বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর ২০১৯ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

৩রা’ নভেম্বর জেলহত্যা ইতিহাসের জঘন্যতম ও নৃশংস হত্যাকান্ড

কী ভাবে তাজউদ্দীন সহ চার জাতীয় নেতার হত্যাকা- ঘটে, দীর্ঘদিন তা’ মানুষের জানা ছিলনা। তারপর ধীরে ধীরে মানুষজন সব জানতে পারে।

১৯৭৫ সালের ২২ আগষ্ট সকালে তাজউদ্দীন ও অন্যান্যদের গ্রেফতার করে প্রথম জড়ো করা হয় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের কন্ট্রোল রুমে। খানিক পরেই সেখানে আক্রমনাত্মক ভঙ্গিতে এসে হাজির হন মেজর ডালিম ও রশিদ। সকালে সাড়ে এগারোটার দিকে নেতাদের সবাইকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে।

ঢাকা কেন্দ্রিয় কারাগারের নিউজেলে পাশাপাশি তিনটি রুমে রাখা হয় এই রাজনীতিকদের। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন তাজউদ্দীন, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, কামরুজ্জামান, ক্যাপ্টেন মনসুর ও আবদুস সামাদ আজাদ। প্রতিটি রুমে ছিল লোহার শিকওয়ালা দরজা। বারান্দার শেষে ছিল আরো একটি লোহার দরজা।

জেল হত্যার অভ্যূত্থান শুরু হয়েছিল রাত ২টায় ১৯৭৫ সালের ৩রা’ নভেম্বর। ফারুক আর রশীদের ট্যাঙ্ক বাহিনী থাকার জন্য তাদের এই জেলহত্যার অভূত্থান শুরু করতে বেশি বেগ পেতে হয়নি কেন্দ্রিয় কারাগারে।

মোশতাক জেলহত্যার পরিকল্পনা করেছিলেন কেবল ফারুক আর রশীদ কে নিয়ে। মোশতাক ঠিক করেছিলেন যে কোনো পাল্টা অভূত্থান ঘটলে কেন্দ্রিয় কারাগারে আটক চারনেতা তাজউদ্দীন, নজরুল ইসলাম, মনসুর আলি আর কামরুজ্জামান কে হত্যা করা হবে। যাতে নতুন সরকার গঠিত হলেও এই নেতারা তাতে নেতৃত্ব দিতে না পারেন। খালেদ মোশারফ ২ রা’ নভেম্বর ভোর রাত্রে অর্থাৎ ৩রা’ নভেম্বর অভ্যূত্থান ঘটান। ফারুক আর রশীদ একটি ঘাতক দল পাঠায় কেন্দ্রিয় কারাগারে। এর নেতৃত্ব দেয় মোসলেম উদ্দিন। এর আগে ১৫ আগষ্ট এই ঘাতক দলই সেরনিয়াবাত এবং তারপর শেখ মুজিবের বাড়িতে পাইকারী হত্যাকান্ড চালিয়ে ছিল। এই ঘাতক দলের একমাত্র মিশন ছিল তাজউদ্দীন ও নজরুল ইসলাম সহ চার নেতাকে হত্যা করা।

