রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পরপারে ভালো থাকিস দিদি

আমার বড় দিদি শুরুবালা রায়।আজ আনুমানিক রাত আটটার সময় অসুস্থতাজনিত কারণে ইহলোকের মায়া ত্যাগ করেছেন। দিব্যান লোকান স গোচ্ছাতু! ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি, দিদির আত্মা যেন চিরশান্তি লাভ করে, সে যেন স্বর্গবাসী হয়। ঈশ্বর আমার মা-সহ সকল ভাই বোন এবং দিদির পরিবারের সকলকে শোক সহিবার শক্তি দিন।দিদিকে নিয়ে স্মৃতিচারণ আমাদের ভাইবোনগুলোর মধ্যে দিদি ছিল সবার বড়। দিদি ছিল অনেক হাস্যজ্জল, প্রাণবন্ত একজন নারী। মনের দিক থেকে ছিল অনেক শক্তিশালী। কেউ ভাবতে পারিনি যে, এত তাড়াতাড়ি তিনি আমাদেরকে কান্নার সাগরে ভাসিয়ে, সকলের চোখকে ফাঁকি দিয়ে চলে যাবেন। তিনিসহ তিনজন ভাইবোন আমাদের মায়া ত্যাগ করলেন। জানি না এরপরে কার পালা আসবে। বাবাও আমাদের মাঝে নেই। থাকলে অনেক কষ্ট পেতেন। মায়ের অবস্থা ভেবে খারাপ লাগছে। জন্মদায়িনী মায়ের সামনে সন্তানদের বিয়োগ-ব্যাথা সহ্য করা কঠিন। বাবা মায়ের বড় মেয়ে হওয়াতে অনেক আদরের ছিলেন তিনি। আমার জন্মের আগেই তার বিয়ে হয়ে গিয়েছিল। মায়ের কাছে অনেক গল্প শুনেছি। খুব ছোট্ট বেলায় তাকে বিয়ে দেয়া হয়। আমাদেরকে খুব ভালবাসতেন। অনেক গুলো ভাই বোন হওয়াতে কোন অনুষ্ঠানে এক জায়গায় হলে সে সকলকে হাসি ঠাট্টায় ভরিয়ে রাখতেন। তার অনেক স্মৃতি জমা আছে। খুব খারাপ লাগছে, তাকে শেষ বারের মতো চোখের দেখা দেখতে পেলাম না। কয়েক মাস থেকেই তিনি অসুস্থ ছিলেন। শেষবার তাকে দেখতে গিয়েছিলাম গত জুন মাসে কুরবানির ঈদের ছুটিতে বাড়িতে গিয়ে। এই শেষ দেখা। নাম ধরে ডেকে, তার দুই হাত দিয়ে আমার দুই হাত শক্ত করে চেপে ধরে বলেছিল, আমাকে রেখে যাস না, আমাকেও তোর সাথে নিয়ে যা। শান্ত্বনা দিয়ে তাকে বলেছিলাম যে, আবার আসবো দিদি, তোকে দেখতে। কিন্তু আর কোনদিন দেখা হবে না। আর কোন কথাও হবে না। আমার নাম ধরেও সে আর ডাকবে না। পরপারে ভালো থাকিস দিদি।

লেখক-বিমলা রায়।

উন্নয়ন কর্মী।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email