রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অবরোধ তুলে নিতে খালেদাকে আল্টিমেটাম

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগসহ কয়েকটি সংগঠন আগামী শনিবারের মধ্যে দেশব্যাপী ২০ দলের অবরোধ কর্মসূচি তুলে নিতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে প্রত্যাহারের জন্য আল্টিমেটাম দিয়েছে।

খালেদার কার্যালয় ঘেরাওয়ে যাওয়ার পথে পুলিশের বাধায় গুলশান-২ নম্বরে সমাবেশ করে বেশকয়েকটি সংগঠন। সেখান থেকেই অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহারের জন্য আল্টিমেটাম দেয়া হয়।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইনসুর আলী ওই সমাবেশে বলেন, ‘অবরোধে গাড়িতে আগুন দিয়ে চালক-শ্রমিকদের হত্যার ঘটনায় দোষীদের গ্রেপ্তার করতে হবে। সেই সঙ্গে খালেদা জিয়াকে শনিবারের মধ্যে অবরোধ-হরতাল তুলে নিতে হবে। তা না হলে ২৫ জানুয়ারি থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আমরণ অনশন শুরু করবে শ্রমিকরা।’

সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগের সভাপতি ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, ‘খালেদা জিয়া কার্যালয়ে বসে অবৈধভাবে অবরোধে জ্বালাও-পোড়াওয়ের হুকুম দিচ্ছেন। এই পথ থেকে সরে না এলে তার পরিণতি হবে ভয়াবহ।’

এদিকে রাজধানীর গুলশান-২ এ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বাসভবন ঘেরাও করতে গিয়ে পুলিশি বাধার মুখে পড়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল। এসময় তাৎক্ষণিক এক সমাবেশে বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তারের দাবি জানান সংগঠনের সহ-সভাপতি ইসমত কাদের গামা। তা না হলে তার সংগঠন খালেদা জিয়াকে কার্যালয় থেকে টেনেহিঁচড়ে বের করার ঘোষণা দেন তিনি।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাও করতে গিয়ে পুলিশের বাধার মুখে পড়ে মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের নেতাকর্মীরা।

সংগঠনের কয়েকশ নেতাকর্মী সকাল থেকে গুলশান-২ নম্বর কার্যালয়ে জড়ো হয়। পরে তারা খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের দিকে রওনা দেয়। কিন্তু তাদের মিছিলটি গুলশানের শহীদ মেজর নাজমুল হক সড়কে পৌঁছলে পুলিশ বাধা দেয়। পুলিশের বাধার মুখে তারা সেখানে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়া শুরু করে।

এদিকে খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের আশপাশ ও গুলশানের ৮৬ নম্বর রোডের দুই প্রান্তে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৩ জানুয়ারি থেকেই গুলশানে নিজ কার্যালয়ে অবরুদ্ধ ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তবে বর্তমানে কার্যালয়ের সামনে থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ও ব্যারিকেড সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

Spread the love