সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

৪১টি টেলিভিশনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে-প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় যাওয়ার পর থেকে ৪১টি টেলিভিশনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে ৩০টি চ্যানেল সম্প্রচারে রয়েছে। ৩০টা প্রাইভেট টেলিভিশন চলছে, এটা কম না,”।

বুধবার সকালে বেসরকারি টেলিভিশন স্টেশনগুলোর মালিকদের সংগঠন অ্যাটকোর পরিচালকরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সাক্ষাত করতে গেলে তাদের উদ্দেশে এ আহ্বান জানান সরকার প্রধান।

তিনি বলেন, “নিজেরা কতটুকু কী করতে পারলাম। নিজেরা কী করতে পারি। যে এলাকায় বসবাস করি; সে এলাকার জন্য কতটুকু করতে পারি, এলাকার মানুষের জন্য কতটুকু করতে পারি; সে চিন্তাটাও মানুষের মধ্যে থাকতে হবে।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “লাভের দিকটা যেমন দেখছে, সমাজের প্রতিও তাদের দায়িত্ব আছে। সমাজের প্রতি দায়িত্বটাই সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ।”

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানান, তারা সদ্যপ্রণীত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নানা ধারা মত প্রকাশের স্বাধীনতা খর্ব করবে দাবি করে তার বিরোধিতা করছে সাংবাদিক ও অধিকারকর্মীরা।

অ্যাটকোর নেতারা অনলাইন প্রচার মাধ্যমগুলোকে জবাবদিহির মধ্যে আনতে প্রধানমন্ত্রীকে আহ্বান জানান।

সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, “এমনি এমনি হয় না; সময় দিতে হয়, কাজ করতে হয়, চিন্তা করতে হয়, কার্যকর করার জন্য ব্যবস্থা নিতে হয়।”

সরকারের পাশাপাশি ব্যাক্তি উদ্যোগে উন্নয়ন নিশ্চিত করার উপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “মানুষকে কিন্তু এটা চিন্তা করতে হবে; সব কিছু সরকারের ওপর নির্ভরশীল হলে হবে না।

প্রধানমন্ত্রী সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতার বিষয়টি তুলে ধরে বলেন, “আমরা চাই, সমাজের যেন অশুভ কাজ না হয়। সমাজটা যেন সুন্দরভাবে গড়ে উঠতে পারে। সমাজটাকে যেন আমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি। সংস্কৃতি চর্চাটা যেন আরও বিকশিত হয়।”সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরতেও বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর বাংলাদেশে প্রথম বেসরকারি টিভি একুশে টেলিভিশনের অনুমতি দেওয়া হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, “এর আগে যারা ক্ষমতায় ছিল, বেসরকারি খাতে রেডিও দেবে, টেলিভিশন দেবে, এই চিন্তা কারও ছিল না। তখন রেডিও আর টিভিটা ছিল ক্ষমতা দখলের একটা মাধ্যম। একটা মাত্র চ্যানেল ছিল বিটিভি।”