রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১লা পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

হত্যাকারীর শাস্তির দাবীতে বীরগঞ্জে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন ও সড়ক অবোরধ কর্মসূচি পালন

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ কক্সবাজার উখিয়া উপজেলার মরিচা এলাকায় কর্মরত এনজিও কর্মী দিনাজপুরের বীরগঞ্জের মাজাহারুল ইসলাম মিলনকে (৩৫) ছুরিকাঘাতে নির্মমভাবে হত্যাকারী দুর্বৃত্ত আলাউদ্দিনসহ তার সহযোগিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধ কর্মসুচি পালন করেছে বীরগঞ্জ এলাকাবাসী।

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ শনিবার বীরগঞ্জ উপজেলার বিজয় চত্বর এলাকায় দুপুর ১২টা হতে ১টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নিহততের বাবা মো. আব্দুস সাত্তার, ছোট ভাইয়ের স্ত্রী উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়েশা আক্তার বৃষ্টি, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরিয়াস সাঈদ সরকার, মোহনপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক জিয়াউর রহমান জিয়া, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মো. আব্দুল হামিদ প্রমুখ। পরে থানা সম্মুখ সড়ক কিছুক্ষণ অবরোধ করে রাখেন এলাকাবাসী।

মানববন্ধনে বক্তারা প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী’র দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন, এই নির্মম হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের যেন দ্রুত সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি নিশ্চিত করা হয় এবং দ্রুত ঘটনার রহস্য উদঘাটন করা হয়। পাশাপাশি এধরনের ঘটনা আর যেন না ঘটে সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষন করে।

উল্লেখ্য, নিহত এনজিও কর্মী মাজাহারুল ইসলাম মিলন দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ১০ নং মোহনপুর ইউনিয়নের কৃষ্ণনগর গ্রামের চৌধুরী হাট বাজারে মো. আব্দুস সাত্তারের পুত্র। মাজাহারুল ইসলাম মিলন প্রায় আড়াই বছর ধরে কক্সবাজার উখিয়া উপজেলার মরিচা এলাকায় এনজিও কর্মী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। গত ১৯ সেপ্টেম্বর রাত আনুমানিক সাড়ে ৭ টায় কক্সবাজার উখিয়া উপজেলার মরিচা এলাকায় দুর্বৃত্ত কর্তৃক ছুরিকাঘাতের শিকার হন মিলন। ছুরিকাঘাত অবস্থায় সেখানকার কয়েকজন তার রক্তাক্ত অবস্থার কাতরানো ভিডিও ধারণ করেন এবং সেই ভিডিও বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল।

এদিকে হত্যাকান্ডের ব্যাপারে কক্সবাজার জেলার উখিয়া থানার ওসি মো. আবুল মনসুর মুঠোফোনে জানান, ঘটনার পর অভিযান চালিয়ে জড়িত আলাউদ্দিন নামে একজনকে গ্রেফতার করেছি। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে খুব শিঘ্রই ঘটনার রহস্য উদঘাটন হবে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে ২২ সেপ্টেম্বর রোববার লাশ বীরগঞ্জের নিজ বাড়ীতে পৌছাবে। এরপর জানাজ শেষে পারিবারিক গোরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন করা হবে।