ঢাকার কেন্দ্রিয় কারাগারে ঢোকার পথে জেল কর্তৃপক্ষ তাদের বাধা দেয়। কারণ বাইরের অস্ত্রধারীদের জেলে প্রবেশ পুরোপুরি বে-আইনি এ নিয়ে সেখানে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তাদের বচসা হয়। তারপর ঘাতক বাহিনী তাদের নিদের্শ দাতাদের সঙ্গে বঙ্গভবণে টেলিফোনে যোগাযোগ করে। এরপর রাত তিনটার দিকে বঙ্গভবণ থেকে সে সময়ের আইজি প্রিজনস নূরুজ্জামানের কাছে টেলিফোন করেন মেজর রশিদ। নূরুজ্জামান কে তিনি বলেন, কয়েকজন আর্মি কিছু বন্দিকে জোর করে নিয়ে যাওয়ার জন্য জেল গেটে যেতে পারে আপনি জেল গার্ডদের সর্তক করে দেন। কয়েক মিনিট পর তিনি আবারও টেলিফোন পান এক আর্মি অফিসারের কাছ থেকে। তিনি নূরুজ্জামান কে বলেন, নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে কিনা ‘তা’ আপনি নিজের চোখে দেখে আসুন। আসলে এসব টেলিফোন করা হয়েছিল হত্যার পরিপ্রেক্ষিত তৈরির জন্য। জেল গেটে আইজি প্রিজন্স, ডিআইজি প্রিজন্স আর জেলার এক হওয়ার কিছুক্ষণ পর মেজর রশিদ আবারও টেলিফোন করেন আইজি প্রিজন্সের সঙ্গে। তিনি বলেন রিসালদার মোসলেম জেলগেটে আছেন। তিনি আপনাকে বিশেষ একটি কথা বলবেন। আপনি রিসালদার মোসলেম এর জন্য জেলগেট ছেড়ে দিতে বলবেন ও তাকে অফিসে নিয়ে যাবেন এবং তাজউদ্দীন, মনসুর আলী, সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও কামরুজ্জামান এই  চার বন্দীকে তাঁর সামনে হাজির করবেন। হতচকিত আইজি প্রিজন্স তখন রাষ্ট্রপতির সঙ্গে কথা বলতে চান। মেজর রশিদ টেলিফোনটা রাষ্ট্রপতি মোশতাক আহমেদের হাতে দেন এবং নূরুজ্জামান কিছু বলার আগেই রাষ্ট্রপতি বলে ওঠেন- আপনি বুঝতে পেরেছেন মেজর রশিদ আপনাকে কী নিদের্শ দিয়েছেন ? নূরুজ্জামান বললে¬ন হ্যাঁ আমি বুঝতে পেরেছি। রিসালদার মোসলেমের কাছে চারজন বন্দিকে নিয়ে আসতে হবে। মোশতাক তখন বললেন, আপনাকে যে নিদের্শ দেয়া হয়েছে, আপনি তা’ পালন করুন। এভাবেই তাদের ঢুকতে দেয়ার নিদের্শ আসে সর্বোচ্চ মহল থেকে।

