বুধবার ১৯ জুন ২০১৯ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

১০ বছরে সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন ২৫,৫২৬ জন: কাদের

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত গত ১০ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোট ২৫ হাজার ৫২৬ জন মানুষ মারা গেছে। একই সময়ে ১৯ হাজার ৭৬৩ জন আহত হয়েছে।

বুধবার সংসদে জাতীয় পার্টির সদস্য মো. মুজিবুল হকের তারকা চিহ্নিত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া ও পঙ্গুত্ব বরণকারীদের সংখ্যা জানতে চেয়ে বিএনপি সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদের প্রশ্নের লিখিত জবাবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সংসদকে জানান, ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত গত ১০ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোট ২৫ হাজার ৫২৬ জন মানুষ মারা গেছে। একই সময়ে ১৯ হাজার ৭৬৩ জন আহত হয়েছে।

সড়ক দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ প্রসঙ্গে হারুনুর রশীদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের পথচারীসহ সড়ক ব্যবহারকারীদের যথাযথ সচেতনতার অভাব, যানবাহনের চালকদের দক্ষতার অভাব, আইন অমান্য করার প্রবণতা ও আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব, যানবাহনের যান্ত্রিক ত্রুটি, ওভার স্পিড, ওভারটেকিং, ওভারলোডিং, প্রতিকূল বা বিরূপ আবহাওয়ায় সড়কে মানসম্মত সাইন-সিগনাল রোড মার্কিংসহ নিরাপত্তা অবকাঠামোর অভাবের কথা উল্লেখ করেন।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী মহাসড়কে চালকদের একটানা ৫ ঘণ্টার অতিরিক্ত সময়ে গাড়ি না চালাতে এবং তাদের জন্য মহাসড়কে বিশ্রামাগার স্থাপনের নির্দেশনা প্রদান করেছেন। এ লক্ষ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে কুমিল্লার নিমসারে, ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের পাশে সিরাজগঞ্জের পাঁচলিয়ায়, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে হবিগঞ্জের জগদীশপুরে এবং ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে মাগুরা জেলার লক্ষ্মীকান্ত নামক স্থানে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত বিশ্রামাগার ও পার্কিং স্টেশন স্থাপনের লক্ষ্যে ডিপিপি অনুমোদন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

তিনি বলেন, স্কিল ফর এমপ্লয়মেন্ট ইনভেস্টমেন্ট (এসইআইপি) প্রকল্পের আওতায় ৫ বছরে মোট ১ লাখ দক্ষ গাড়িচালক সৃষ্টি করার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বিআরটিসি প্রকল্প মেয়াদে অর্থাৎ ২০২২ সালের মধ্যে মোট ৩৬ হাজার গাড়িচালক তৈরি করবে। চলতি বছরের জুন মাসের মধ্যে ৮ হাজার গাড়িচালকের প্রশিক্ষণ সমাপ্ত হবে।

মো. মুজিবুল হকের অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এবারের ঈদযাত্রায় দুর্ঘটনা কম হয়েছে, তবে মৃত্যুর হার বেশি ছিল। থ্রি হুইলার, ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক, লেগুনা, নসিমন, করিমন নিয়ম ভেঙে মহাসড়কে উঠে যাওয়ায় দুর্ঘটনাগুলো সংঘটিত হয়েছে এবং মৃত্যুর হার বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব ছোট-ছোট যানবাহন চলাচলে নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে। দুর্ঘটনা রোধে সড়ক শৃঙ্খলার ব্যাপারে মন্ত্রী সকলকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

সরকার দলীয় সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিম (ঢাকা-৭) এর লিখিত প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী যাত্রীবাহী বাসে যাত্রীদের হয়রানির অভিযোগে ৬৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। তিনি বলেন, যাত্রী হয়রানি ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধে বিআরটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কার্যালয়ে কর্মরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা নিয়মিতভাবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আসছেন। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে ভ্রাম্যমাণ আদালত মোট ৩৩ হাজার ৩০৫টি মামলা দায়ের করেন। আদায় করেন ৬৩ কোটি ২৬ লাখ দুই হাজার ৮২০ টাকা জরিমানা। এছাড়া ১৯৫টি গাড়ি ডাম্পিং স্টেশনে এবং ৫৫৮ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে।

এম আবদুল লতিফের (চট্টগ্রাম-১১) প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশে গণপরিবহনে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় নানামুখী পদক্ষেপের সঙ্গে সঙ্গে বিআরটিসি’র মাধ্যমে ভারতীয় লাইন অব ক্রেডিটের আওতায় বিআরটিসি’র জন্য ৩০০টি দ্বিতল, ১০০টি একতলা নন-এসি বাস, ১০০টি একতলা এসি (সিটি) বাস এবং ১০০টি একতলা (ইন্টারসিটি) গাড়ি আমদানির লক্ষ্যে ভারতীয় দুটি গাড়ি প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। যার ভিত্তিতে ভারত হতে বাস আমদানির কার্যক্রম শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

চলতি বছর ৬ জুন পর্যন্ত ২৬৬টি বাস বিআরটিসি বহরে যুক্ত হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, আগামী জুলাইয়ের মধ্যে বাকি বাসগুলো বিআরটিসি বহরে যুক্ত হবে। এছাড়া যানজট নিরসনের লক্ষ্যে ব্যক্তিগত ছোট গাড়ি ব্যবহার নিরুৎসাহিতের জন্য আরও ২১০০টি নন-এসি স্কুলবাস, ২০০টি একতলা এসি বাস এবং ২০০টি একতলা এসি সিটিবাস সংগ্রহের পরিকল্পনা রয়েছে।