বুধবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হিলি স্থলবন্দরে পেঁয়াজের দাম কমেছে

আব্দুল আজিজ, হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের পাইকারি বাজারে ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম একদিনের ব্যবধানে কেজিতে সর্বোচ্চ ৬ টাকা কমেছে। পণ্যটির দাম কমানোর পেছনে ভারতের বাজারে সরবরাহ বৃদ্ধির জের ধরে আমদানি বেড়ে যাওয়াকে চিহ্নিত করেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ী ও আমদানিকারকরা। আগামী দিনগুলোয় স্থানীয় বাজারে পেঁয়াজের দামে বিদ্যমান নিম্নমুখী প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে বলেও মনে করছেন তারা।

হিলি স্থলবন্দরের পাইকারি আড়তগুলো ঘুরে ভারত থেকে নাসিক, ইন্দোর ও বেলারি জাতের পেঁয়াজ বেশি বিক্রি হতে দেখা যায়। গতকাল স্থানীয় আড়তগুলোয় ভারত থেকে আমদানি করা এসব জাতের পেঁয়াজ পাইকারি পর্যায়ে ( ট্রাকসেল) মানভেদে কেজিপ্রতি ২৪-৩০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। আগের দিন একই জাতের পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৩০-৩৫ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। সে হিসাবে একদিনের ব্যবধানে হিলিতে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম কেজিতে সর্বোচ্চ ৬ টাকা কমেছে। পাইকারি পর্যায়ে দাম কমার প্রভাব পড়েছে পণ্যটির খুচরা বাজারেও। স্থানীয় খুচরা বাজারে আমদানি করা প্রতি কেজি পেঁয়াজ মানভেদে ৩০-৩৫ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়। একদিনের ব্যবধানে পণ্যটির দাম কেজিতে সর্বোচ্চ ৫ টাকা কমেছে।

অন্যদিকে এদিন খুচরা পর্যায়ে দেশে উৎপাদিত পেঁয়াজের দাম সর্বোচ্চ ৫ টাকা কমে কেজি প্রতি ৪০-৪৫ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়।

স্থানীয় আমদানিকারক হারুন-উর রশীদ হারুন বলেন, ভারতের বাজারে সরবরাহ সংকটের জের ধরে পেঁয়াজের দাম তুলনামূলক বেশি ছিল। একই সঙ্গে নুন্যতম রফতানি মূল্য (এমইপি) বেশি থাকায় পণ্যটি আমদানিতে ব্যয় হতো বেশি। ফলে দেশীয় আমদানিকারকরা লোকসানের আশঙ্কা থেকে পেঁয়াজ আমদানি কমিয়ে দিয়েছিলেন। সে সময় হিলি স্থলবন্দর দিয়ে দৈনিক ১৫-২০ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি হতো। এখন ভারতের বাজারে সরবরাহ বেড়ে পেঁয়াজের দাম কমেছে। তুলে নেয়া হয়েছে এমইপি। ফলে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পণ্যটির দৈনিক আমদানি ৩৫-৪০ ট্রাকে উঠেছে। বাড়তি আমদানির কারণে সরবরাহ বেড়ে দেশের বাজারে ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে।