শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ ১১ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অবশেষে পাকিস্তানের জয়

অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ ক্রিকেটে অবশেষে ১ম জয় পেলো সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ান পাকিস্তান।

রবিবার দিনের ২য় ম্যাচে তারা জিম্বাবুয়েকে ২০ রানে হারিয়েছে তারা। এর আগে অধিনায়ক মিসবাহ উল হকের হাফসেঞ্চুরি ও ওয়াব রিয়াজের দারুণ ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তানের সংগ্রহ ২৩৫ রান। এরপর ২৩৬ রানের জয়ের লক্ষে ব্যাট করতে নেমে ২১৫ রানেই গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ের ইনিংস। ফলে ২০ রানের কষ্টার্জিত জয় পায় পাকিস্তান।

মিসবাহ উল হক আউট হওয়ার আগে ৭৩ রানের চমৎকার ইনিংস খেলেন। ওয়াব রিয়াজ ১ ছক্কা ও ৬ চারের সাহায্যে ৪৬ বলে ৫৪ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন। এছাড়াও উমর আকমল ৩৩ ও হারিস সোহাইল ২৭ রান করেন। জিম্বাবুয়ের বোলারদের মধ্যে টেন্ডাই চাতারা ৩৫ রানের বিনিময়ে ৩টি উইকেট নিয়েছেন। এছাড়া শন উইলিয়ামস ২টি উইকেট পেয়েছেন।
তার আগে অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনের গ্যাবায় ১১তম বিশ্বকাপ আসরে ‘বি’ গ্রুরেপর ম্যাচে টস জিতে পাকিস্তানের অধিনায়ক মিসবাহ উল হক ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন। ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে টেন্ডাই চাতারার বলে সিকান্দার রাজার হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরেন উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান নাসির জামশেদ। দলীয় স্কোর বোর্ডে মাত্র ১ রান যোগ করেই বিদায় নিতে হলো তাকে। এরপর তার ব্যক্তিগত দ্বিতীয় ওভারের ৫ম বলে আরেক ওপেনার আহমেদ শেহজাদকে টেইলরের হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন। স্কোর বোর্ডে ৪ রান যোগ করেতেই ২ উইকেট হারায় পাকিস্তান। সাময়িক বিপর্যয় সামলে উঠে নিজেদের ম্যাচে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেন পাকিস্তান দলপতি মিসবাহ উল হক এবং হারিস সোহেল। তবে ২১তম ওভারের প্রথম বলে সিকান্দার রাজার বলে উইলিয়ামসের তালুবন্দি হয়ে সাজঘরে ফেরেন ২৭ রান করা হারিস সোহেল। দলীয় ৫৮ রানের মাথায় পাকিস্তানের তৃতীয় উইকেটের পতন ঘটে।
এরপর উইলিয়ামসের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে সাজঘরের পথ ধরেন উমর আকমল। আউট হওয়ার আগে অধিনায়ক মিসবাহর সঙ্গে তিনি ৬৯ রানের জুটি গড়েন। আকমলের বিদায়ের পর জন্মদিনের দিন খেলতে নামা আফ্রিদি ক্রিজে আসেন। কিন্তু তাকেও একই ওভারে শূন্য রানে বিদায় করেন উইলিয়ামস।
অধিনায়ক মিসবাহ ব্যাটিং ক্রিজের একপ্রান্ত ধরে রাখলেও পাকিস্তানের ৬ ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফিরেছেন। ৩৯তম ওভারে সোয়েব মাকসুদকে বিদায় করেন মুপারিওয়া। জিম্বাবুয়ের এ বোলারকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে আউট হওয়ার আগে মাকসুদ করেন ১৭ বলে ২১ রান।
’৯২-র বিশ্বকাপে খাদের কিনারা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়া পাকিস্তান এবারের আসরে হার দিয়ে শুরু করে তাদের বিশ্বকাপ মিশন। প্রথম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে হারের পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছেও উড়ে গেছে পাকিস্তান। তবে পরিসংখ্যান কথা বলছে পাকিস্তানের হয়ে। এর আগে কোনো আসরেই টানা তিন ম্যাচ হারেনি পাকিস্তান। পাকিস্তান ও জিম্বাবুয়ের এ পর্যন্ত ৪৭ বার মুখোমুখিতে মাত্র তিনবার শেষ হাসি হেসেছে আফ্রিকার দলটি। এ ম্যাচের আগে সাম্প্রতিক সময়ের সর্বশেষ ৫টি ম্যাচের ৫টিই হেরেছে পাকিস্তান আর ৫টি ম্যাচের একটিতে জয় পেয়েছে জিম্বাবুয়ে।