মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০১৯ ৫ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হিলি স্থলবন্দরের পাইকারি বাজারে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে দুই টাকা

হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের শুল্ক নিয়ে জটিলতার জের ধরে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে চাল আমদানি কমিয়ে দিয়েছেন স্থানীয় আমদানি কারকেরা। এদিকে দেশের বাজারে ধানের দাম খানিকটা বেড়েছে।

এর প্রভাবে দুই সপ্তাহের ব্যবধানে হিলির পাইকারি বাজারে আমদানি করা চালের দাম কেজিতে বেড়েছে দেড় থেকে দুই টাকা । ব্যবসায়ীরা বলছেন হিলি স্থলবন্দর ব্যবসায়ী সূত্র জানায় চাল আমদানি শুল্কহার বাড়ার কারণে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে চাল আমদানি অনেক কমেছে। গত তিনদিনে ভারত থেকে হিলি স্থলবন্দর  চাল বোঝায় ৫৬ ট্রাক হিলি বন্দররে প্রবেশ করেছে এতে একহাজার ৪৫০ টন চাল আমদানি হয়েছে।হিলি বাজারের চাল বিক্রেতা অনুপ বসাক জানান দুই সপ্তাহের ব্যবধানে হিলি বাজারে প্রকারভেদে প্রতি কেজি চালের দাম দেড় থেকে দুই টাকা করে বেড়েছে। বাজারে দেশীয় র্স্বণী জাতের চাল ৩২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দুই সপ্তাহ আগে এই চাল কেজিতে ৩০ টাকায় বিক্রি  হয়েছিল। রত্না জাতের চাল (আটাশ ) আগে ৩২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও ৩৪ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্চে। আর মিনিকেট জাতের চাল ৪৬ টাকা দরে বিক্রি হলেও এখন ৪৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

তিনি আরও জানান আগে চেয়ে বাজারে ধানের দাম বাড়ার কারণে চালের দাম বারছে বলে মিল মালিকরা তাদের জারিয়েছেন। এদিকে বন্দর দিয়ে র্স্বণা বা রত্না জাতের  চাল আমদানি না হওয়ায় বাজারে কোনও ভারতীয় চালের সরবরাহ নেই। এ ছাড়া ভারতীয় চালের চাহিদাও তেমন একটা নেই। বন্দর দিয়ে কিছু শম্পা কাটারি ও নাজির শাইল জাতের  চাল আমদানি হলেও সেসব চালের খুব একটা চাহিদা নেই।

হিলির হরিহরপুরের ধান ব্যবসায়ী মশপিকুর রহমান জানান কয়েকদিনের ব্যবধানে ধানের দাম মণ প্রতি ১শ টাকার মতো বেড়েছে । র্বতমানে র্স্বণা-৫ জাতের ধান ৭শ ৭০ টাকা থেকে ৭শ ৭৫ টাকা মণে কেনাবেচা হচ্ছে। আর মোটা জাতের ধান ৭ম টাকা থেকে ৭শ টাকা করে কমে বিক্রি হয়েছিল। দেশের বিভিন্ন স্থানের মিলাররা ধান কেনার কারণে এর চাহিদা বেড়েছে । এতে এর দামও খানিকটা বেড়েছে।

হিলি স্থলবন্দরের চাল ধাদানি কারক মামুনুর রশীদ জানান, দেশীয় কৃষকদের উৎপাদিত ধান ও চালের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে সরকার ভারত থেকে চাল আমদানি নিরুৎসাহিত করার জন্য আমদানি শুল্ক তিন ভাগ থেকে বাড়িয়ে ২৮ ভাগ করেছে।

এতে আমদানি কারকেরা চাল আমদানি বন্ধ রেখেছেন। র্বতমানে বন্দর র্স্বণা বা রত্না জাতের কোনও চাল আমদানি হয় না চাল আমদানি একেবারে বন্ধ বলা য়ায। তবে মাঝে মধ্যে বন্দর দিয়ে সম্পা কাটারি বা নাজিরশাইল জাতের চাল আমদানি হয় যা ৪৮ টাকা থেকে সাড়ে ৪৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এক সপ্তাহ আগেও একইদামে এসব চাল বিক্রি হয়েছে।

হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ সোহরার হোসেন বলেন চাল আমদানিতে শুল্ক কম থাকায় গত বছর বন্দর দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ৫০-৬০ ট্রাক করে চাল আমদানি হতো। কিন্ত চলতি অর্থবছরে শুল্কহার বাড়ানোর কারণে বন্দর দিয়ে চাল আমদানি একেবারে বন্ধই হয়ে গেছে। তবে গত তিন দিন ধরে বন্দর দিয়ে চালের আমদানি একটু বেড়েছে।