বুধবার ১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অবরুদ্ধ বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য

রোকেয়া বি.বিরংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ১৩৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী চাকরি স্থায়ীকরণ ও বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধের দাবিতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. একেএম নুর-উন-নবীকে দ্বিতীয় দিনের মতো অবরুদ্ধ করে ধর্মঘট করছেন। চাকরি স্থায়ীকরণ ও ১৪ মাসের বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে আজ শুক্রবার উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে অবস্থান ধর্মঘট পালন করছে কর্মকর্তা- কর্মচারীরা।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমান জানান, সরকার বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রদান করেছে। কিন্তু দীর্ঘদিনেও উপাচার্য তাদের বেতন-ভাতা প্রদান করছে না। এরপরও এসব কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছেন। বেতন না পেয়ে তারা পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল জলিল মিয়া দায়িত্বে থাকাকালে ৩৩৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিয়োগ দেন। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) অনুমোদন ছাড়া নিয়োগ হওয়ায় তাদের নিয়োগ অনুমোদন করেনি মঞ্জুরি কমিশন। এ কারণে তাদের বেতন-ভাতাও বন্ধ থাকে।
ওবায়দুর জানান, পরবর্তীতে অধ্যাপক ড. একেএম নুর-উন-নবী উপাচার্য হিসেবে যোগদানের পর পদ সৃষ্টি করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের অনুমোদন নিয়ে ২০০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর চাকরি স্থায়ী করেন। তবে ১৩৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর চাকরি স্থায়ী না হওয়ায় তাদের বেতন-ভাতা বন্ধ রয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মোর্শদ-উল আলম রনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ইউজিসির বেতনভুক্ত শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা ৫৪০ জন। সাবেক উপাচার্য মুহাম্মদ আবদুল জলিল মিয়া ইউজিসির অনুমোদন না নিয়ে অতিরিক্ত ৩৩৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দিয়েছিলেন। তাদের মধ্যে বর্তমান উপাচার্য ১৯৫ জনের চাকরি স্থায়ী করেছেন। বর্তমানে আন্দোলনরত ১৩৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর চাকরি অন্তর্র্বতীকালীন। তাদের চাকরির মেয়াদ গত বছর জুন মাসে শেষ হয়েছে। তিনি বলেন, ইউজিসির নির্দেশ উপেক্ষা করে শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দেয়ায় গত বছরের ৫ মে মুহাম্মদ আবদুল জলিল মিয়াকে উপাচার্যের পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতি, অনিয়ম ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে মুহাম্মদ আব্দুল জলিল মিয়া এবং তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার শাহজাহান আলী মণ্ডলের বিরুদ্ধে গত বছরের ১২ মে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
এদিকে অবস্থান ধর্মঘট পালনকালে তিন কর্মকর্তা-কর্মচারী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তারা হলেন- কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান, কর্মচারী গোলাম রব্বানী ও লায়লা বেগম। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, ১৩৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী চাকরি স্থায়ী ও বকেয়া বেতন-ভাতার দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত উপাচার্যকে অবরুদ্ধ রেখে অবস্থান ধর্মঘট চলবে।