বুধবার ১২ অগাস্ট ২০২০ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

“স্যার আইজ পিঁয়াজ চাহেন না, তরকারী আর কাঁচা মরিচ দিয়ায় ভাত খান”

একরাম তালুকদার, দিনাজপুর ॥ “স্যার আইজ পিঁয়াজ চাহেন না, কাঁচা মরিচ আর তরকারী দিয়ায় ভাত খান। পিঁয়াজের যে দাম! এই দামে পিঁয়াজ কিনিয়া ভাতের সঙ্গে আগের মতো পিঁয়াজ দিলে হামার লাভের ধন টিয়ায় খাবে। হোটেল করিয়া লাভ তো দুরের কথা-খালী হাতেই বাড়ী যাবা হবে”।

দিনাজপুরের বিরল উপজেলার আজিমপুর গ্রামের ব্যস্ততম বাজার ভদ্রবাজারে একটি হোটেলে বসে মঙ্গলবার দুপুরের ভাত খাওয়ার সময় এক গ্রাহক ভাতের সাথে সালাদ হিসেবে পেঁয়াজ চাইতেই এমন কথা জানালেন হোটেল মালিক দৈক্ষ্যনাথ রায়।

দিনাজপুরসহ এই অঞ্চলের হোটেলগুলোতে ভাত খাওয়ার সময় গ্রাহকদের ভাত ও তরকারীর সাথে সালাদ হিসেবে পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ আর শশা দিয়ে থাকেন খাওয়ার হোটেলের লোকজন। কিন্তু পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় গত কয়েকদিন থেকে সালাত হিসেবে কাঁচা মরিচ আর শশা দিলেও পেঁয়াজ দিচ্ছেন না অধিকাংশ হোটেলগুলো। এই অবস্থায় এক গ্রাহক গতকাল সোমবার হোটেলে দুপুরের খাবার খেতে বসে সালাত হিসেবে আগের মতোই পেঁয়াজ চাইলে ভাত ও তরকারীর সাথে শুধু কাঁচা মরিচ দিয়ে এভাবেই পেঁয়াজ দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় সালাত হিসেবে পেঁয়াজ দেয়া বন্ধের পাশাপাশি পেঁয়াজের ব্যবহারও কমিয়ে দিয়েছেন হোটেল মালিকরা। আজিমপুর গ্রামের ভদ্রবাজারের “জোড়ালক্ষèী” নামে আরেক হোটেলের মালিক রতন চন্দ্র রায় জানান, আগে তিনি হোটেলের জন্য প্রতিদিন ৫ কেজি পেঁয়াজ কিনতেন। এখন কিনছেন ২ কেজি।

দিনাজপুর শহরের মুখরোচক রান্না হিসেবে ব্যাপক পরিচিত “মুন্সী হোটেল” এর মালিক মনু মিয়া জানালেন, আগে তার হোটেলে প্রতিদিন পেঁয়াজ প্রয়োজন হতো ২০ কেজি। কিন্তু দাম বেড়ে যাওয়ায় এখন ৫ কেজি পেঁয়াজ দিয়েই রান্না সারছেন। স্বাদ কিছুটা কম হলেও উপায় নেই। পেঁয়াজের যে দাম, তাতে আগের মতো পেঁয়াজ দিলে কুলিয়ে উঠতে পারা যাবেনা। আর সালাত হিসেবে পেঁয়াজ দেয়া তো ইতিমধ্যেই বন্ধ করে দিয়েছেন। পেঁয়াজের দাম না কমে আসা পর্যন্ত এই অবস্থায় হোটেল চালাতে হবে বলে জানান তিনি।

দিনাজপুর শহরের ৪০টি হোটেলসহ জেলার ১৩টি উপজেলার ছোট-বড় মিলিয়ে কয়েক হাজার হোটেলের একই অবস্থা। অধিকাংশ হোটেলেই পেঁয়াজের ব্যবহার কমিয়ে দিয়েছেন হোটেল মালিকরা। পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ার পর গত কয়েকদিন আগে দাম কিছুটা কমে আসলেও আবার দাম বেড়ে যাওয়ায় এই পন্থা অবলম্বন করেন তারা।

এদিকে সারাদেশে ন্যায় দিনাজপুরেও পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা লেগেই আছে। গত সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে ভারত সরকার বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানী বন্ধ করে দেয়ার পর বাজারে বাড়তে শুরু করে পেঁয়াজের দাম। প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২৫০টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়। কিন্তু পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রনে সরকার বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানীসহ বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করলে ১৫০ টাকায় নেমে আসে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম। এরপর গত দু’দিন থেকে হঠাৎ আবার বাড়তে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম। গতকাল সোমবার দিনাজপুর শহরের বাহাদুরবাজারে প্রকারভেদে প্রতি কেজি পেয়াজ বিক্রি হয় ২২০ থেকে ২৪০ টাকায়।

খুচরা বিক্রেতারা জানায়, পাইকাড় ও আড়তদারদের কাছে বেশী দামে পেঁয়াজ কেনায় তাদের বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। দিনাজপুর শহরের বাহাদুরবাজারের পাইকারী পেঁয়াজ ব্যবসায়ী সম্ভুনাথ দাস জানান, তিনি বগুড়া থেকে মায়ানমারের পেঁয়াজ কিনছেন ১৬০ টাকা কেজি দরে। এরপর পরিবহন খরচ, লেবার খরচসহ সবকিছু দিয়ে এবং কিছু লাভ রেখে প্রতিকেজি পেঁয়াজ তাকে বিক্রি করতে হচ্ছে ২১০ টাকা দরে। বাজারে নতুন পেঁয়াজ আসার পর সরবরাহ বাড়লেই দাম স্বাভাবিক পর্যায়ে আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email