রবিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হাসপাতালে অসুস্থ শিক্ষার্থীদের পাশে হাবিপ্রবি’র উপাচার্য

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ক্যান্টিনের খাবার খেয়ে দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) হাসপাতালে ভর্তি অসুস্থ্য শিক্ষার্থীদের পাশে হাবিপ্রবি”র উপাচার্য প্রফেসর ড. মুঃ আবুল কাসেম।

এরই মধ্যে অনেকে সুস্থ হয়ে ক্যাম্পাসে ফিরে আসলেও এখনো ৭ জন দিনাজপুর জেনারেল হাঁসপাতালে ভর্তি আছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা থেকে ফিরেই শুক্রবার সকালে অসুস্থ শিক্ষার্থীদের দেখতে দিনাজপুর সদর হাসপাতালে যান হাবিপ্রবি’র উপাচার্য প্রফেসর ড. মুঃ আবুল কাসেম।
তিনি তাদের সাথে কিছু সময় কাটান ও চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন এবং প্রয়োজনে সকল ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

এ সময় তার সাথে ছিলেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ড. ভপ্রন্দ্র কুমার বিশ্বাস, প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ খালেদ হোসেন এবং ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ তারিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এ ব্যাপারে হাবিপ্রবি”র ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ তারিকুল ইসলাম জানান, শিক্ষার্থীরা খাবার খেয়ে অসুস্থ্য হওয়ার ব্যাপারে আগামী রবিবার হাবিপ্রবি কর্তৃপক্ষ বসবেন। সেদিন বসেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এসব অস্বাস্থ্যকর বাটির খাবারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন। তারা বলেন প্রায় দিন এখন এই ধরনের ঘটনা ঘটতেছে, তাই এসব বিষয়ে ক্যাম্পাস সংলগ্ন এলাকায় যারা বাটির ব্যবসা করেন তাদেরকে আইনের আওতায় না আনলে এসব বৃদ্ধি পাবে।

উল্লেখ্য, ক্যান্টিনের খাবার খেয়ে দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) জিয়া হলের ৪০ জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে। গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিয়া হলে জনৈক তরিকুল ক্যান্টিনের বাটিতে সরবরাহ ব্রয়লার মুরগি, আলু ভর্তা ও খিচুড়ি খায় প্রায় ৬০ জন শিক্ষার্থী। খাওয়ার পর সকলের বমি ও পেট ব্যাথার মতো সমস্যা দেখা দেয়। কেউ কেউ জ্বরে আক্রান্ত হন। এ ঘটনার পর ৪০ শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা গ্রহণ করেন। গত বুধবার দিনভর চিকিৎসা করলেও অনেকের অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ১৮জন শিক্ষার্থীকে দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।