রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অপরাজিত থাকার স্প্যানিশ রেকর্ডটি এখন রিয়ালের দখলে

গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বুলগেরিয়ান দল লুডোগোরেটসকে ৪-০ গোলে হারিয়ে নতুন এক রেকর্ড গড়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফুটবল জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ। চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ২ মৌসুমে গ্রুপ পর্বের সবকটি ম্যাচ জিতে শতভাগ সাফল্য নিয়ে জয়ের নতুন রেকর্ড গড়েছে গ্যালাকটিকোরা। ইউয়েফার তথ্য অনুযায়ী এর আগে ১০ বারের চ্যাম্পিয়নরা ২০১১-২০১২ মৌসুমে এ কৃতিত্ব অর্জন করেছিল। এছাড়া টানা ১৯টি ম্যাচে অপরাজিত থাকার স্প্যানিশ রেকর্ডটিও এখন রিয়ালের দখলে। আর এসব কিছুর জন্যই রিয়াল কোচ কার্লো আনচেলত্তি খেলোয়াড়দের প্রশংসা করেছেন। এর আগে বার্সেলোনার সাথে যৌথভাবে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় ২০০৫ এর অক্টোবর থেকে ২০০৬ এর জানুয়ারি পর্যন্ত ১৮ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড গড়েছিল রিয়াল ও বার্সেলোনা।
সর্বশেষ গত বছরের সেপ্টেম্বরে নগর প্রতিদ্বন্দ্বী এথলেটিকো মাদ্রিদের কাছে ঘরের মাঠে ২-১ গোলে পরাজিত হয়েছিল ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নরা। বার্নাব্যু স্টেডিয়ামে গতকাল ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে আনচেলত্তি বলেছেন, আমার দলে অতি অসাধারণ কিছু খেলোয়াড় রয়েছে এবং এটা আমি বারবার বলতে চাই। এথলেটিকোর বিপক্ষে হারার পরে আমি কখনই ভাবতে পারিনি টানা ১৯টি ম্যাচে অপরাজিত থাকবো। ২০১৩-২০১৪ মৌসুমে আনচেলত্তির অধীনে রিয়াল রেকর্ড ১০মবারের মত চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপা লাভ করে। এটি ছিল এ ইতালিয়ানের রিয়ালের হয়ে প্রথম মেয়াদ।
এদিকে গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড অনুযায়ী ব্রাজিলিয়ান ক্লাব কোরিটিবার সব ধরনের প্রতিযোগিতায় সবচেয়ে বেশী টানা জয়ের রেকর্ড রয়েছে। ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত দক্ষিণ আমেরিকার এ ক্লাবটি টানা ২৪টি ম্যাচে অপরাজিত ছিল। প্যারানেন্স স্টেট চ্যাম্পিয়নশীপ এবং ব্রাজিলিয়ান কাপ থেকে এই জয়গুলো এসেছিল। আর রিয়াল লা লিগায় ১১টি, চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ৬টি এবং কিংস কাপে দুটি ম্যাচে জিতে এ রেকর্ড করেছে। তাদের এ সাম্প্রতীক সাফল্যে ইতোমধ্যেই আনচেলত্তির চুক্তি বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। একই সাথে তার সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির বিষয়টিও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজড়ে এসেছে। চলতি মৌসুমের শেষে আনচেলত্তির চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে।
২০১০-২০১১ মৌসুমে পেপ গার্দিওলার অধীনে লা লিগায় টানা ১৬টি ম্যাচ জয়ের রেকর্ড গড়েছিল বার্সেলোনা। শুক্রবার আলেমরিয়ার বিপক্ষে জয়লাভে মাধ্যমে রিয়াল তাদের জয়ের রেকর্ড ১২তে নিয়ে যাবার সুযোগ পাচ্ছে। এর পরপরই ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ খেলতে রিয়ালের মরক্কোতে যাবার কথা রয়েছে।

Spread the love