শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে দিনাজপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা ব্যাহত

Dayabetikনানা অনিয়ম, দুর্নীতি, ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের দৌরাত্ম্য, জনবল সংকট, স্টাফদের খারাপ আচরণের কারণে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম দিনাজপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে প্রশাসনিক অবকাঠামো ভেঙে পড়েছে। এসব কারণে দিন দিন ভোগান্তি বাড়ছে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের। বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের দৌরাত্ম্যের কারণে রোগীদের প্রাণ ওষ্ঠাগত। সর্বোপরি উপঢৌকনের বিনিময়ে ভুয়া ও নিম্নমানের ওষুধ লিখছেন চিকিৎসকরা। এই অভিযোগ করেছেন কয়েকজন রোগী।
ডায়াবেটিক হাসপাতালে সূত্র জানা গেছে, দিনাজপুর উপশহরে অবস্থিত দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ডায়াবেটিক হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা ৫৮ হাজার ছুঁই ছুঁই। এখানে দৈনিক চিকিৎসা নিতে আসা রোগীর সংখ্যা প্রায় ৪ শতাধিক। প্রতিদিন এই বিপুল সংখ্যক রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার মতো জনবল নেই।
অভিযোগে জানা গেছে, রক্ত-প্রসাব পরীক্ষা ও ডাক্তারের সাক্ষাৎ, রিপোর্ট নিতে একজন রোগীকে ব্যয় করতে হয় প্রায় ৬ ঘণ্টা। রোগীদের বসার স্থানে বসে থাকতে দেখা যায় ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের। ডাক্তারের বদলে চেম্বারে পিয়ন, দারোয়ান ও অ্যাটেন্টডেন্সরা কাজ করে। এই ভাবে ডাক্তারদের চাটুুকদারি করে নিম্নমানের ওষুধ ব্যবস্থাপত্রে লিখিয়ে নেন। ফলে নিম্নমানের ওষুধ খেয়ে রোগীরা সুস্থ হচ্ছেন না বলেও অভিযোগ আছে।
অভিযোগ ওঠেছে, রোগী ও রোগীর আত্মীয়স্বজনদের কাছ হাসপাতালের স্টাফরা বিভিন্ন অজুহাতে মোটা অংকের টাকা নিয়ে থাকে। আবার ইসিজি, রক্তের নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা, আল্ট্রাসনোগ্রাম, এনডোস্কপিসহ নানা পরীক্ষা ও সেবার খরচ এখানে দ্বিগুণেরও বেশি। কাজেই দিনাজপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালটি সেবার পরিবর্তে এখন বাণিজ্যিক কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। হাসপাতালের মাসিক আয় ৫০ লাখ টাকারও বেশি হলেও স্টাফদের নিয়মিত বেতন দেওয়া হয় না। এখানে সেবা নিতে আসা রোগীরাও সবরকম সুবিধা থেকে বঞ্চিত। হাসপাতাল অভ্যন্তরে একটি উন্নতমানের ক্যান্টিন থাকলেও চড়া দামের কারণে সেখানে মানুষ যায় না। স্টাফদের পরামর্শে ও যোগসাজশে হাসপাতালের বাইরে নর্দমার ওপর অবস্থিত বিভিন্ন নিম্নমানের হোটেল থেকে উচ্চমূল্যে নিম্নমানের খাবার কিনে খায়।
দিনাজপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের চিকিৎসাকে সেবার মূল্য ও কার্যক্রমকে সত্যিকারের সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করার জন্য বর্তমান কমিটি ও প্রশাসনসহ স্বাস্থ্য অধিদফতর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এমনটি প্রত্যাশা দিনাজপুরবাসীর।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email