মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অভিনেত্রী রোজী আফসারীর জন্মদিন আজ

বাংলা চলচ্চিত্র অঙ্গনের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র তিনি। এদেশের সিনেমার ‘সুবর্ণ যুগ’ খ্যাত সময়ের দাপুটে ও প্রভাবশালী নায়িকা ছিলেন তিনি। বাংলা চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের কথা মনে করলেই যার প্রিয় মুখটি চোখের সামনে ভেসে উঠে তিনি রোজী আফসারী।

প্রকৃত নাম শামীমা আক্তার রোজী হলেও এক সময় রোজী সামাদ নামেই পরিচিত ছিলেন গুণী এই অভিনেত্রী। পরবর্তীতে নিজের নামের শেষে স্বামী মালেক আফসারীর নামের শেষাংশ ব্যবহার করেন। সেই থেকে তার নাম হয়ে উঠে রোজী আফসারী।

আজ ২৩ এপ্রিল অভিনেত্রী রোজী আফসারীর ৭৫তম জন্মদিন। তিনি ১৯৬২ সালে অভিনয় জীবন শুরু করেন এবং ২০০৫ সালে তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র ‘পরম প্রিয়’ মুক্তি পায়।

শামীমা আক্তার রোজী ১৯৪৯ সালের ২৩ এপ্রিল লক্ষ্মীপুর জেলা শহরের শমসেরাবাদ এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন। বাবা কবি ওয়ালিউল্লাহ ছিলেন পেশায় একজন ঠিকাদার। মা হাসনাহেনা আকতারী বেগম ছিলেন একজন সঙ্গীতশিল্পী। একসময় মঞ্চের নামকরা শিল্পীও ছিলেন আকতারী বেগম। নবাব সিরাজ উদ-দ্দৌলা নাটকে লুৎফার চরিত্রে অভিনয় করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন তিনি। নানা সৈয়দ ফজলুল করিম কলকাতার ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন।

চার বোন ও দুই ভাইয়ের মধ্যে সবার বড় রোজী। মেজ বোন শিরিন আখতার বেবী সংস্কৃতি অঙ্গনের সঙ্গে জড়িত ছিল। তৃতীয় বোন প্রয়াত পারভীন আকতার রুহি ছিলেন চিত্রনায়ক ওয়াসীমের স্ত্রী। ভাই হাসান শহীদ বাবুও এক সময় চলচ্চিত্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল।

বাংলা চলচ্চিত্রের স্বর্ণালি যুগের সোনালী অভিনেত্রী রোজী ১৯৬২ সালে আব্দুল জব্বার খান পরিচালিত ‘জোয়ার এলো’ ছবির মাধ্যমে অভিনয় জীবন শুরু করেন। এরপর প্রায় ৪ দশক ধরে রোজী প্রায় ৩৫০টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এর মধ্যে পাকিস্তানের ‘জাগো হুয়া সাবেরা’, ‘পুনম কি রাত’সহ ২৫টি উর্দু ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। 

তার অভিনীত সেরা চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘সূর্য গ্রহণ’, ‘সূর্য সংগ্রাম’, ‘জীবন থেকে নেয়া’, ‘তিতাস একটি নদীর নাম’। এছাড়া অন্যান্য জনপ্রিয় চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে ‘ওরা ১১ জন’, ‘লাঠিয়াল’, ‘এতটুকু আশা’, ‘নীল আকাশের নীচে’, ‘অশিক্ষিত’, ‘প্রতিকার’ ইত্যাদি।

রোজী আফসারীকে বলা হয় ঢালিউডের সবচেয়ে মায়াবী চেহারার মা। আশির দশকে বহু ছবিতে রোজী আফসারী মায়ের চরিত্রে অভিনয় করে দারুণ জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।

১৯৮১ সালে চলচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজক মালেক আফসারীকে বিয়ে করেন রোজী। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে তিনি ‘এ’ লেভেল শেষ করে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করেছিলেন। তার দুই সন্তান। ছেলে রবি আফসারী ও মেয়ে কবিতা সামাদ। বয়সে মালেক আফসারী তার ২০ বছরের ছোট হলেও দীর্ঘ ২২ বছর সংসার করেন তারা। 

রোজী আফসারী দীর্ঘদিন ধরে কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন। তার দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে যায়। চার বছর ধরে নষ্ট হয়ে যাওয়া কিডনি নিয়ে তিনি বেঁচে থাকার জন্য লড়ছিলেন। ২০০৭ সালের ৯ মার্চ মাত্র ৫৭ বছর বয়সে পৃথিবীর মায়া ছেড়ে অসংখ্য ভক্ত-দর্শককে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান সকলের প্রিয় অভিনেত্রী রোজী আফসারী।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email