রবিবার ২২ জুলাই ২০১৮ ৭ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হাবিপ্রবি ছাত্রদের দুই গ্রুপের সংর্ঘষে ৩০ জন ছাত্র আহত

দিনাজপুর প্রতিনিধি॥ দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ( হাবিপ্রবি)সমাজ বিজ্ঞান অনুষদে ক্লাস চলা কালে প্রথম বর্ষের দুই ছাত্রের মাঝে ঝগড়াকে কেন্দ্র করে দুই হলের ছাত্রদের মধ্যে সংর্ঘষে ৩০ জন ছাত্র আহত হয়েছে। এ সময় জিয়া ও তাজ উদ্দিন হলে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়েছে।

আহতদের মধ্যে ১২ জনকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে অর্পণ নামে এক ছাত্রকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

জানা যায়,গত রবিবার সকালে সমাজ বিজ্ঞান অনুষদে ক্লাস চলা কালে প্রথম বর্ষের জনৈক দুই ছাত্রের মাঝে ঝগড়া হয়। বিকেলে ছাত্রদের একটি গ্রুপ মিমাংসার কথা বলে ডেকে এনে একজন ছাত্রকে মারধর করে। এ নিয়ে জিয়া হল ও তাজ উদ্দিন হলের ছাত্রদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। রাত ৯ টার দিকে ছাত্রলীগের একটি গ্রুপের নেতৃত্বে  তাজ উদ্দিন হলের এক দল ছাত্র জিয়া হলে গিয়ে ছাত্রদের উপর হামলা চালায ও ব্যাপক ভাংচুর করে চলে যায়। এই ঘটনায় ছাত্রলীগের অপর গ্রুপের নেতৃত্বে জিয়া হলের ছাত্রদের একটি দল তাজ উদ্দীন হলে ছাত্রদের উপর হামলাসহ ভাংচুর করে। ফলে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন ছাত্র আহত হয়। এদের মধ্যে ১২ জনকে রাতেই দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে রাত ১১ টার দিকে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ার্ড মাষ্টার মাদুস রানা জানায়,গত রবিবার রাত ১১ টার দিকে ১২ হাবিপ্রবির ১২ জন ছাত্রকে ভর্তি করা হয়। গতকাল অনেকে চলে গেছে। বর্তমানে নাজমুল, দিপ্ত,শিখর,সাকির, কল্লোল ও সৌরফ চিকিৎসাধীন রয়েছে। পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

হাবিপ্রবি‘র  প্রক্টর প্রফেসর ড. খালিদ হোসেন ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, চাত্রদের দুই গ্রুপকে শান্ত করা হয়েছে। সোমবার সকালে জরুরী ভাবে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঘটনা তদন্তে তদন্ত কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ ব্যাপারে দিনাজপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেদওয়ানুর রহিম জানায়, ক্যাম্পাসে পুলিশ অবস্থান করছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।