মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অবরোধ হরতালে সৈয়দপুরের পোল্ট্রি শিল্পে ধ্বস নেমেছে, প্রতিদিন ক্ষতি হচ্ছে ২ লাখ টাকা

জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি : লাগাতার হরতাল অবরোধে সৈয়দপুরে পোল্ট্রি শিল্পে ধ্বস নেমেছে। এই শিল্পে প্রতিদিন প্রায় ২ লাখ টাকার তি হচ্ছে এমনটাই জানিয়েছেন পোল্ট্রি খামার মালিকরা। নতুন করে মুরগী উৎপাদন করতে কোন পোল্ট্রি খামার মালিকরা সাহস করছেন না। মুরগীর উৎপাদন কমে যাওযায় একের পর এক পোল্ট্রি ফার্মগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। গত ৪৭ দিনে ইতোমধ্যে উপজেলার আড়াইশ’ টি পোল্ট্রি ফার্মের মধ্যে প্রায় ১০০ পোল্ট্রি ফার্ম বন্ধ হয়ে গেছে এবং হরতাল অবরোধ অব্যাহত থাকলে অবশিষ্ট পোল্ট্রি ফার্মগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশংকা প্রকাশ করছেন।

সৈয়দপুর পোল্ট্রি ফার্ম ডিলার এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আতিয়ার রহমান জানান, হরতাল অবরোধে সৈয়দপুর থেকে প্রতিদিন বগুড়া, রংপুর, জয়পুরহাট, ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে যেত। কিন্তু হরতাল অবরোধে পরিবহণ সংকটের কারণে খামার থেকে মুরগী পাঠানো যাচ্ছে না। এদিকে পোল্ট্রি হ্যাচারীর বাচ্ছার দাম আগের তুলনায় বেশি। পূর্বে যে বাচ্ছার দাম ছিল ২৫ টাকা তা এখন ৪৫ টাকা। অপরদিকে লালন পালন শেষে বিক্্ির করতে না পেরে হতাশায় ভুগছেন খামারীরা।

সৈয়দপুরের ওয়াপদা মোড় এলাকার খামারী মোঃ শাহিন আক্তার জানান, পোল্ট্রি ফিডের দাম বেড়ে যাওযায়, খামারীরা খামার বন্ধ করে দিতে বাধ্য হচ্ছে। বর্তমানে ৫০ কেজি ওজনের খাদ্যের দাম ২ হাজার ২শ’ টাকা। যা আগে ছিল মাত্র ২ হাজার টাকা। তিনি আরও জানান, অবরোধ হরতালের আগে প্রতিটি মুরগী পাইকারী বিক্রি হয়েছে ১২৫ টাকা কেজি। এখন তা দাড়িয়েছে ১১০ টাকা। মুরগীর দাম কমে যাওয়ায় ট্রাক, পেট্রোল বোমা হামলার আশংকায় মুরগী দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানোর সাহস পাচ্ছেন না কোন খামার মালিক। সমস্যা এখানেই থেমে নেই। পরিবহণ ব্যায় আকাশচুম্বি হওয়ায় সহজে পাঠাতে পারছেনা তারা।

পোল্ট্রি খামারী নুর আলম বলেন, এভাবে হরতাল অবরোধ চলতে থাকলে আমাদের ব্যবসায় ধবস নেমে আমরা পথে বসার উপক্রম হবো। এখনই দুই নেত্রী সংলাপের মাধ্যমে অবরোধ হরতাল বন্ধ না করলে সারা দেশের ন্যায় সৈয়দপুরের অর্থনীতিও বন্ধ হয়ে যাবে। জনগণ ও দেশের স্বার্থে জেদ, ােভ, ভুল সংলাপেই সমাধান করতে দুই নেত্রীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন পোল্ট্রি শিল্প মালিকগণ।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email