রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অবশেষে বড়পুকুরিয়া খনিতে কয়লা বিক্রি শুরু

শেখ সাবীর আলী ফুলবাড়ী (দিনাজপুর): কয়লা বিক্রি শুরু হয়েছে দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে। ১০০ থেকে ৫ হাজার মেঃ টন কয়লার আবেদন করেও কয়লা পেয়েছেন মাত্র ১০০ মেঃ টন। এতে ছোট ইট ভাটাগুলোর চাহিদা সামান্য কমলেও বিপাকে পড়েছে বড় ইট ভাটা ও বয়লার চালিত শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো।

জানা গেছে বড়পুকুরিয়া খনি কর্তৃপক্ষ কয়লা বিক্রির নোটিশ দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে গত ১৭,১৮ ও ২১ ডিসেম্বর কয়লা কেনার জন্য ১০০ থেকে ৫ হাজার পর্যন্ত চাহিদা উল্লেখ করে ৫ হাজারের অধিক আবেদন জমা হয় খনিতে। এতে প্রায় ৭ লাখ মে:টন কয়লা কেনার আবেদন দেখা দেয়। কিন্তু এই সময় খনি কর্তৃপক্ষের নিকট মাত্র ৬০ হাজার মে:টন বিক্রিয় যোগ্য কয়লা মজুদ থাকায়, কয়লা কেনার গ্রাহকরা কয়লা পাওয়া নিয়ে বিভিন্ন প্রকার তদ্ববীর শুরু করেন খনি কর্তৃপক্ষের নিকট। অবশেষে খনি কর্তৃপক্ষ সকল তদ্ববীর উপেক্ষা করে বিক্রিত কয়লার মজুদ অনুযায়ী প্রতি আবেদনের বিপরীতে ১০০ মে:টন কয়লা বরাদ্ধ দেয়। এতে ক্ষুদ্র ভাটা মালিকদের চাহিদা সামান্য পুরণ হলেও বড় বড় ভাটা মালিক ও বয়লার চালিত শিল্প প্রতিষ্ঠানের কয়লা চাহিদা অপূর্ণ থেকে যায়।

কয়লা কিনতে আসা কয়েক জন ভাটা মালিক জানান কয়লা বিক্রির নোটিশ পাওয়া মাত্র সারা দেশ থেকে ভাটা মালিকেরা কয়লা কেনার জন্য খনিতে ভীড় জমায়। এতে বিক্রির কয়লার পবিমানের প্রায় ২০গুন আবেদন জমা পড়ে। এতে কয়লা পাওয়া নিয়ে অনিশ্চিতয়তা দেখা দেয় ভাটা মালিকদের। তারা অভিযোগ করে বলন, অনেক ভাটা মালিকের পক্ষে রাজনৈতিক ভাবে তদবিরও করতে দেখা যায়। কিন্তু সেই তৎবির অনুযায়ী কয়লা সরবরাহ কর্তৃপক্ষ না করায় তারা সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বড়পুকুরিয়া কোল মাইন কোম্পানীর ব্যাবস্থাপনা পরিচালক আমিনুজ্জামান বলেন, এই মুর্হুতে খনিতে ১ লাখ মে:টন কয়লা মজুদ রয়েছে। বড়পুকুরিয়া তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের জন্য ৪০ হাজার মে: টন কয়লা মজুদ রেখে ৬০ হাজার মেটন কয়লা বিক্রি করছি। বর্তমানে কয়লার বিশাল চাহিদা থাকায় ৫ হাজারের অধিক আবেদন জমা হয়েছে যা ইতিপূর্বে কখনো এতো চাহিদা এক সঙ্গে দেখা দেয়নি। তাই আমরা আগে আসলে আগে পাবেন এই নীতিতে প্রতি আবেদনে মজুদ কয়লার উপর ভিত্তি করে প্রতি আবেদনে ১০০ মে:টন কয়লা বরাদ্ধ দিয়েছি। তিনি আরো বলেন এখন খনিতে কয়লা উৎপাদন অব্যহত আছে প্রতিদিনে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার মে:টন কয়লা উৎপাদন হচ্ছে, এই উৎপাদন অব্যহত থাকলে আগামী ১০ থেকে ১৫ দিনের মধ্য আবারো কয়লা বিক্রির নোটিশ দেয়া হবে, পর্যায় ক্রমে এই প্রক্রিয়া অব্যহত থাকবে।

Spread the love