শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অবশেষে ফাইনালে নিউজিল্যান্ড

অবশেষে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ফাইনালে খেলার কৃতিত্ব অর্জন করেছে নিউজিল্যান্ড। মঙ্গলবার চলতি বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে তারা। ফলে আসর থেকে বিদায় নিতে হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকাকে। আর নিজেদের সপ্তম বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে এসে ফাইনালে পা রাখার সৌভাগ্য হয়েছে নিউজিল্যান্ডের।

মঙ্গলবার অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে টস জিতে ব্যাটিয়ের সিদ্ধান্ত নেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স।

৪৩ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ২৮১ রান করে প্রোটিয়ারা। কিন্তু বৃষ্টি হওয়ায় স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডকে জয় পেতে ২৯৮ রানের টার্গেট ছুড়ে দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। আর তাতেই রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৪ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে টিকেট পেয়েছে বিশ্বকাপের সহ-আয়োজকরা। ম্যাকালামের ঝড়ো অর্ধশতকের পর গ্র্যান্ট এলিয়ট ও ড্যানিয়েল ভেট্টরির দৃঢ়তা ভরা ব্যাটিংয়ে ১ বল বাকি থাকতে ৬ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় নিউজিল্যান্ড।

নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা দু’দল মিলে নয় বার বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেললেও একবারও ফাইনালে ওঠা হয়নি কোনো দলেরই। সেমির বাধা টপকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ ফাইনালের মঞ্চে পা রাখতে যাচ্ছে এ দুই দলের কোনো একটি। দুই দলই দাপটের সঙ্গে কোয়ার্টারের প্রতিপক্ষকে উড়িয়ে শেষ চারে স্থান করে নেয়।

বিশ্বকাপের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে এশিয়ার অন্যতম পরাশক্তি শ্রীলংকাকে ৯ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারায় এবি ডি ভিলিয়ার্সের দল। অন্যদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৪৩ রানে হারিয়ে দাপটের সঙ্গে সেমির টিকিট নিশ্চিত করে ব্ল্যাকক্যাপসরা।

এর আগে নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা ওয়ানডে ক্রিকেটে ৬১ বার মুখোমুখি হয়েছে। এর মধ্যে ২০টিতে জিতেছে নিউজিল্যান্ড। আর ৩৬ ম্যাচে জয় দক্ষিণ আফ্রিকার। ফলাফল আসেনি ৫টি ম্যাচে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (প্রথম সেমিফাইনাল)

দক্ষিণ আফ্রিকা : ২৮১/৫, ওভার ৪৩ (প্লেসিস ৮২, ভিলিয়ার্স* ৬৫, মিলার ৪৯; অ্যান্ডারসন ৩/৭২, বোল্ট ২/৫৩)

নিউজিল্যান্ড : ২৯৯/৬, ওভার ৪২.৫ (ইলিয়ট* ৮৪, ম্যাককুলাম ৫৯, অ্যান্ডারসন ৫৮; মর্কেল ৩/৫৯)

ফল : নিউজিল্যান্ড ৪ উইকেটে জয়ী (ডি/এল মেথডে)

ম্যাচ সেরা : গ্র্যান্ট ইলিয়ট (নিউজিল্যান্ড)

Spread the love