শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অটোরিকশা চালক হত্যা মামলায় রংপুরে দুই ভাইয়ের মৃত্যুদণ্ড

রংপুর প্রতিনিধি : অটোরিকশা চালককে হত্যার দায়ে সফিকুল ইাসলাম ও সাইফুল ইসলাম নামে দুই ভাইকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। 

বুধবার বিকেলে রংপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত-২ এর বিচারক তারিক হোসেন এ রায় প্রদান করেন। রায় ঘোষণার আগে থেকেই দুজনই পলাতক থাকায় তাদের অনুপস্থিতিতেএ রায় ঘোষণা করেন আদালত। 

জানা গেছে, রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার নেকিরহাট গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে আবুল কাশেম অটোরিকাশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। ২০১৬ সালের ২৪ আগস্ট ৪ জন যাত্রীবেশে তার অটো রিকশা ভাড়া নিয়ে গঙ্গাচড়া উপজেলার খলেয়া নামক স্থানে যাবার কথা বলে উঠেন। এরপর তারা ওই এলাকার ডা. নুর আলমের বাড়ির পার্শ্বে অটোরিকশা চালক আবুল কালাম আজাদকে অস্ত্রের মুখে ধান ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনার নিহত অটোচালক আবুল কালাম আজাদের মা মোখলেসেনা বেগম বাদী হয়ে গঙ্গাচড়া মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ রংপুরের সদর উপজেলার গোকলপুর ধনিপাড়া গ্রওামের মফিুল ইসলামের দুই ছেলে সফিকুল ইসলাম ও সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করে। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে দুই আসামি অটোচালককে হত্যা করে অটো ছিনতাই করার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি প্রদান করে। পরে পুলিশ আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

মামলায় ১৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য ও জেরা শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত  সফিকুল ইাসলাম ও সাইফুল ইসলামকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ প্রদান করেন।  

সরকার পক্ষের আইনজীবী নয়নুর রহমান টফি জানান, সাক্ষ্য প্রমাণে বাদী পক্ষ সন্দেহাতীত ভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে।  এছাড়াও দুই আসামি গ্রেফতার হওয়ার পর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করে। তার ওপর সাক্ষ্য প্রমাণে খুনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় দুই আসামির ফাঁসির আদেশ প্রদান করায় আমরা এ রায়ে সন্তুষ্ট।

দুই আসামি গ্রেফতারের পর জামিন নিয়ে পলাতক থাকায় তাদের অনুপস্থিতিতেই রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। গ্রেফতার হওয়ার দিন থেকে রায় কার্যকর করা হবে বলে। 

আসামি পক্ষের আইনজীবী আলাউদ্দিন আলমগীর জানান, এ রায়ে তারা সন্তুষ্ট নন। সে কারণে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email