শনিবার ১৬ নভেম্বর ২০১৯ ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

হাবিপ্রবি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম শিক্ষক-কর্মকর্তা, ছাত্র এবং কর্মচারীদের নিরাপত্তার দাবীতে মানববন্ধন করেছে

রফিকুল ইসলাম ফুলাল : দিনাজপুর হাবিপ্রবিতে শিক্ষক-কর্মকর্তা, ছাত্র এবং কর্মচারীদের নিরাপত্তার দাবীতে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম শাখা।

বুধবার দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের সভাপতি প্রফেসর ড. বলরাম রায় এর সভাপত্তিত্বে ও কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মো: ফেরদৌস মেহেবুব এর সঞ্চালণায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সহ:সভাপতি প্রফেসর সাইফুর রহমান, প্রফেসর ড. এটিএম শফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ডা. মো: হারুনুর রশিদ, সহ:সম্পাদক মো: আব্দুর রশিদ পলাশ প্রমূখ।

সভাপতির বক্তব্যে প্রফেসর ড. বলরাম রায় বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ধরনের অনাকাক্ষিত ঘটনা ঘটতেছে। যার কোন সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার না হওয়ায় দিন দিন এর মাত্রা বেড়েই চলেছে। আমরা চাই উপাচার্য মহোদয় আপনি বিভিন্ন ঘটনার সুষ্টু তদন্ত সাক্ষেপ বিচারের আওতায় নিয়ে আসবেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনবেন। সাথে তিনি, শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ডা. মো: হারুনুর রশিদ লিখিত বক্তব্যে বলেন, প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করছে যে, দীর্ঘদিন যাবৎ ক্যাম্পাসে বিভিন্ন সময়ে সংঘটিত অপরাধ সমুহের স্ষ্ঠুু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে বিচার না হওয়ায় বর্তমানে মারামারি হানাহানি সহ বিভিন্ন অপরাধ মুলক কর্মকান্ডের মাত্রা বেড়েই চলেছে। ফলে ক্যাম্পাসে আইন শৃঙ্খলার চরম অবনতিসহ একটি ভীতিকর ও অনিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, যা শিক্ষার সুঠু পরিবেশ বিঘ্নিত করছে। জাতির কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। ক্যাম্পাসে ছাত্রদের মধ্যে প্রায়শঃ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ পরিলক্ষিত হচ্ছে।

সম্প্রতি ক্যাম্পাসে কিছু বিপথগামী ছাত্র দেশীয় অস্ত্রসহ পরস্পরের মধ্যে হানাহনিতে অনেকেই মারাত্বক আহত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ সকল ধারাবাহিক ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিরব ভূমিকা শিক্ষক সমাজকে হতাশ করেছে।

তিনি আরও বলেন, ক্যাম্পাসে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষেও সময় দিনাজপুর কোতয়ালী থানার পুলিশ ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালের প্রশাসন ভিতওে প্রবেশ করতে দেয়নি। এটা জাতির কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।

এহেন পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সৌহার্দপূর্ন সহাবস্থান বজায় রেখে ক্যাম্পাসে শুশৃঙ্খল পরিবেশ বজায় রাখার নিমিত্তে প্রত্যেকটি ঘটনার স্ষ্ঠুু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত বিচারের ব্যবস্থা গ্রহন করা প্রয়োজন বলে মনে করেন প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম।

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নিরাপত্তার বিষয়ে প্রক্টর প্রফেসর ড. মো: খালিদ হোসেন বলেন, গত ২৮ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের অনাকাক্ষিত ঘটনার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত সাক্ষেপ দোষীদের বিচারের আওতায় আনা হবে এবং ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা জরদারের ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।