসফি হল, যত সিটিজেনস আছে, সবাইকে একটা সুযোগ করে দিতে হবে। ইট ইজ ইউনিভার্সাল পেনশন, যেটা আমরা মোর অর লেস কমিটেড, ওভার আ পিরিয়ড অব টাইম হয়ত সেটা হবে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নে মুহিত বলেন, এখনই হয়ত সেই সার্বজনীন পেনশন কাঠামো চালু করা যাবে না, তবে রূপরেখাটা তিনি বাজেটে দিয়ে যেতে চান।

অর্থসচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী জানান, প্রাথমিকভাবে ৫৭ জন পেনশনভোগীর জন্য এ পাইলট প্রকল্প শুরু হয়েছে। পেনশনের জন্য এজি অফিস বা ব্যাংক- কোথাও যেতে হবে না তাদের। যখন ইচ্ছা টাকা তুলতে পারবেন।

দেশে পেনশনভোগীর সংখ্যা বর্তমানে ৬ লাখ ৫৭ হাজার ২১২ জন জানিয়ে অর্থসচিব বলেন, একটি পেনশন অফিস করারে জন্য জনপ্রশাসনে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। ধীরে ধীরে সব কাজই অনলাইনে নিয়ে আসা হচ্ছে।

অর্থ সচিব মুসলিম চৌধুরী বলেন, ‘ইউনিভার্সাল পেনশন সিস্টেমের জন্য ইনস্টিটিউশন তৈরি করতে হবে। ফরমাল ও ইনফরমাল পেনশনের জন্য রেগুলেটরি অথরিটি লাগবে। স্যার এবার বাজেটে এটার রূপরেখা দেবেন। সেটার বেসিসে সরকার কাজ করবে।’

মহা হিসাব নিরীক্ষক মাসুদ আহমেদ, সাবেক অর্থসচিব জাকির আহমেদসহ অবসরপ্রাপ্ত কয়েকজন আমলা উপস্থিত ছিলেন এ অনুষ্ঠানে।

%d bloggers like this: