শনিবার ২৪ অগাস্ট ২০১৯ ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

হোমিও চিকিৎসক ডাঃ ভদ্রকে মারধরের মামলায় দিনাজপুরে দুই ব্যক্তির সশ্রম কারাদন্ড

আজহারুল আজাদ জুয়েল ঃ দিনাজপুরের বিশিষ্ট হোমিও চিকিৎসক ডাঃ ভদ্রনাথ রায়কে মারধরের অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-২ এর বিজ্ঞ বিচারক শিশির কুমার বসু দুই ব্যক্তিকে সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেছেন। দন্ড প্রাপ্তরা হলেন জেলা সদরের উত্তর গোবিন্দপুর নিবাসী মৃত ফটিক চন্দ্র রায়ের পুত্র অমল চন্দ্র রায় ও অনীল চন্দ্র রায়। অমল চাঁদগঞ্জ এ এস এম দ্বিমুখী স্কুল এন্ড কলেজ এর সহকারি শিক্ষক এবং অনীল একজন আইনজীবী। দন্ডবিধির ৩২৩ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে এই দুই ভাইকে উল্লেখিত কারাদন্ডে দন্ডিত করা হয়। ২০১২ সালের ১৭ মার্চ কোতয়ালী থানায় দায়েরকৃত মামলার সূত্রে জানা যায় যে, প্রায় তিন মাস আগে ডা. ভদ্রনাথ রায়, পিতা- মৃত মাত্তম চন্দ্র রায়, সাং- কালিয়াগঞ্জ (লালুপাড়া), থানা- কোতয়ালী, জেলা- দিনাজপুর এর স্ত্রী মৃণালিনী রায়ের নামে ১৫ শতক জমি তার পিতা অর্থাৎ ডা. ভদ্রনাথের শ্বশুর ননী গোপাল রায় দানপত্র করে লিখে দিয়েছিলেন। জমির খতিয়ান নং-৫১, দাগ নং-২২৩২, জেএল নং-৪১। কিন্তু অমল চন্দ্র ও অনীল চন্দ্র পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ঐ জমি তাদের বলে দাবী করতে থাকে এবং ডা. ভদ্র ও তার শ্বশুরকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকীসহ না না রকম হুমকী দিতে থাকে। এর প্রেক্ষিতে ডা. ভদ্রনাথ রায় উল্লেখিত দুই জনের বিরুদ্ধে ১৫ মার্চ ২০১২ ইং তারিখে কোতয়ালী থানায় একটি জিডি করেন। জিডি করার পরদিন ১৬ মার্চ সকালে তিনি ঐ জমিতে বৃক্ষ রোপণ করলে বিকাল ৩টার দিকে উল্লেখিত দুই ভাই রোপণকৃত বৃক্ষ জোরপূর্বক তুলে ফেলতে থাকেন। এই সময় বাধা দিতে গেলে অমল ও অনীল আরো ৩-৪জন সহযোগিসহ ডা. ভদ্রনাথ ও তার শ^শুরকে এলোপাতাড়ি কিল ঘুসি মারতে থাকেন। তারা ডা. ভদ্রের পকেট হতে ১২৫০ টাকাও ছিনিয়ে নিয়েছেন বলে মামলার বিবরণে অভিযোগ করা হয়। এই ঘটনায় ১৭/০৩/১২ তারিখে ডা. ভদ্রনাথ রায় বাদী হয়ে ১৪৩/৪৪৭/৩২৩/৩৭৯/৪২৭/৫০৬ ধারায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৩৪। জিআর-১৬২/১২(কোতয়ালী)। দীর্ঘ তদন্ত ও বিচার শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিশির কুমার বসু ১৮ জুলাই মামলার রায় প্রদান করেন। রায়ে আসামী অমল ও অনীলকে এক বছরের সশ্রম কারাদন্ড দেন। তবে দন্ডপ্রাপ্ত আসামীগণ সাথে সাথে জামিন প্রার্থনা করলে বিজ্ঞ বিচারক জামিন মঞ্জুর করেন। বাদী পক্ষে অ্যাডভোকেট মোঃ সাইদুর রহমান ও অ্যাডভোকেট ইন্দ্রজিৎ কুমার রায় (অনীক) এবং আসামী পক্ষে অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান মামলা পরিচালনা করেন।