এর কয়েক মিনিট আগেই জেলখানার ভেতরে সেনাবাহিনীর ৩ সেপাই আর ১২ জন সুবেদার সহ কালো পোশাক পরা রিসালদার মোসলেম এসে পৌছায়। তারা সবাই ছিল পুরো মাতাল, সঙ্গে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র। নিয়ম অনুযায়ী জেলগেটে স্বাক্ষর করে ভেতরে ঢোকার কথা থাকলেও প্রথমে তারা চেষ্টা চালায় নাম না লিখেই জেলের ভেতরে ঢোকার। গেট ওয়ার্ডার ও জেলার তাদের বাধা দিলে এবং সাক্ষরের জন্যে জোরাজুরি করলে এক পর্যায়ে বাধ্য হয় তারা নাম লিখতে। চার নেতার নাম দিয়ে রিসালদার মোসলেম তাঁকে বলেন এদের এক সঙ্গে করে সেখানে আমাদের নিয়ে চলেন। আমি এ চারজনকে গুলি করে মারবো। শুনে নূরুজ্জামান সহ সকলেই হতভম্ব হয়ে যান। এ রকম ভয়াবহ কথা শুনে কেউ পাগলা ঘন্টা বাজিয়ে দেয়। মেজর রশিদ সেখানে ফোন করে জানতে চান রিসালদার মোসলেম জেলের ভেতরে গিয়ে পৌচেঁছে কিনা ? নুরুজ্জামান বলে হ্যাঁ পৌচেছেন। মেজর রশিদ বলেন আপনি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে কথা বলেন, এই বলে তিনি ফোনটি মোশতাকের হাতে তুলে দেন। নুরুজ্জামান বলেন, স্যার ওরাতো বন্দিকে গুলি করে মেরে ফেলতে চাইছে। শুনে প্রেসিডেন্ট বলেন, ওরা যা বলছে সেটাই হবে। একথা শোনার পর রিসালদার মোসলেম এর সেনাদল নিয়ে আইজি রওনা হন কারাগারের ভেতরের দিকে। কিছুদুর যাওয়ার পর বামদিক মোড় নিতে ডিআইজি আউয়াল প্রচন্ড অস্থির হয়ে ওঠেন। জেলের মধ্যে কেউ অস্ত্র নিয়ে ঢুকবে, এটা তিনি মন থেকে মেনে নিতে পারছিলেন না। জেলের মধ্যে কাউকে খুন করা হবে এটাও সভ্য জগতের রীতি নয়। কিন্তু সামরিক শাসনের সময় সেটি হয় উঠলো খুব স্বাভাবিক ঘটনা। শেষবারের মতো তাদের বাধা দেয়ার চেষ্টা করেন ডিআইজি আউয়াল। তিনি জেলার সাহেবকে বলেন, জেলার সাহেব কাজটা তো বেআইনি হচ্ছে। অস্ত্র নিয়ে ভেতের ঢোকা নিষেধ, বেআইনি। সেনাদল প্রচন্ড গালিগালাজ করে ওঠে একথা শুনে। আউয়াল বলেন এটি চরম অন্যায়। ৩০ বছর হলো চাকরি করছি আমি। কোনোদিন জেলের মধ্যে এরকম ঘটনা হয়নি। এখানে মানুষকে আশ্রয়ে রাখা হয়। এখানে এই জেলখানার ভেতরে এমন ধরনের হত্যাকান্ড চলতে পারে না। সবাই যদি সেদিন ডিআইজি আউয়ালের মতো সামন্য একটু প্রতিবাদের চেষ্টা করতেন তাহলে সে রাতটি হয়তো অন্যরকম হতে পারতো কিন্তু অস্ত্রের মুখে জেল রক্ষকরাও সেদিন ভীত হয়ে পড়েন। তারা সেনা দলটিকে লকআপের ভেতর পৌছে দিয়ে বাইরে দাঁড়িয়ে থাকেন। সেই সময় আইজি নুরুজ্জামান জেলার আমিনুর রহমান কে চার জনের নাম লেখা একটি কাগজ এগিয়ে দিয়ে তাদের একটি রুমে জড়ো করতে বলেন। জেলের এক কক্ষে থাকতেন তাজউদ্দিন আর নজরুল ইসলাম। পার্শে¦র ঘরে মনসুর আলি আর কামরুজ্জামান। ঘাতকরা তাঁদের সবাই কে তাজউদ্দিনের কক্ষে একত্রিত করে। তারপর সেখানেই তাদের গুলি করে এবং বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করা হয়। জেলের সববন্দিরা কেঁপে ওঠে কান ফেটে যাওয়া ব্রাশ ফায়ারের শব্দ পেয়ে। গুলিতে ছাদের টিন মেঝে টেবিল পর্যন্ত ঝাঝড়া হয়ে যায়। ফুটো হয়ে যায় টেবিলে রাখা কোরআন শরীফ। ক্যাপ্টেন মনসুর কিছুক্ষণ বেঁচে ছিলেন। কিন্তু অন্য তিনজন মারা যান প্রায় সঙ্গে সঙ্গে। হঠাৎ করেই জেলের ভেতরে নেমে আসে ভয়াবহ নীরবতা। সেই নীরবতা ভেঙ্গে ভেসে আসে কাছেই চক বাজারের বড় মসজিদ থেকে ফজরের আজানের সুর।

তারপর লাশগুলো অবহেলায় পড়ে থাকে সেলের ভেতরে। দুপুর ১২টা/১টার দিকে চা’পাতা আর বরফ পাটা কিনে নিয়ে আসা হয় মৃতদেহ গুলোর জন্যে। তার আগে সংগ্রহ করা হয় তাদের বিভিন্ন জিনিসপত্র। সন্ধ্যার আগ দিয়ে ঠিক করা হয় জেলের মধ্যেই পোষ্টমর্টেম করা হবে। পোষ্টমর্টেমের পর লাশগুলো নিয়ে যাওয়া হয় প্রত্যেকের বাসায়। কিন্তু জেলে বন্দি চারনেতাকে হত্যার খবর সেদিন সম্ভবত: বাইরে প্রকাশ পায়নি।

হত্যাকান্ডের পর ডি, আই জি প্রিজন্স আব্দুল আউয়াল লালবাগ থানায় বাদী হয়ে লিখিতভাবে এজাহার দেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, স্পেশাল ব্রাঞ্চ, সিআইডি, ডিজিএফআই ইত্যাদি বিভিন্ন সংস্থা থেকে এ ঘটনার পরদিনই জেলে সে সময় উপস্থিত বিভিন্ন কর্মকর্তার জবানবন্দী রেকর্ড করা হয়।

