বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অবসর নিচ্ছেন ইরাকি শিয়া নেতা মোকতাদা সদর

Iraqi Shi'ite radical cleric Muqtada al-Sadr delivers a sermon during weekly Friday prayers at the Kufa mosque near Najaf ইরাকের মৌলবাদী শিয়া নেতা ও ধর্মগুরু মোকতাদা সদর রাজনৈতিক জীবন থেকে অবসর নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। নিজের ওয়েবসাইটে পোস্ট করা হাতে লেখা একটি বিবৃতিতে তিনি এ ঘোষণা দেন, শনিবার জানিয়েছে বিবিসি। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তিনি ভবিষ্যতে সরকারি কোনো পদ গ্রহণ করবেন না এবং পার্লামেন্টেও কোনো প্রতিনিধি পাঠাবেন না। ২০০৩ সালে ইরাকে মার্কিন বাহিনীর অভিযানের পর সদর ও তার মাহাদি আর্মি ব্যাপক প্রতিপত্তি অর্জন করে। কিন্তু সম্প্রতি ইরাকি শিয়া প্রধানমন্ত্রী নুরি আল মালিকির সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়ে নিজের প্রভাব-প্রতিপত্তির অনেকটাই হারিয়ে ফেলেন ৪০ বছর বয়সী এই নেতা। আসছে এপ্রিলের পার্লামেন্টারি নির্বাচনে মালিকি আবার দাঁড়াতে চান, কিন্তু প্রকাশ্যে মালিকির এ সিদ্ধামেত্মর বিরোধিতা করেছেন সদরপন্থীরা। বিবৃতিতে সদর জানিয়েছেন, কিছু দাতব্য প্রতিষ্ঠান ছাড়া তিনি তার সব দপ্তর বন্ধ করে দিচ্ছেন। ১১ বছর আগে মার্কিন বাহিনীর হাতে সাদ্দাম হুসেনের পতনের পর যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী মনোভাব বৃদ্ধিতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন সদর। তার বাহিনীর সদস্যরা মার্কিন সেনাদের সঙ্গে উপর্যুপরী লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়ে। অপরদিকে, বিভিন্ন সাক্ষাৎকার ও ভাষণে ইরাকের মাটি থেকে মার্কিন বাহিনীর অপসারণ দাবি করতে থাকেন সদর। ২০০৪ সালে প্রতিদ্বন্দ্বী এক ধর্মীয় নেতার খুনের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল।

 

২০০৬-০৭ সালে শিয়া-সুন্নি সাম্প্রদায়িক সংঘাতের সময় হাজার হাজার সুন্নিকে অপহরণ, নির্যাতন ও হত্যার জন্য সদরের বেসামরিক বাহিনীকে দায়ী করা হয়। ওই সময় ইরানে পালিয়ে গিয়েছিলেন সদর। ২০০৮ সালে মাহদি আর্মি ইরাকি সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে প্রধানমন্ত্রী মালিকি মাহদি আর্মির নিন্দা করেন। বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করার পর মাহদি আর্মি থেকে বলা হয়, তারা অস্ত্র ত্যাগ করছেন এবং দল ভেঙে দিচ্ছেন। পরে প্রধানমন্ত্রী মালিকির সঙ্গে সদরের একটি সমঝোতা চুক্তি হয় এবং ২০১০ সালে মালিকিকে দ্বিতীয়বারের মতো ইরাকের প্রধানমন্ত্রী হতে সহায়তা করেন সদর। নির্বাচনের পর থেকে সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ছিলেন সদরপন্থীরা। বেশ কয়েকটি মন্ত্রী পদেও ছিলেন তারা। ২০১১ সালে স্বেচ্ছা-নির্বাসন থেকে ফিরে ঐক্য ও শামিত্মর ডাক দিয়েছিলেন সদর।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email