শুক্রবার ২০ জুলাই ২০১৮ ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‌‍”বাপের চেয়ে বেশী বুদ্ধিমান হওয়া যায়না”

অনেকগুলো আনন্দের উপলক্ষ্য একসাথে এসে জড়ো হয়েছে। আনন্দ উদযাপনের মুহুর্মুহু সুযোগ আমাদের জীবনে আসেনা। সে কারনে জীবনে এতোগুলো আনন্দের একসাথে আগমন একধরনের অনাকাঙ্খিত আক্রমনের মত অনুভুতির জন্ম দেয়। ব্যাপারটাকে সহজ ভাবে বোঝার জন্য আমরা উদাহরণের আশ্রয় নিতে পারি। অতিরিক্ত গরমের কারনে কুঁচকিতে অনেকেরই এক ধরনের ফাঙ্গাস আক্রমন হয়। আক্রান্ত স্হান চুলকানির দাবী নিয়ে হাজির হয়। চুলকানিতে এমনিতেই প্রচুর আনন্দ। সেটা যদি কুঁচকিতে হয় তবে সে আনন্দ অপরিসীম। চোখ বুঁজে কুঁচকির চুলকানি যখন উপভোগ করছেন গ্যারান্টি দিয়ে বলছি ঠিক সে সময়ই আপনার মেরুদন্ড বরাবর শিরশিরে চুলকানুভুতি জন্ম নেবে। অনেক কসরতের পর বাকি অন্য হাতটাকে যথাস্হানে নিয়ে যখন কেবল ঘষতে শুরু করেছেন, ঠিক তখনই পায়ের তালুতে চুলকানি শুরু হওয়ার কথা। সচরাচর এমনটাই হয়। এই বিরতীহীণ আরামের চুলকানি তখন আনন্দের বিপরীতে আপনার জন্য অপার বিরক্তির কারণও হয়ে দাঁড়াতে পারে।

গত কয়েকটা দিন ধরে আমাদের জাতীয় জীবনের নিস্তরঙ্গ জলধারার তপ্ত বালুচরে ক্ষণে ক্ষণে আনন্দ ঢেউ উছলে পড়ছে। রমজানের সংযম শেষে পবিত্রতার বিবেচনায় পরমানন্দের ঈদ আনন্দকে একপাশে সরিয়ে রেখে বাকীগুলোর দিকে তাকিয়ে দেখা যাক। কুয়ালামপুরে এশিয়া জয় করে এসেছে আমাদের ক্রিকেট কণ্যারা। সাম্প্রতিক জাতীয় আনন্দগুলোর মধ্যে এটা সেরা। বিবিধ বিবেচনায় বাকী আনন্দপোলক্ষ্যগুলোর মধ্যে একে একে আসবে জাতীয় বাজেট, বিজাতীয় ফুটবল বিশ্বকাপ,টুম্পার ‘অপরাধী’, বাবা দিবস,মাফুজুর রহমানের গান।
আসুন সবগুলো আনন্দের শরীর একটু একটু করে চেটে আসা যাক।

