সোমবার ১৩ জুলাই ২০২০ ২৯শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের জন্ম শতবার্ষিকী আজ

“আমার গানের স্বরলিপি লেখা রবে” তখন বড় খাঁটি কথাটি বলেছিলেন। বাংলাগানের ইতিহাস থেকে তার স্বরলিপি মুছে ফেলা সম্ভব নয়। এই কালজয়ী গায়ক ও সুরকারের নাম হেমন্ত মুখোপাধ্যায়। যেমন অবিস্মরণীয় কণ্ঠের অধিকারী ছিলেন তেমনি ছিলেন অমর সুরস্রষ্টা।
হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯২০ সালের ১৬ জুন অবিভক্ত ভারতের বারানসীতে। পশ্চিমবঙ্গের এক সম্ভ্রান্ত ব্রাহ্মণ পরিবারের সন্তান তিনি। লেখাপড়া করেছেন কলকাতায়। মিত্র ইন্সটিটিউশনের ছাত্র ছিলেন। স্কুল জীবনে গান গেয়ে সহপাঠীদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন। তবে স্কুলের কয়েকজন শিক্ষক তার গান করাকে ভালো চোখে দেখেননি। দশম শ্রেণীতে পড়ার সময় গান গাওয়ার অপরাধে শাস্তিও পেতে হয়েছিল তাকে।
সন্তোষ কুমার ঘোষ এবং সুভাষ মুখোপাধ্যায় ছিলেন হেমন্তর বন্ধু। দুজনেই পরবর্তীতে বাংলা সাহিত্যের বিখ্যাত কবি হয়েছিলেন। হেমন্তও সাহিত্য চর্চা করতেন। তার লেখা ছোটগল্প এক সময় দেশ পত্রিকাতেও ছাপা হয়েছে। হেমন্তর লেখা আত্মজীবনী ‘আনন্দধার’তে তিনি তার স্কুল জীবন এবং পরবর্তীতে সংগীতভুবনে প্রতিষ্ঠালাভের জন্য সংগ্রামের কথা লিখেছেন। কণ্ঠে সুর থাকলেও সংগীতের প্রাতিষ্ঠানিক তেমন কোনো শিক্ষা তার প্রথমে ছিল না। বাড়িতে হারমোনিয়াম পর্যন্ত ছিল না। এক বন্ধুর বাড়িতে হারমোনিয়াম বাজানো এবং স্বরলিপি থেকে গান তোলা শেখেন। পরবর্তীতে ওস্তাদ ফৈয়াজ খাঁ এবং তার ছাত্র ফণীভূষণ গাঙ্গুলির কাছে উচ্চাঙ্গ সংগীতের তালিম নেন। বন্ধু সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় ১৯৩৫ সালে অল ইন্ডিয়া রেডিওতে তার গান প্রথম রেকর্ড করা হয়। ১৯৩৭ সালে কলম্বিয়া কোম্পানি থেকে তার প্রথম রেকর্ড প্রকাশিত হয়।
সে সময় তিনি যাদবপুরে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র ছিলেন। কিন্তু বুঝতে পারছিলেন গান এবং ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া একসঙ্গে চলবে না। তাই পড়া ছেড়ে দিয়ে গানের জগতে পুরোপুরি মনোনিবেশ করেন। সেসময় বেশ অর্থকষ্ট ছিল তার। গান গাইতেন রেডিওতে এবং বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। কয়েকবার অপমানিতও হতে হয়েছে। অনুষ্ঠানে গান গাইবার কথা বলে তাকে বসিয়ে রাখা হয়েছে ঘন্টার পর ঘন্টা কিন্তু শেষ পর্যন্ত হয়তো সুযোগ মেলেনি । তখনকার নামকরা শিল্পী পঙ্কজ মল্লিকের অনুসরণে গাইতেন তিনি। তাই ‘জুনিয়ার পঙ্কজ’ নামে খ্যাতি রটে। তবে এর কিছুদিন পরই হেমন্ত নিজের স্টাইলে গাইতে শুরু করেন।
চলচ্চিত্রে গান গাওয়ার সুযোগ খুঁজছিলেন হেমন্ত। একদিন দেখা করতে গেলেন সেসময়ের নামকরা সাহিত্যিক এবং চিত্রনাট্যকার প্রেমেন্দ্র মিত্রের সঙ্গে। সুদর্শন, দীর্ঘদেহী তরুণ হেমন্তকে দেখে প্রেমেন্দ্র মিত্র ভাবলেন বুঝি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য এসেছে। একটি ছবিতে নায়কের ভূমিকায় অভিনয়ের প্রস্তাব দিলেন তাকে। হেমন্ত অবশ্য সে প্রস্তাব সবিনয়ে প্রত্যাখ্যান করেন। ১৯৪১ সালে সুযোগ এলো চলচ্চিত্রে গান গাওয়ার। ‘নিমাই সন্ন্যাস’ ছবির জন্য গাইলেন। এর পর শুধু গাওয়া নয় সুরও করতে থাকেন। ‘কথা কয়ো নাকো’ গানটির রেকর্ড প্রকাশিত হয় ১৯৪৪ সালে। নিজের সুরে গাওয়া এই গান বেশ জনপ্রিয়তা পায়। সেসময় রবীন্দ্রসংগীত গেয়েও বেশ খ্যাতি পান তিনি। ‘প্রিয় বান্ধবী’ সিনেমায় গাইলেন রবীন্দ্রসংগীত। হিন্দি সিনেমাতেও গান গাওয়ার সুযোগ পেলেন। ১৯৪৪ সালে হিন্দি ছবি ‘ইন্দ্র’তে গান গাইলেন।
