বৃহস্পতিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির সংখ্যা কমছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, দেশের সাধারণ মানুষ ডেঙ্গু সম্পর্কে সচেতন হওয়ার ফলে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমে এসেছে।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল ও সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) পরিদর্শন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সে সময় ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে তিনি এ কথা জানান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত মোট ২৪ ঘণ্টার ডেঙ্গু পরিস্থিতির পরিসংখ্যান তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, এ সময়ে সারাদেশে হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা এক হাজার ২০০ জন। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় (রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) ছিল দুই হাজার ৯৩ জন।

তিনি আরো বলেন বলেন, বর্তমানে সারা দেশে হাসপাতালগুলোতে ৭ হাজার ৫৪৭ জন ডেঙ্গু রোগী রয়েছেন। আগের দিন সোমবার এ সংখ্যা ছিল আট হাজার ছয়জন। এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে নিশ্চিত মৃত্যুর সংখ্যা ৪০ জন বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

এ সময় স্বাস্থ্যখাতে কর্মরত ডাক্তার, নার্সসহ সবাই পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ বাদ দিয়ে রোগীদের সেবা করায় স্বাস্থ্যখাতে সবার প্রশংসা করেন জাহিদ মালেক।

দেশের হাসপাতালগুলোতে রোগী সংখ্যা কমে যাওয়া প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় যেভাবে হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির সংখ্যা কমে যাচ্ছে তার বড় কৃতিত্ব হচ্ছে দেশের সাধারণ মানুষের ডেঙ্গু সচেতনতা বাড়া। পাশাপাশি স্বাস্থ্যখাতে কর্মরত ডাক্তার, নার্সসহ সবাই পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দের কথা বাদ দিয়ে যেভাবে রোগীদের সেবা করছেন তার জন্য স্বাস্থ্যখাতের সবাই প্রশংসার দাবি রাখে। 

ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় (১২ আগস্ট সকাল ৮টা থেকে ১৩ আগস্ট সকাল ৮টা পর্যন্ত) সারাদেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১২শ জন, যা একদিন আগের ২৪ ঘণ্টায় ছিল ২ হাজার ৯৩ জন। বর্তমানে সারাদেশের হাসপাতালে মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৭ হাজার ৫শ ৪৭ জন, যা আগেরদিন ছিল ৮ হাজার ৬ জন। এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে নিশ্চিত মৃত্যুর সংখ্যা ৪০ জন। 

মঙ্গলবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রথমে কুর্মিটোলা হাসপাতালে পরিদর্শনে যান। হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জামিল আহমেদকে নিয়ে ডেঙ্গু সেলে থাকা বিভিন্ন রোগীর সঙ্গে কথা বলেন, চিকিৎসার খোঁজ-খবর নেন ও রোগীদের সাহস দেন।