বুধবার ২০ জুন ২০১৮ ৬ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পান আমদানী হচ্ছে, পান আমদানিতেও ব্যবসায়ীদের গলার কাঁটা

আব্দুল আজিজ, হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর উপজেলার হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পানসহ কয়েকটি পণ্য আমদানিতে ট্রাকের চাকা অনুযায়ী শুল্কায়নের কারণে ব্যবসায়ীদের ভোগান্তি কমছেই না। স্লাবাবভিত্তিক শুল্কায়নের কারণে আমদানিকারকদের ট্রাকের চাকা অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিমাণ পণ্য হিসাব করে শুল্ক পরিশোধ করতে হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গেছে, কম পণ্য আমদানি করেও ব্যবসায়ীদের বেশি পণ্যের শুল্ক দিতে হচ্ছে। এতে আমদানিকারকদের মোটা অংকের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

জাতীয় রাজস্ব বোডের (এনবিআর) নির্দেশক্রমে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পানসহ কয়েকটি পণ্য আমদানিতে ট্রাকের চাকা অনুযায়ী শুল্কায়ন করা হচ্ছে অনেক দিন ধরে। এ নিয়মের আওতায় পণ্যবাহী ট্রাকের চাকার সংখ্যাভেদে নির্দিষ্ট পরিমাণ হিসাব করে শুল্ক নির্ধারণ করা হয়। এক্ষেত্রে আমদানিকৃত পণ্যের পরিমাণ কম থাকলেও নির্দিষ্ট স্লাাব অনুযায়ী শুল্কায়ন করছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

২০১৩ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দরে ফল আমদানিতে শুল্ক ফাঁকির প্রমাণ পাওয়ার পর সোনামসজিদ ও হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ফল আমদানিতে গাড়ির চাকা অনুযায়ী শুল্কায়নের নির্দেশ দেয় এনবিআর। হিলি স্থলবন্দরে নিয়মটি এখনো চালু রয়েছে। অথচ শুল্ক ফাঁকির ঘটনাটি সোনামসজিদের হলেও পরবর্তীতে এ স্থলবন্দরের ক্ষেত্রে জারিকৃত নির্দেশনা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

হিলি স্থলবন্দরে পণ্য আমদানিতে স্লাাবভিত্তিক শুল্কায়নের তালিকায় গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে আরো কয়েকটি পণ্যের সঙ্গে যোগ হয় পান। তখন থেকে হিলি দিয়ে অন্যান্য পণ্যের পাশাপাশি পান আমদানিও বন্ধ ছিল। তবে দেশের বাজারে ভালো চাহিদা থাকায় এবং বাজারে পানের দাম স্থিতিশীল রাখতে সম্প্রতি হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পান আমদানি শুরু হয়েছে। কিন্তু ট্রাকের চাকা অনুয়ায়ী শুল্কায়নের কারণে আমদানিকারকদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।

চলতি মাসে বন্দর দিয়ে চার টন পান আমদানি হয়েছে। গত মাসে চারটি ট্রাকে ১৭ টন পান আমদানি হয়েছিল। পান আমদানিতে ছয় চাকার একটি ট্রাকে পাঁচ টন, ১০ চাকার ট্রাকে আট টন ও ১২ চাকার ট্রাকে ১০ টন পণ্য ধরে শুল্কায়ন করা হয়। প্রতি টন পানে শুল্ক দিতে হচ্ছে ৯০০ ডলার। কেজিপ্রতি শুল্কের পরিমাণ ২৯ টাকা। এ অবস্থায় চার টন পান আমদানি করলেও স্লাাবভিত্তিক শুল্কায়নের কারণে কাস্টমসকে শুল্ক দিতে হচ্ছে পাঁচ টনের। অর্থাৎ এক টনের ৯০০ ডলার বাড়তি শুল্ক দিতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের।

এখানেই শেষ নয়। ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, ভারত থেকে টনপ্রতি যে দরে পান আমদানি করা হচ্ছে, তার চেয়ে কয়েক গুণ বেশি অর্থ শুল্ক হিসেবে পরিশোধ করতে হচ্ছে। হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি মো. হারুন উর রশীদ হারুন জানান, ভারতের বাজারে পানের দাম কিছুটা বেশি। প্রকারভেদে প্রতি টন পান ২০০ থেকে ২৫০ ডলারে আমদানি করা হচ্ছে। অথচ এক টন পানের জন্য শুল্ক দিতে হচ্ছে ৯০০ ডলার।

গাড়ির চাকা অনুযায়ী শুল্কায়নের নিয়মকে তাদের ওপর বাড়তি বোঝা উল্লেখ করে হারুন উর রশীদ হারুন বলেন, ‘আমি ছয় চাকার একটি ট্রাকে তিন টন পান আমদানি করলেও স্লাাব অনুযায়ী পাঁচ টনের শুল্ক পরিশোধ করতে হচ্ছে। এতে করে পান আমদানিতে বাড়তি খরচ হচ্ছে। আমদানিকারকরা পান আমদানি করে লোকসান গুনছেন। এছাড়া বাড়তি শুল্কের কারণে বাজারে বাড়তি দামে পান বিক্রি করতে হচ্ছে।’ তিনি বাজারে পানের সরবরাহ স্বাভাবিক ও দাম নাগালের মধ্যে রাখতে পানের সরেজমিন পরীক্ষণের পর সঠিকভাবে শুল্কায়নের আহ্বান জানান।

সরেজমিন দেখা গেছে, বাজারে দেশী পান বিক্রি হচ্ছে প্রকারভেদে ছোট সাইজ ৫০ টাকা আর বড় সাইজ ১৫০-২০০ টাকা বিড়া দরে (এক বিড়ায় থাকে ৬৪টি পান)। আর আমদানিকৃত পান বিক্রি হচ্ছে ৩৬ হাজার থেকে ৪৮ হাজার টাকা খাঁচি দরে (১৮০ থেকে ২১০ বিড়ায় এক খাঁচি)।

গাড়ির চাকা অনুযায়ী শুল্কায়নের কারণে আগে থেকেই ভোগান্তির মধ্যে রয়েছেন হিলি স্থলবন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ীরা। ফলসহ শুকনা মরিচ, হলুদ, আদা, রসুন, হিমায়িত মাছ, শুঁটকি মাছ ও টমেটোর পর পান আমদানিতেও এ পদ্ধতি চালু করায় আমদানিকারকদের ভোগান্তি আরো বাড়ল।