শুক্রবার ৫ জুন ২০২০ ২২শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

৬ ডিসেম্বর বীরগঞ্জ বোচাগঞ্জ ও বিরামপুর মুক্ত দিবস

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি : ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর দিনাজপুরের বীরগঞ্জ, বোচাগঞ্জ ও বিরামপুর উপজেলা শত্রম্নমুক্ত হয়। সেই থেকে ৬ ডিসেম্বর পাকহানাদার মুক্তদিবস হিসাবে বিভিন্ন সংগঠন পালন করে আসছে।

বীরগঞ্জ মুক্ত দিবস

এই দিনে পাকিসত্মানি হানাদার বাহিনীর বিরম্নদ্ধে লড়াই করে জেলার বীরগঞ্জ উপজেলাকে শত্রুমুক্ত করে মুক্তি বাহিনী এবং মিত্র বাহিনীর যোদ্ধারা। পার্শ্ববর্তী জেলা ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় ৩ ডিসেম্বর মুক্ত হওয়ায় সৈয়দপুর (পাক-বিহার) অভিমুখে পালিয়ে যাওয়ার সময় বীরগঞ্জে মুক্তি বাহিনী ও মিত্র বাহিনীর প্রবল প্রতিরোধের মুখে পড়ে পাক হানাদার বাহিনী।

দিনাজপুর ৭নং সেক্টরের অধীন হওয়ায় বীরগঞ্জের আওতাধীন ছিল। লে. কর্ণেল কাজী নুরুজ্জামানের নেতৃতাধীন সেনাবাহিনীর হাবিলদার মোস্তাফিজুর রহমান বীরগঞ্জ ও খানাসামার যুদ্ধ পরিচালনার দায়িত্বে ছিল। মুক্তি বাহিনী ও মিত্র বাহিনীর যৌথ পরিচালনায় কাহারোল থানাধীন ভাতগাঁও ব্রিজের ওপারে ঠাকুরগাঁও থেকে পালিয়ে আসা হানাদার বাহিনী ও রাজাকারদের সঙ্গে তুমুল যুদ্ধ হয়। এই যুদ্ধে ভাতগাঁও ব্রিজের একাংশ ভেঙে পড়ায় পাক হানাদার বাহিনী সৈয়দপুর পালিয়ে যায়। এখানে বেশ কিছু মুক্তি বাহিনী ও মিত্র বাহিনী শহীদ হন।

৫ ডিসেম্বর বিকেল ৪টায় মিত্র বাহিনীর বিমান হামলার মধ্য দিয়ে বীরগঞ্জ শত্রুমুক্ত হতে থাকে। ৬ ডিসেম্বর হানাদার বাহিনীকে সম্পূর্ণভাবে পরাজিত করে মুক্ত হয় বীরগঞ্জ।

উলেস্ন­খ্য, ১৯৭১ সালের যুদ্ধ শুরুর প্রাক্কালে এপ্রিল মাসের শেষের দিকে ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান বীরগঞ্জ ব্রাঞ্চের গার্ড লক্ষ্মীপুর জেলার লক্ষ্মীপুর উপজেলার দীঘলি গ্রামের মৃতঃ সিকান্দার আলীর পুত্র মো. মহসিন আলীসহ অজ্ঞাতনামা ২জন মদনপুর সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন। এখনও ইব্রাহীম মেমোরিয়াল শিক্ষা নিকেতনের প্রবেশ দ্বারের দক্ষিণ পার্শ্বে অবহেলিত অবস্থায় তাদের সমাধিস্থল পড়ে আছে। ৭১’র রনাঙ্গনে দেশের বিভিন্ন স্থানে বীরগঞ্জের ৩ বীর সমত্মান বুধারম্ন বর্মন, রমেন সেন ও মতিলাল শহীদ হন।

বোচাগঞ্জ মুক্ত দিবস

৬ ডিসেম্বর বোচাগঞ্জ উপজেলা মুক্তদিবস। এই দিনে বোচাগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানী হানাদার বাহীনিকে পরাজিত করে শত্রুমুক্ত করেছিল বোচাগঞ্জের মাটি। দীর্ঘ ৯ মাসের লড়াই সংগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের সংঘঠিত করেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী তৎকালীন তাজউদ্দীন সরকারের বিশেষ দূত মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক জন নেতা মরহুম আব্দুর রৌফ চৌধুরী ও বিশিষ্ঠ রাজনীতিক মাওলানা ভাষানীর ঘনিষ্ট সহচর মরহুম আনোয়ারুল হক চৌধুরী নবাব।

এছাড়া বোচাগঞ্জের ১১৫ জন দামাল ছেলে আনছার থেকে আগত একজন ১ জনসহ মোট ১১৬ জন মুক্তিযোদ্ধা প্রাণপ্রন লড়াই চালিয়ে ১৯৭১ সালের এই দিনে বোচাগঞ্জকে হানাদার মুক্ত করেন। এতে ২ জন মুক্তিযোদ্ধাসহ ৯ জন মানুষ শহীদ হন। এই স্মৃতিকে অম্লান রাখতে ও শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা প্রদর্শনের জন্য সেতাবগঞ্জ পৌর ঈদগাঁও মাঠের পার্শ্বে পৌরসভার অর্থায়নে একটি দৃষ্টিনন্দন আকর্ষনীয় স্মৃতি সৌধ নির্মাণ করা হয়।

বিরামপুর মুক্ত দিবসঃ

৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালের এই দিনে দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলা শত্রম্নমুক্ত হয়। স্বাধীন বাংলার আকাশে উড়ে বিজয়ের পতাকা।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ৭নং সেক্টরের তরঙ্গপুর কালিয়াগঞ্জ রণাঙ্গনে ২৮০ জন মুক্তিযোদ্ধা প্রশিক্ষণে অংশ গ্রহন করে। এই সেক্টরের দায়িত্ব পালন করেন মুক্তিযোদ্ধা উন্নতম বীর সেনানী যথাক্রমে মেজর নজমুল হুদা ও মেজর নুরুজ্জামান। তৎকালীন বিরামপুরে ৫টি পাটী হয়ে দেশ মাতৃকার টানে বাংলার দামাল ছেলেরা দেশ স্বাধীন করার লক্ষ্যে আব্দুল করিম, আনোয়ারুল হক, আজিজার রহমান, মজিবর রহমান ও বর্তমান বিরামপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লুৎফর রহমান শাহ’র্ নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন।

মুক্তিযোদ্ধারা বিরামপুরকে পাক হানাদার বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা করার জন্য ঘোড়াঘাট রেলগুমটি, কেটরা শাল বাগান, ভেলারপাড় ব্রিজ, ডাক বাংলো, পূর্বজগন্নাথপুর মামুনাবাদ বাঙ্কার বসিয়ে সর্তক অবস্থায় থাকতেন। পাকসেনারা ৪ ডিসেম্বর পাইলট স্কুলের সামনে ও ঘাটপাড় ব্রিজে প্রচন্ড শেলিং করে ভাইগড় গ্রাম দিয়ে তীরমনিতে ৪ টি শেল নিক্ষেপ করে। লোমহর্ষক ও সন্মুখ যুদ্ধে কেটরা হাটে ১৬ মুক্তিযোদ্ধাসহ ৭ পাক হানাদার বাহিনী নিহত ও শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা আহত ও পঙ্গুত্ব বরণ করেন। এতে উপজেলার ২০ মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন, পঙ্গু হন ২জন, যুদ্ধে মারাত্মকভাবে আহত হন ১৩ জন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email