১৯৪৫ সালে ভালোবেসে বিয়ে করলেন সংগীত শিল্পী বেলা মুখোপাধ্যায়কে। রেডিওতে গাইতে গিয়ে দুজনের পরিচয়। বেলার বাবা ছিলেন না। পরিবারের ছোট ভাইবোন ও বিধবা মায়ের দায়িত্ব পালন করতে হতো। হেমন্ত বিয়ের পর বেলার পরিবারের পুরো দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন। সেই সঙ্গে নিজের বাবা মায়ের দেখাশোনাও করতেন।
১৯৪৭ সালে বাংলা ছবি ‘অভিযাত্রী’র সংগীত পরিচালনা করেন হেমন্ত। আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। পঞ্চাশের দশকে বাংলা চলচ্চিত্রের ব্যস্ত সংগীত পরিচালক হয়ে ওঠেন তিনি।
এদিকে চল্লিশের দশকেই যোগ দিয়েছিলেন আইপিটিএ(ইন্ডিয়ান পিপলস থিয়েটার এসোসিয়েশনে)। বিপ্লবী ও গণসংগীতে উল্লেখযোগ্য সাফল্য পান সেসময়। সলিল চৌধুরীর কথা ও সুরে গাইলেন ‘কোনো এক গাঁয়ের বধূ’। দুর্দান্ত জনপ্রিয়তা পেল গানটি। অকাল প্রয়াত কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের কবিতা রানার গাইলেন। সলিল চৌধুরী-হেমন্ত জুটি সেসময় বিখ্যাত হয়ে ওঠে। এদিকে ছবিতেও একর পর এক সাফল্য। ‘শাপমোচন’, ‘হারানো সুর’,‘দীপ জ্বেলে যাই’ প্রতিটি ছবির গান সাফল্য পায়। ১৯৫১ সালে বোম্বে গেলেন ‘আনন্দমঠ’ ছবির সংগীত পরিচালনার কাজে। ছবিতে লতা মংগেসকার ও হেমন্তর যুগ্মভাবে গাওয়া ‘বন্দে মাতরম’ গানটি বেশ জনপ্রিয়তা পায়। হিন্দি ছবিতে হেমন্ত কুমার নামে তিনি প্লেব্যাক গায়ক ও সংগীত পরিচালক হিসেবে মোটামুটি খ্যাতি পেতে থাকেন। দেব আনন্দ অভিনীত ‘জাল’ ছবিটি গায়ক হেমন্ত কুমারকে ব্যাপক সাফল্য এনে দেয়। ছবিটির সংগীত পরিচালক ছিলেন শচীনদেব বর্মন।
তিনি বোম্বেতে তখন স্থায়ী বাসিন্দা হয়ে পড়েন। ‘নাগিন’ ছবিতে হেমন্ত অসামান্য সাফল্য পান। ‘তান দোলে মেরা মন দোলে’ গান আর সাপুড়ের বীণের আওয়াজ তাকে হিন্দি ছবির সংগীত পরিচালক হিসেবে খ্যাতির শীর্ষে নিয়ে যায়। অসংখ্য হিন্দি ও বাংলা ছবিতে গান করেছেন তিনি, করেছেন সংগীত পরিচালনা। মারাঠি, অহমিয়া, কন্নাড়া, তামিলসহ ভারতের বিভিন্ন ভাষায় গান করেছেন।
পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে তো বটেই সত্তরের দশকেও বাংলা ছবিতে এবং পুজোর বাজারে গায়ক সুরকার হিসেবে তিনি খ্যাতির শীর্ষে ছিলেন। অসামান্য সব গান উপহার দিয়েছেন সেসময়। ‘আজ দুজনার দুটি পথ’, ‘আমিও পথের মতো হারিয়ে যাব’, ‘নিঝুম সন্ধ্যায়’, ‘অলির কথা শুনে বকুল হাসে’, কোনোদিন বলাকারা এত দূরে যেত কি’. এই রাত তোমার আমার, এই পথ যদি না শেষ হয়’- এমন অসংখ্য অবিস্মরণীয় গানের তিনি গায়ক ও সুরকার।
পঞ্চাশের দশকের শেষ দিকে তিনি চলচ্চিত্র প্রযোজনার কাজ করেন। ‘হেমন্ত-বেলা’ ব্যানারে মৃণাল সেনের পরিচালনায় মুক্তি পায় ‘নীল আকাশের নীচে’। ১৯৫৯ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটি তাকে এনে দেয় ‘প্রেসিডেন্টস গোল্ড মেডেল’ যা তখন ছিল রাষ্ট্রীয়ভাবে ভারতের সর্বোচ্চ চলচ্চিত্র পুরস্কার। গীতাঞ্জলি নামে হেমন্তর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে নির্মিত হয় ‘বিশ সাল বাদ’, ‘কোহরা’, ‘বিবি আউর মাকান’, ‘ফারার’, ‘রাহগির’, ‘খামোশি’সহ বেশ কয়েকটি ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র। বাংলাতে ‘বালিকা বধূ’, ‘মনিহার’, ‘অদ্বিতীয়া’র মতো বেশ কয়েকটি ব্যবসাসফল চলচ্চিত্রের প্রযোজক তিনি। ‘অনিন্দিতা’ নামে একটি ছবি পরিচালনাও করেছেন।
১৯৭১ সালে হেমন্ত হলিউডের বিখ্যাত পরিচালক কনরাড রুকসের ‘সিদ্ধার্থ’ ছবির সংগীত পরিচালক হিসেবে কাজ করার জন্য আমেরিকায় যান। তিনি কোনো হলিউডের ছবির প্রথম ভারতীয় সংগীত পরিচালক। কনরাড রুকস হেমন্তর কণ্ঠে মুগ্ধ হয়ে তাকে অনুরোধ করেন পুরো ছবিতে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক হিসেবে হেমন্তর খালি গলার গান ও গুঞ্জন ব্যবহার করতে। ছবিটি ব্যাপক সাফল্য পায়। এ ছবিতে ‘ও নদীরে’ এবং ‘পথের ক্লান্তি ভুলে’ গান দুটি ব্যবহার করেন হেমন্ত। তিনি হলিউডের ছবির প্রথম ভারতীয় প্লেব্যাক গায়ক। মার্কিন সরকার তাকে বাল্টিমোর শহরের সম্মান সূচক নাগরিকত্ব দেয়। তিনি প্রথম ভারতীয় সংগীতশিল্পী যিনি এই সম্মান পান।
ষাট ও সত্তরের দশকে রবীন্দ্রনাথের ‘শ্যামা’, ‘চণ্ডালিকা’, ‘বাল্মীকি প্রতিভা’সহ অনেক নৃতনাট্য ও গীতনাট্যে কণ্ঠশিল্পী হিসেবে বিপুল খ্যাতি পান হেমন্ত।
ষাটের দশকে তিনি প্রথম ভারতীয় শিল্পী হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সংগীত পরিবেশন করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর তিনি ঢাকায় আসেন এবং বঙ্গবন্ধুর কাছে সম্মান পান।
১৯৮০ সালে হার্ট অ্যাটাকের পর থেকেই হেমন্ত শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন । হেমন্ত মুখোপাধ্যায় ১৯৮৯ সালের সেপ্টেম্বরে আবার ঢাকায় এসেছিলেন এবং একাধিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেছিলেন। বিটিভিতে সে সময় কবি আবু হেনা মোস্তফা কামাল তার একটি দীর্ঘ সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন। ঢাকা থেকে ফিরে যাওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই তিনি আবার অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং ২৬ সেপ্টেম্বর রাত ১১:১৫ মিনিটে কলকাতার একটি নার্সিং হোমে মেজর হার্ট অ্যাটাকের কারণে মৃত্যুবরণ করেন।
হেমন্ত মুখোপাধ্যায় সারাজীবন সংগীতের নিরলস সাধক ছিলেন। খ্যাতি, অর্থ,বিত্ত সত্তে¡ও ব্যক্তিজীবনে ছিলেন ভীষণ সাদাসিধে। অসংখ্য দাতব্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। গোপনে বহু ব্যক্তিকে অর্থসাহায্য করেছেন। অনেক প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত সাহায্য পাঠাতেন নিজের পরিচয় গোপন রেখে। দেশ বিদেশের কোনো অনুষ্ঠানে তাকে গান গাওয়ার অনুরোধ করলে তিনি তা ফেরাতে পারতেন না। অনেক প্রত্যন্ত গ্রামে বিনা পারিশ্রমিকে সংগীত পরিবেশন করেছেন শুধুমাত্র ভক্তদের আহবানে সাড়া দিয়ে। দেহ ও মনে অসাধারণ সুন্দর, নিরহংকার, বিনয়ী এই সংগীত সাধক বাংলা গানের জগতে চিরকাল বেঁচে থাকবেন তার অনিন্দ্য কণ্ঠ ও সুরের জন্য।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email