মঙ্গলবার ২১ জানুয়ারী ২০২০ ৮ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

৩৬টি পণ্য রপ্তানির সুবিধা চাইলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

থাইল্যান্ড সফররত বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের মধ্যকার বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে ডিউটি ফ্রি-কোটা সুবিধা বাড়ানো প্রয়োজন। সুবিধাপ্রাপ্ত পণ্যগুলোর সাথে আরো ৩৬ টি পণ্য থাইল্যান্ডে রপ্তানির ক্ষেত্রে বাণিজ্য সুবিধা প্রদান করা হলে উভয় দেশের বাণিজ্য ঘাটতি কমে আসবে। বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের জন্য থাইল্যান্ডে দীর্ঘমেয়াদী ভিসা প্রদান করা হলে বাণিজ্য সহজতর হবে।

মন্ত্রী আজ থাইল্যান্ডের ব্যাংককে অনুষ্ঠিত দু’দিনব্যাপী বাংলাদেশ-থাইল্যান্ড জয়েন্ট ট্রেড কমিটির (জেটিসি) ৫ম সভায় এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য এখন চমৎকার পরিবেশ বিরাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। থাইল্যান্ডের বিনিয়োগকারীগণ বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতে বিনিয়োগ করলে লাভবান হবেন বলেও মন্ত্রী মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, যৌথ উদ্যোগে বাংলাদেশে উন্নতমানের হাসপাতাল নির্মাণে থাইল্যান্ড এগিয়ে আসলে বাংলাদেশ সরকার সহায়তা প্রদান করবে। এর ফলে উভয় দেশই উপকৃত হবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী  জানান, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশ থাইল্যান্ডে  ৪৪ দশমিক ৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি করেছে, একই সময়ে আমদানি করেছে  ৯৫২ দশমিক ৪৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য। বাংলাদেশ চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, ঔষধ, সামুদ্রিক মৎস্য ও অন্যান্য প্রাণিজ পণ্য, কাগজ ও কাগজের পাল্প, সাবান, প্লাষ্টিক পণ্য এবং রাবার রপ্তানি করছে। বাংলাদেশের আরো পণ্যের চাহিদা রয়েছে থাইল্যান্ডে।

সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী ৩৬টি পণ্যের তালিকা থাই কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করেন। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে উত্থাপিত প্রস্তাবনা থাইল্যান্ড সরকার সহানুভূতির সাথে বিবেচনা করবে বলে সে দেশের মন্ত্রী জানান। থাইল্যান্ডের বিনিয়োগকারীগণ অল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে স্পেশাল ইকোনমিক জোন পরিদর্শন করবেন। 

তিনি বলেন, সভায় উভয় দেশ কৃষি ও স্বাস্থ্যসেবা খাতে কারিগরি সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে একমত হয়েছে।

জয়েন্ট ট্রেড কমিটির ৫ম সভায় থাইল্যান্ডের পক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী Jurin laksananawsit নেতৃত্ব দেন। থাইল্যান্ডে নিয়ুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. নাজমূল কোয়াওনি ও বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্যগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ-থাইল্যান্ড জয়েন্ট ট্রেড কমিটির ৬ষ্ঠ সভা ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে।