শনিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ ১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন মন্ত্রীর ছবি বিকৃত করে ফেসবুকে পোস্ট করায় একজনকে গ্রেফতার করেছে দিনাজপুর পিবিআই

এম.আর মিজানঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের ছবি বিকৃত ও কুরুচিপূর্ণভাবে নিজের ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করায় একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআই। শনিবার দুপুরে রংপুর কাচারী মোড় এলাকা থেকে কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর থানার কলাকাটা গ্রামের ফিরদুস আলীর পুত্র মাইদুল ইসলামকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। যার নং ৫৩, তাং ১১/০৮/২০১৮ ইং, ধারা- ২০০৬ সালের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন (সংশোধনী ২০১৩) এর ৫৭ ধারা। ১২ আগস্ট রোববার দিনাজপুর পিবিআই কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত তথ্যগুলো জানানো হয়। পিবিআই’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মধুসুদন রায় লিখিত বক্তব্যে এ তথ্য জানান। এ সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টার লুৎফর রহমানসহ সংশিøষ্ট কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
এএসপি মধুসুদন রায় লিখিত বক্তব্যে জানান, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ফেসবুক আইডি খুলে গত ১৭ মেসহ বিভিন্ন সময়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী, সড়ক ও সেতুমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রীসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন ব্যক্তিদের ছবি অসৎ উদ্দেশ্যে বিকৃত ভাবে সম্পাদন পূর্বক কুরুচীপূর্ন মন্তব্য উক্ত আইডিতে পোষ্ট করছে। যার ফলে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ন পদে আসীন ব্যক্তিগণের মান সম্মান ক্ষুন্নসহ তাদের মর্যাদা ও পদকে চরম ভাবে অপমানিত করা হয়েছে। এটি একটি জনস্বার্থ বিরোধী, মানহানিকর ও রাষ্ট্র বিরোধী কার্যকলাপ। উক্ত কুরুচিপূর্ন কার্যকলাপের কারনে সাধারন জনগণের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে এবং যা সাধারণ জনগনকে উস্কানী প্রদানের অভিপ্রায়ে করা হয়েছে। বিষয়টি ফেসবুক সোস্যাল মিডিয়াতে প্রকাশ পাওয়ার পিবিআই উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশক্রমে বিষয়টি পিবিআই দিনাজপুর জেলার জিডি করে বিজ্ঞ আদালতের আদেশ নিয়ে তদন্ত অব্যাহত রাখা হয়। তদন্তকালে জানা যায়, উক্ত মাইদুল ইসলাম নামে ফেসবুক আইডিটি মোবাইল সীম- ০১৭৪০৯৭১৩৬৩ এর মাধ্যমে খোলা হয়েছে। পরবর্তীতে উক্ত সীম ধারীর নাম-ঠিকানা সংগ্রহ করে তাকে রংপুর শহর থেকে গ্রেফতার করা হয়। আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদকালে সে অপরাধ স্বীকার করেছে।

উল্লেখ্য, উক্ত মাইদুল কড়িগ্রাম উলিপুর থানার ৪টি মামলার চার্জশীটভুক্ত আসামী।