ডি আই জি প্রিজন্স আব্দুল আউয়াল ৪ঠা নভেম্বর কেস করার কয়েক দিন পর পুলিশ এসে তদন্ত করে যায়। আরো কয়েকদিন পর গঠিত হয় একটি তদন্ত কমিটি, যার চেয়ারম্যান করা হয় বিচারপতি আহসান উদ্দীন কে, আর সেক্রেটারী করা হয় আব্দুল আউয়াল কে। তিনি তদন্ত কমিটির সামনে কেউ সাক্ষ্য দিতে না এলে তাকে যেনো আসতে বাধ্য করা যায় সে ব্যাপারে নোটিফিকেশনের জন্য একটি ডিমান্ড নোটিশ করেছিলেন। ব্যাপারটি তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কেও জানিয়েছিলেন। সেখান থেকে বিষয়টির আইনগত দিক খতিয়ে দেখার জন্য বলা হয়েছিল আইন মন্ত্রণালয়কে। কিন্তু তারপরই তা’ রাজনৈতিক কারণে ধামাচাপা পড়ে যায়।

খালেদ মোশারফ তৎকালীন ক্ষমতা নিয়েছিলেন ঠিকই কিন্তু তিনি নিজ উদ্দেশ্য সর্ম্পকে মোটেই নিশ্চিত ছিলেন না, এমন কি ক্ষমতা পুরোপুরি ব্যবহার করার ব্যাপারে ও তিনি দো’ টানায় ছিলেন। তিনি যে অভ্যূত্থান ঘটিয়েছেন অথবা ক্ষমতা দখল করেছেন তা’ জানিয়ে বেতারেও তিনি কোনো ভাষণ দেননি। তিনি বলেছিলেন যে প্রেসিডেন্ট সে কাজ করবে (খন্দকার মোশতাক)। খালেদ মোশারফ বিশ্বাস ঘাতক মোশতাক কে প্রেসিডেন্ট পদে থাকার অনুরোধ জানান। আর ঘাতক মেজরদের সঙ্গে শেষ পর্যন্ত রফা হয় এই বলে যে, তাদের নিরাপদে ব্যাংককে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে। রাত এগারোটার সময় একটি ফকার ফ্রেন্ডশিপ বিমানে করে ফারুক, রশিদ এবং তাদের অনুচরেরা ঢাকা ত্যাগ করেন।

মোশতাক ক্ষমতায় ছিলেন মাত্র ৮২ দিন। তার সবচেয়ে বড়ো দু’টি কু-কীর্তি হলো জেলে চারনেতাকে খুন করা এবং ১৫ আগস্ট এর খুনিদের বিচার করা যাবে না-এই মর্মে ইনডেমনিটি অর্থ্যাৎ দায়মুক্তি অধ্যাদেশ জারি করা। এই অধ্যাদেশ তিনি নিজেই জারি করেন। মোশতাক রাষ্ট্রপতির পদ থেকে সরে যেতে বাধ্য হন ৬ নভেম্বর। তারপর ক্ষমতা লাভ করেন বিচারপতি আবু সাদত সায়েম। তবে আসল ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত হয় জিয়াউর রহমানের হাতে। জিয়া ইচ্ছা করলে বিদ্রোহী মেজরদের বিচার করতে পারতেন কিন্তু তিনি তা’ করেননি। কেবল তাই নয় তিনি তাদের অপরাধের পুরস্কার স্বরূপ বিদেশী দূতাবাসগুলোতে চাকরী দিয়েছিলেন।

তখনকার আইজি প্রিজন্স নুরুজ্জামান সে সময়ের জেলহত্যার ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র সচীব তসলিমের কাছে যে প্রতিবেদন দেন এবং দু’জন ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ আজমল চৌধুরী ও খোন্দকার মিজানুর রহমান চার মৃতদেহের যে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেন তা’ রাজনৈতিক কারণে ধামা চাপা পড়ে থাকে দীর্ঘ ২১ বছর। কারণ খোন্দকার মোশতাকের পর ক্ষমতায় আরোহনকারী জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়াদের কেউ চাননি এ হত্যাকান্ডের বিচার হোক।

২১ বছর পর ১৯৯৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর আইজি প্রিজন্সের কক্ষের আলমারির ফাইলের স্তুপ থেকে এ ফাইলটি উদ্ধার করেন তখনকার ভারপ্রাপ্ত আইজি প্রিজন্স লিয়াকত আলী খান। তবে এ পর্যন্ত এ জেল হত্যাকান্ডের বিচারের মুখ দেখেনি।

লেখক: মো: জোবায়ের আলী জুয়েল

কলামিষ্ট, সাহিত্যিক, গবেষক, ইতিহাসবিদ ও অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা

মোবাইল- ০১৬৭৩-৮৮৪৫৫২, ইমেল-jewelwriter53@gmail.com