স্পোর্টস সার্বজনীন। এর শরীর সৌন্দর্যময়, এর উন্মাদনা বুনো। আমাদের দেশে নব্বই দশক পর্যন্ত এই বুনো উন্মাদনা ছিলো ফুটবলকে ঘিরে। কিন্তু তারপর থেকেই ফুটবল-রাজনীতি আর ফুটবল-পুজিবাদের সর্বগ্রাসী ভয়াল থাবায় আমাদের সম্ভাবনাময় ফুটবল জাগরণের ছবিটা ফুল-চন্দনে সেজে লটকে গেলো বাফুফে দেয়ালের উঁচু মাথায়। মাহফুজুর রহমানের গান বা টুম্পার ভাইরাল হওয়া ‘অপরাধী’র সাথে এর চমৎকার মিল খুঁজে পাবেন। মাহফুজ সাহেবের গানের দিনক্ষণ ঠিক হওয়ার সাথে সাথে এটিএন বাংলার টিআরপি বাড়তে থাকা বা মাত্র একটি গানের আবেগী জনপ্রিয়তায় টুম্পার মুহুর্তে প্লেব্যাক সিঙ্গার বনে যাওয়ার সাথে খুঁজে দেখেন আবাহণী বা মোহামেডানের ‘লিমিটেড কোম্পানী’তে পরিনত হওয়ার অনেক মিল পেয়ে যাবেন। মাহফুজুর রহমান গান কি রকম গাইতে পারেন সেটার চর্বিত চর্বনে নাই বা গেলাম কিন্তু খেয়াল করুনতো তার সঙ্গীতানুষ্ঠানের খবরে কি ধরনের মিডিয়া কাভারেজ আসে, কি ধরনের দর্শক উন্মাদনা তৈরী হয়! সিনেমায় একটা গান গাওয়ার সুযোগ পেতে কত শিল্পির সারা জীবন কেটে যায় অথচ সকালে ঘুম ভেঙ্গে চোখ কচলাতে কচলাতে টুম্পা শুনতে পান তার ফোনের অপর প্রান্তে দেশবিখ্যাত সঙ্গীত পরিচালকের লোভনীয় অফার-‘টুম্পা, সিনেমায় গাইবেন?’ কত সস্তা সবকিছু! যেমন আবাহণী মোহামেডান পরিচালনা পরিষদের তালিকায় নিজের নামটা থাকলেই পাওয়া যায় মিলিয়ন টাকার টেন্ডার, বিলিয়ন টাকার ব্যবসা। বার্সা বা মাদ্রিদও এক ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। বছর অন্তে লাভক্ষতির ব্যালেন্স সিট তাদেরও মেলাতে হয়। কিন্তু ওদের সাথে মোহামেডান আবাহণী’র পার্থক্যটা হচ্ছে- ওরা ব্যবসা ঠিক রাখার স্বার্থেই খেলার মান নিয়ে আপোষ করেনা, আমাদের ক্ষেত্রে মান গোল্লায় গেলেও ব্যবসাটা ঠিকই থাকে। এর কারনটাও খুব পরিস্কার। ওরা স্পোর্টসের মধ্যে রাজনীতি ঢুকায় না, আমরা ঝুলানো মুলো মুখের নাগালে আনতে রাজনীতির মধ্যে স্পোর্টসটাকে ঢুকিয়ে দেই। আবাহণী মোহামেডান তো ক্রীড়াক্ষেত্রে তবুও কিছু উজ্জ্বল ইতিহাস আর ঐতিহ্যকে ধারন করে আছে। কিন্তু নামের আগে ‘শেখ’ জুড়ে দিয়ে তৈরী হওয়া ক্লাবগুলোর অর্জন কি! জাতীয় ক্রীড়ায় এসব সংগঠন কর্তাদের ভুমিকা বা অঙ্গীকার কি! এসব সহজ প্রশ্নের জবাব খুঁজতে কোন জটিল পথে হাঁটার দরকার হয় না। চোখকান খোলা রাখলেই জানা যায় এদের দাঁড়িয়ে থাকার ভিত্তিমুল ক্রীড়া নয়, নির্লজ্জ রাজনৈতিক আনুগত্য। জাতীয় বাজেটের ক্রীড়া অংশের বড় ভাগটির বড় ভাগীদার যে এরাই সেটা বুঝতে পন্ডিত জহরলাল নেহেরু হওয়ার প্রয়োজন পড়েনা। ক্রিকেটে এবার মুহিত সাহেব কি পরিমান মাল বরাদ্দ দিয়েছেন সে তথ্য এ মুহুর্তে আমার কাছে নেই। কিন্তু সাধারন পরিসংখ্যান থেকে জানি আইসিসি’র অনুদান, টিভিস্বত্ব বিক্রি ইত্যাদি থেকে ক্রিকেট বোর্ডের নিজস্ব আয় রোজগার নেহাত কম নয়। তবে এ অর্থ ব্যয়ের নীতিমালা সাধারনের অজানা। হয়ত তাই আমাদের এশিয়া জয়ী ক্রিকেট কণ্যারা প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের টাকার ভাগ হাতে পাওয়ার সাথে সাথেই বুঝে গেছেন এটা তাদের অর্জনের স্বীকৃতি নয় নেহাত দয়া দাক্ষিণ্য। তা নাহলে ছুটি শেষে এ মেয়েদের সাধারণ গণপরিবহনে চড়ে ঢাকায় ফিরতে হবে কেন?

প্রিয় লেখক ফরিদ আহমেদ মজা করে লিখেছেন, ‘ব্রাজিল আর্জেন্টিনা আমাদের দেশে তাদের উপনিবেশ স্হাপন করেছে।’ যেহেতু ঔপনোবেশিক শাসনের অধিনস্ত থাকার অভিজ্ঞতা আমাদের আছে তাই কিভাবে অনুগত থাকতে হয় সেটাও আমরা ভালোই জানি। নাহলে একটা মেয়ের আইডি থেকে কিভাবে এমন স্ট্যাটাস আসে, ‘মেসি যদি আমাকে ধর্ষণ করতে আসে আমি সব খুলে দিবো।’ হতে পারে এটা ফেক আইডি। যদি তাই হয় তবু এই আইডি যিনি চালান তার রুচিকেও বিবেচনায় আনতে হবে। কারন নিশ্চিত তিনি ভিনদেশী কেউ নন।

আনন্দের উপলক্ষ্যের আলোচনা ত্যানা প্যাচাতে প্যাচাতে অনেক মোটা করে ফেলেছি। আমার অনেক পাঠকই এ লেখাটার এতোদুর পর্যন্ত হয়তো আসবেন না। তবু যারা কষ্ট কররে এ পর্যন্ত আসবেন তাদের জন্য একটা গল্প বলে শেষ করি। তবে এ লেখার বিষয়বস্তুর সাথে গল্পের কোন মিল খুঁজে না পেতে হুদাই অস্হির হওয়ার দরকার নাই-

মৃত্যু শয্যায় শায়িত পিতা ছেলেদের কাছে ডাকলেন। হাতে রাখা একটি লাঠি অল্প চাপেই ভেঙে ফেললেন বাবা। এরপর ছেলেদের বললেন, ‘দেখো একটা লাঠি কত সহজেই ভাঙ্গে ফেলা যায়।’ এরপর কি হবে ছেলেরা সবাই জানতো। তাদের চেহারায় কোন রকম কৌতুহলের ছাপ পড়লোনা। বাবা যথারীতি দশটি কাঠি হাতে নিলেন, চাপ দিলেন এবং ছেলেদের চরম অবাক করে দিয়ে অবলিলায় সবগুলি একসাথে ভেঙ্গে ফেললেন। ছেলেদের বিস্মিত, চমকিত চেহারার দিকে তাকিয়ে মুচকি হেসে বাবা দিলেন ছেলেদের জন্য শেষ উপদেশ- ‘বাপের চেয়ে বেশী বুদ্ধিমান হওয়া যায়না।

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর