বৃহস্পতিবার ৪ জুন ২০২০ ২১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১০ই নভেম্বর শহীদ নূর হোসেন দিবস

আগামীকাল শহীদ নূর হোসেন দিবস বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সবচেয়ে স্মরণীয় নাম। বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন-সংগ্রামের এক অবিস্মরণীয় দিন ১০ই নভেম্বর।

নূর হোসেন ততকালীন স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে গণতন্ত্রকামী মানুষের আন্দোলনকে আরো বেশি বেগবান করেছিলেন। হাজারো প্রতিবাদী যুবকের সঙ্গে জীবন্ত পোস্টার হয়ে রাজপথে নেমে এসেছিলেন তিনি। ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক, স্বৈরাচার নিপাত যাক’ এই জ্বলন্ত স্লোগান বুকে-পিঠে লিখে তিনি নেমেছিলেন রাজপথে। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে অকুতোভয় সেই যুবকের অগ্নিঝরা স্লোগান সহ্য হয়নি ততকালীন স্বৈরশাসকের।

সে আন্দোলনে স্বৈরাচারের লেলিয়ে দেয়া বাহিনী নির্বিচারে গুলি চালিয়ে তাঁর বুক ঝাঁঝরা করে দিয়েছিলো, বন্ধ করতে চেয়েছিলো প্রতিবাদের নতুন পথ।

তবে তার এই আত্মত্যাগ বৃথা যায়নি। স্বৈরাচার নিপাত গিয়েছিলো, মুক্তি পেয়েছিলো গণতন্ত্র। এই আন্দোলনের জোয়ারে নব্বইয়ের শেষ দিকে ভেসে যায় স্বৈরাচারের তক্তপোশ। শহীদ নূর হোসেনের রক্তদানের মধ্য দিয়ে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন তীব্রতর হয় এবং অব্যাহত লড়াই-সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বৈরাচারী সরকারের পতন ঘটে।

নূর হোসেন আত্মত্যাগ, সংগ্রাম ও আন্দোলনের সাথে জড়িয়ে থাকা এক অনন্য নাম।

১৯৮৭ সালের ১০নভেম্বর স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী গণ-আন্দোলনে বুকে-পিঠে ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক, স্বৈরাচার নিপাত যাক’ লেখা স্লোগান নিয়ে বিক্ষোভ করেন যুবলীগ নেতা নূর হোসেন। রাজধানীর জিরো পয়েন্ট এলাকায় (বর্তমান শহীদ নূর হোসেন স্কয়ার) পুলিশের গুলিতে শহীদ হন তিনি।

নূর হোসেনের আত্মত্যাগে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন আরো বেগবান হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯০ এর ৬ ডিসেম্বর স্বৈরাচারের পতন ঘটে। এরপর থেকে প্রতিবছর যথাযোগ্য মর্যাদায় ১০ নভেম্বর শহীদ নূর হোসেন দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email