বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হাবিপ্রবি প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের অবস্থান কর্মসূচী স্থগিত

হাবিপ্রবি প্রতিনিধি  ॥ প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম সহ-সাধারন সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে জানানো হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের আদর্শ ও আওয়ামী মুল্যবোধে বিশ্বাসী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সংগঠন প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম অত্যন্ত উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছে যে, সাম্প্রতিক ও সাম্প্রতিকপূর্ব সময়ে কিছু যৌন নির্যাতনের ঘটনা বিশ্ববিদ্যালয় তথা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের মর্যাদা ম্লান করে দিচ্ছে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীকেও প্রতিনিয়ত অনৈতিকভাবে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। যা সত্যিই দু:খজনক। উল্লেখিত বিষয়ে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম ধারাবাহিকভাবে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়গুলোকে কর্নপাত না করে বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি সংকটের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। এহেন পরিস্থিতিতে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও সামাজিক অবস্থা সমুন্নত রেখে প্রায় মাসব্যাপী প্রতিদিন ঘন্টাব্যাপী অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। মহান জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য নির্বাচন পর্যন্ত ধারাবাহিক অবস্থান কর্মসূচী স্থগিত করা হলো। নির্বাচনের পর আবারও ধারাবাহিক কর্মসূচী চলামন থাকবে। অন্যদিকে, অন্যায়ভাবে ২ জন শিক্ষককে তদন্ত কমিটি ছাড়াই বরখাস্ত আদেশ অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার এবং শিক্ষক লাঞ্ছনা ও শ্লীলতাহানির ঘটনার প্রতিবাদ ও বেতন বৈষম্য নিরসনে আন্দোলনরত ৬১ জন শিক্ষকের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম সকল একাডেমিক কার্যক্রম (ক্লাস-পরীক্ষা ও অন্যান্য দাপ্তরিক কাজ) থেকে বিরত থাকবে।

প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের চলমান আন্দোলনের দাবিসমূহ:

১। যৌন নির্যাতনকারী ড. মো. রমজান আলীকে তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী স্থায়ী বহিস্কারসহ দীপক কুমারের স্থায়ী শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহন করে বিশ্ববিদ্যালয়কে কলংকমুক্ত করতে হবে।

২। সিলেকশন কমিটির সুপারিশ থাকা সত্ত্বেও নিয়মবহির্ভূতভাবে ড. ফেরদৌস মেহবুবের রহিতকৃত প্রমোশন দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে।

৩। একপেশে তদন্ত কমিটির আংশিক সুপারিশ বাস্তবায়ন করার অপচেষ্টা বন্ধ ও সকল তদন্ত কমিটির সুপারিশ বাতিলপূর্বক নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে সুষ্ঠু বিচার করা।

৪। ইতোপূর্বে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম কর্র্র্তৃক দায়েরকৃত অভিযোগসমূহ নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা।

৫। ৩১ অক্টোবর উপাচার্য মহোদয়ের সাথে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের আলোচনা চলাকালীন সভা ভুন্ডুল কারী প্রফেসর ড. ফাহিমা খানমের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে এবং এ ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক সকল শোকজ প্রত্যাহার করতে হবে।

৬। যৌননির্যাতনকারীকে বাঁচানোর অপচেষ্টায় জড়িত চুক্তিভিত্তিক রেজিষ্ট্রারের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে।