বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১ ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে ফুটে উঠছে প্রতিমার রুপ। ১৪৬ টি মন্ডপে হচ্ছে দুর্গাপূজা

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ আর মাত্র কয়েকদিন পরেই শুরু হতে যাচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা উৎসব। এ উপলক্ষে চারিদিকে চলছে উৎসবের আমেজ ও প্রস্তুতি। অন্যদিকে প্রতিমা তৈরিতে রাতদিন ব্যস্ত সময় পার করছেন দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার মৃৎ শিল্পীরা। এখন প্রতিমার অঙ্গ তৈরির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। অতিযত্ন সহকারে রঙের তুঁলিতে সাজছে ছোট-বড় প্রতিমাগুলো। আবার কোথাও প্রতিমাগুলো রঙিন করার কাজে ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পীরা। তুলির আঁচড়ে সুন্দর করে তোলা হচ্ছে দুর্গা, গণেশ, কার্তিক ও মহিষাসুরের প্রতিমা। ফুটে উঠছে প্রতিমার রুপ। মন্দিরগুলোর সাজসজ্জায়ও ব্যস্ত ডেকোরেটর শ্রমিকরা। এ বছর উপজেলায় ১৪৬টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ। আগামী ১১ই অক্টোবর সোমবার মহাষষ্ঠীর মধ্যেদিয়ে দেবীর বোধন আমন্ত্রণ অধিবাস দিয়ে শুরু হয়ে ১৫ই অক্টোবর শুক্রবার মহাবিজয়া উৎসবের মধ্যে দিয়ে এ দুর্গাপূজা শেষ হবে। এ বছর দুর্গাপূজায় কোনো আলোকসজ্জা, মেলা, আরতি প্রতিযোগিতা, কোনো ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মন্দির প্রাঙ্গণে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।
সরেজমিন উপজেলার দক্ষিণ নশরতপুর গ্রামের বেলতলী সার্বজনীন দূর্গা মন্দিরে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে প্রতিমা শিল্পিরা ইতিমধ্যে প্রতিমায় মাটির কাজ শেষ করেছেন। এখন চলছে রঙের কাজ। প্রতিমা শিল্পি দিনাজপুর সদরের সুইহারী প্রফেসারপাড়ার জগন্নাথ রায় বলেন, এ বছর করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় ১২টি প্রতিমা সেট তৈরির অর্ডার পেয়েছি। বতমানে ব্যস্ত সময় পার করছি। কিন্তু পারিশ্রমিক ভালো পাচ্ছি না। সারা বছর আমাদের এ দুর্গাপূজার আয়ের টাকায় চলে সংসার। ইতিমধ্যে পূজা মন্ডপগুলোতে চলছে ডেকোরেশনের কাজ।
দক্ষিণ নশরতপুর বেলতলী সার্বজনীন দূর্গা পূজা মন্ডপের সভাপতি প্রকৌশলী অরবিন্দু বিশ্বাস বলেন, প্রতি বছরের মত এ বছরও পূজার আয়োজন চলছে। তবে এ বছর দুর্গাপূজার অনুষ্ঠান সীমিত করা হয়েছে। বৈশ্বিক করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে এবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।
সাধারণ সম্পাদক যোগেশ চন্দ্র সরকার ওরফে অজিত বলেন, এ উপজেলা একটি সাম্প্রদায়িক সস্প্রীতির মেল বন্ধন। এখানে হিন্দু, মুসলিম সবাই মিলেমিশে বাস করে। এবার পূজায় উৎসব আমেজ সীমিত করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিটি পূজা মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার বলেন, এবার শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পূজা উদ্যাপনের জন্য থানা পুলিশ কাজ করবে। পাশাপাশি প্রতিটি পূজা মন্ডপে আনসার, গ্রামপুলিশ, পূজা উদ্যাপন পরিষদের স্বেচ্ছাসেবক সদস্যরা কাজ করবে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email